স্পেন ফেরত ইসমাইল হোম কোয়ারেন্টাইনে থেকে যেভাবে গ্রামের মুখ উজ্জ্বল করলো

১৪২১ পঠিত ... ০৪:২৩, মার্চ ২২, ২০২০

স্পেন থেকে দেশে ফিরলেন ইসমাইল। এয়ারপোর্ট থেকে ইসমাইলকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বললেন এবং হাতে একটা সিল মেরে দিলেন। ইসমাইলও হাসি মুখে জানালেন,‘এর কোন ব্যতয় ঘটবে না জনাব! আমি বাড়ি গিয়েই নিজেকে ঘরের মধ্যে আবদ্ধ করে ফেলবো!

ইসমাইল গতরাতে গ্রামের বাড়ি এসেছে। এসেই ঘুমিয়ে পড়েছে। ঘুমিয়ে পড়ার আগে রাতে বাবা মাকে ডেকে ইসমাইল বললেন,‘ তোমরা আমার কাছে আসবে না! একটু দূরে দূরে থাকবে!’

ইসমাইলের বাবা মার কপালে চিন্তার ভাজ। ইসমাইলের বাবা ছেলের এই আচরণ পছন্দ করলেন না। রাতে পান খেতে ইসমাইলের মাকে তিনি বলেই ফেললেন,‘পাঠাও, আরো পাঠাও তোমার ছেলেকে দূর দেশে! দূর দেশে থাকতে থাকতে আদব কায়দা সব ভুলে গেছে!’

ইসমাইলের মা বললেন,‘কী করলো আমার ছেলে?’

ইসমাইলের বাবা গজগজ করতে করতে বললেন,‘এতদিন পর আসলো ছেলেটা! বাবাকে একটা কদমবুসিও করলো না! বেয়াদব কোথাকার! আবার বলে কি না দূরে দূরে থাকতে!’

ইসমাইলের মা কিছু বললেন না। মনে মনে ভাবলেন, আসলেই তো। বিদেশে গেলেই কী এভাবে আদব কায়দা সব ভুলে যেতে হবে! সকালে ছেলেকে বলে ওর বাবাকে কদমবুসি করাতে হবে!

সকাল বেলা ইসমাইলদের উঠানে তিন গ্রামের মানুষ ভেঙ্গে পড়েছে। তারা খবর পেয়েছে, ইসমাইলকে হোম কোয়ারেন্টিাইনে থাকতে বলা হয়েছে! তাই তারা নিজের চোখে দেখতে এসেছে হোম কোয়ারেন্টাইন আসলে কী জিনিস!গ্রামের চেয়ারম্যান গণি মিয়া তো ইসমাইলের বাবাকে বলেই বসলেন,‘ইদ্রিস ভাই, আপনার ছেলে আমাদের গ্রামের নাম উজ্জ্বল করেছে! আশেপাশের দশগ্রামেও কেউ হোম কোয়ারেন্টাইনে নাই! কিন্তু আমাদের গ্রামে আছে! আমি তাই আজ বিকালে ইসমাইলকে একটা সংবর্ধনা দিতে চাই!’

ইসমাইলের বাবা খুশি হয়ে গেলেন। গতরাতে ছেলের বেয়াদবি তিনি ক্ষমা করে দিলেন। ছেলে যে এত বড় একটা অর্জন করেছে তা তো তিনি জানতেনই না। ইসমাইলের মাও কিছু বলেনি তাকে! অবশ্য সে বেকুব টাইপের মহিলা! এই অর্জনের সে কী বুঝবে!’

এদিকে তিন গ্রামের লোক ইসমাইলদের উঠানে। তারা ব্যাপক সোরগোল করছে। মানুষের সোরগোলে ইসমাইলের ঘুম ভাঙ্গলো। দরজা খুলেই সে অবাক হয়ে গেল। চারদিকে মানুষ আর মানুষ! সবাই একনজর দেখতে চায় ইসমাইলকে! এর আগে তারা কেউ কোনদিন হোম কোয়ারেন্টানে থাকা মানুষ দেখে নাই।

ইসমাইল ভয়ে দরজা বন্ধ করে দিলেন। এসব কী হচ্ছে। এরা কী সব পাগল হয়ে গেছে।

ভিড় আরো বাড়ছে। ইসমাইলের বাবা নতুন পাঞ্জাবি পড়ে সেই ভিড়ের মধ্যে ছুটাছুটি করছেন। এমন সময় ইসমাইলের মা তাকে ডেকে বললেন,‘ছেলে যে আমার এত বড় সম্মান নিয়ে এলো, এত মানুষ আসছে দেখতে। তাদের তো আপ্যায়ন করা লাগে!’

ইসমাইলের বাবা জিভ কেটে বললেন,‘ঠিক বলেছো ইসমাইলের মা! আমি এখনি বাজারে যাচ্ছি। পরিতোষের দোকানের রসগোল্লা নিয়ে আসছি! সবাইকে আজ মিষ্টি মুখ করাবো!’

এমন সময় খবর পেয়ে ইসমাইলের ছোট মামাও চলে আসলেন ইসমাইলদের বাড়ি। এসেই তিনি রাগ দেখিয়ে বললেন,‘ভাগ্নে আমার এত বড় একটা সম্মান অর্জন করলো আর আমাকে কেউ একটা খবরও দিলো না!মানুষের মুখে নিজের ভাগ্নের খবর শুনে ছুটে এলাম!’

ইসমাইলের মা তার ভাইকে বোঝাচ্ছেন,‘মন খারাপ করিস না বটু! তোকে অবশ্যই জানাতাম! গতরাতেই তো ও এলো!’

ইসমাইলের মামা এবার তার দুলাভাইয়ের দিকে তাকিয়ে বললেন,‘গরু জবাই করেন দুলাভাই! শুধু রসগোল্লায় হবে না! ভাগ্নের এই অর্জন আমাদের খুব বড় করে সেলিব্রেট করা দরকার!’

ইসমাইলের বাবা তার ছোট শ্যালকের কথায় খুশি হয়ে বললেন,‘ঠিক বলেছো তুমি! আসলে আমিও তাই ভাবছিলাম!’

ইসমাইলদের বাড়ির উঠানে ভিড় আরো বেড়েছে। সবাই পরিতোষের দোকানের রসগোল্লা খেতে খেতে অধির আগ্রহে অপেক্ষা করছে। ইসমাইলদের উঠানের কোনায় তিনটা গরু জবাই হয়েছে। সালাম বাবুর্চি তার দলবল নিয়ে চলে এসেছে। ইসমাইলের বাবা উঠানে দাঁড়িয়ে ঘোষণাও দিয়ে দিলেন,‘আজ দুপুরে আপনারা সবাই আমার বাসায় খাবেন! আমার ছেলের জন্য দোয়া করবেন!’

গ্রামের ডেকোরেটর ব্যবসায়ী ছদরুল বিনা খরচে ইসমাইলদের উঠানে প্যান্ডেল টানায় দিয়ে গেল! পাঁচশ চেয়ারও দিয়ে গেল! ইসমাইলের বাবা টাকা নেয়ার জন্য অনেক করে বললেন,‘ টাকা নাও! এটা তোমার ব্যবসা!’

ছদরুল জিভ কেটে বললেন,‘কি বলেন চাচা! ইসমাইল ভাই আমাদের গ্রামের গর্ব! ধইরা নেন তার হোম কোয়ারেন্টাইন হওয়ার লাইগা এইটা আমার একটা ছোট্ট উপহার!’

ওদিকে সারা গ্রাম জুড়ে শুধু ইসমাইলের কথা। গ্রামের চায়ের দোকানে উচ্চ শিক্ষিত কিছু পোলাপান তর্ক জুড়ে দিয়েছে, আসলে কথাটা হবে হোম কোয়ারেন্টিন! হোম কোয়ারেন্টাইন না!

আরেক দল সাথে সাথে প্রতিবাদ করে বলছে,‘হোম কোয়ারেন্টাইনই হবে!’

তুমুল বিতর্ক শুরু হলো। এর মধ্যে একজন বললো,‘চল ইসমাইল ভাইকে জিজ্ঞেস করে আসি। ওনিই ভালো বলতে পারবে।’

ওরাও সবাই মিলে ইসমাইলদের বাসায় চলে আসলো।

এদিকে ইসমাইলের এই বিরল অর্জনের জন্য গ্রামের হায় হায় স্পোর্টিং ক্লাব বিকালে বিয়াইত্যা ও আবিয়াইত্যা এই দুই একটি প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচের আয়োজন করলো! এই ফরম্যাটের নিয়ম হলো, গ্রামের যারা বিবাহিত তারা এক দলে, যারা বিয়ে করে নাই তারা আরেক দলে! এখন ওরা এসেছে ইসমাইল আসলে কোন দলে খেলবে সেটা জানতে! বিয়াইত্যা নাকি আবিয়াইত্যা! কারণ স্পেন যাওয়ার আগে ইসমাইল বিয়ে করে নাই! কিন্তু যদি স্পেন গিয়ে করে থাকে তাহলে তো দল বদল হয়ে যাবে! খেলার নিয়ম খুব কড়া! বিবাহিত কাউকে আবিয়াইত্যা দলে নেয়া যাবে না! আবার অবিবাহিত কাউকে বিয়াইত্যা দলেও নেয়া যাবে না!

ইসমাইল এখনো ঘরের জানালা দরজা সব বন্ধ করে বসে আছেন। গ্রামের মুরুব্বিরা সব বসে আছেন। এক মুরুব্বি আর থাকতে না পেরে বলেই ফেললেন,‘ছেলে একটু বেয়াদব আছে! আমরা এত এত মুরুব্বি কতক্ষণ ধরে বসে আছি আর সে বেরই হচ্ছে না! কই আমাদের সাথে দেখা করবো! কোলাকুলি করবে! কদমবুসি করে দোয়া নিবে তা না!’

আরেক মুরুব্বি আবার এই কথাকে সমর্থন জানালো-‘ঠিকই বলছেন! বিদেশ গেলে পোলাপাইন বদ হইয়া যায়!’

দুপুরবেলার একটু আগে ইসমাইল আর থাকতে না পেরে একটা মাস্ক পরে ঘর থেকে বের হয়ে এলো। তার টাট্টিঘরে যাওয়া দরকার! ঘটনা খুব জরুরি!
ইসমাইল বের হতেই সবাই তাকে ঘিরে ধরলো। জনতা সব হৈ হৈ করে উঠলো-এই বের হয়েছে, বের হয়েছে!’

কিন্তু ইসমাইলের মুখে মাস্ক দেখে সবাই একটু চুপসে গেল! গ্রামের স্কুল শিক্ষক ইসমাইলের বাপকে বললেন,‘ও ইদ্রিস ভাই, তোমার পোলা গরুর লাহান মুখে জোয়াল পড়ছে ক্যান?’

ইসমাইলের বাবা চিন্তিত হয়ে ছেলের দিকে তাকালেন। এবার ইসমাইলেদের প্রতিবেশী, এলাকার বিবিসি সংবাদ হিসেবে পরিচিত ফরিদের মা বলে উঠলেন,‘বুঝেন নাই ভাইসাহেব! বৈদেশ গিয়া আপনার পোলার যাতে পাতে মুখ দেয়ার স্বভাব হইছে! তাই এইসব লাগায় ঘুরতেছে! আমার ফরিদ জীবনেও এইসব পরে নাই! সে ভালা পোলা! ধর্ম! কম্ম করে!’

এদিকে গ্রামের চেয়ারম্যান সাহেব ছুটে এসে ইসমাইলের গলায় বিশাল এক ফুলের মালা পড়িয়ে দিলেন। তারপর কোলাকুলি করে বললেন,‘বিকালে স্কুল মাঠে চইলা আসবা বাজান! তোমাকে সংবর্ধনা দেয়া হবে।গঞ্জে লোক পাঠাইছি, তোমার জন্য গোল্ড মেডেল আনতে!’

ইসমাইল মাথা কাত করে জানালো সে আসবে। ইসমাইলের ছোট মামা ছুটে এসে ইসমাইলকে জড়িয়ে ধরে বললো,‘আমি জানতাম ভাগ্নে! সেই ছোটবেলায় তোকে দেখেই আমি বুঝছিলাম বড় হয়ে তুই হোম কোয়ারেন্টাইন সম্মান অর্জন করবি!’

ভিড়ের মধ্যে ইসমাইলের চোখ গেল তার ছোটবেলার প্রেমিকা পাখির উপর! এই পাখি গত দুই বছর আগে তাকে ছ্যাকা দিয়ে এক সরকারি কেরানির সাথে উড়াল দিয়েছিলো! সেই পাখিও আজ ইসমাইলের কাছে এসে মিনমিন করে বললো,‘আমি ভুল করেছি ইসমাইল! তখন যদি জানতাম তুমি এতবড় সম্মান পাবা তাহলে আমি কখনোই তোমাকে ছেড়ে যেতাম না!’

ভিড়ের মধ্যে পাখি আবার হারিয়ে গেল। এবার সামনে এলো ইসমাইলের মা। তিনি ইসমাইলের হাতে নতুন লুঙ্গি আর পাঞ্জাবি ধরিয়ে দিয়ে বললেন,‘বাড়ির ছাদে চল! সেখানে তোকে গোসল দেয়ার আয়োজন করা হইছে! বালা মসিবত দূর করার জন্য সোনা-রুপার পানির এন্তেজাম করা হইছে। এত এত মানুষ আসছে কে কখন বদ নজর দেয় তার ঠিক আছে!’

ইসমাইলের গোসল দেয়া হয়েছে। গোসলে হলুদ বাটাও ছিলো। মা খালারা সবাই ডলে ডলে ইসমাইলকে গোসল দিলো। ইসমাইল কী বলবে তা বুঝতে পারছে না! আজ কী তার বিয়ে নাকি? মা বাবা কী গোপনে তার জন্য কাউকে ঠিক করে রেখেছে। ইসমাইল বিরাট চিন্তার মধ্যে ডুবে গেল!

এদিকে উঠানে গ্রামের সবচেয়ে ধনী মানুষ চৌধুরি সাহেবের আগমন ঘটলো। তিনি ইসমাইলের বাবাকে বুকে জড়িয়ে ধরে বললেন,‘ এখন আমার একমাত্র মেয়ের সাথে আপনার ছেলের বিয়ে দিতে কোন আপত্তি নাই! গতমাসে আপনাদের ফিরিয়ে দেয়ার জন্য আমাকে ক্ষমা করবেন!’
ইসমাইলের বাবা হাসি মুখে চৌধুরি সাহেবকে জড়িয়ে ধরে বললেন,‘ক্ষমা চাওয়ার কী আছে! বুকে আসেন বেয়াই সাহেব!”

ইসমাইলের এই হোম কোয়ারেন্টাইন ও তার বাড়িতে জনসমাগমের এই খবর চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লো। সেই খবরের গন্ধ শুঁকে শুঁকে ঢাকা থেকে বেশ কিছু টিভি সাংবাদিকও চলে আসলো। তারপর ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে মুখে মাস্ক লাগিয়ে জ্বালাময়ী নিউজ করা শুরু করলো,‘এই গ্রামের এক যুবককে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার জন্য বলা হয়েছিলো। কিন্তু দেখুন তার বাড়ির কী অবস্থা! দেখে মনে হচ্ছে কোন বিয়ে বাড়ি! এভাবেই করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে যেতে পারে সারা গ্রামে! এমন দায়িত্বহীনতার জন্য আমরা সবাই বিপদে পড়বো! গ্রামের মানুষের এই মূর্খতার জন্য করোনা পরিস্থিতি দেশে মহামারি আকারে দেখা দিতে পারে! বকবক বাতেন, আনন্দপুর!

নিউজ শেষ। ক্যামেরা বন্ধ হতেই ইসমাইলের বাবা পরিতোষের রসগোল্লা নিয়ে সাংবাদিকদের বললেন,‘আমাদের গ্রামের সেরা রসগোল্লা! পরিতোষের দোকানের! একটু খেয়ে দেখেন!’

সব সাংবাদিক রসগোল্লা দেখে দ্রুত তাদের মুখের মাস্ক খুলে ফেললেন! তারপর গপাগপ সাটাতে থাকলেন! গ্রামের চেয়ারম্যান এসে বললেন,‘আমি এই গ্রামের পরপর টানা চারবার চেয়ারম্যান হয়েছি! আমার একটা ইন্টারভিউ নিয়েন!আর গ্রামের নামটা বেশ কয়েকবার বলবেন! সারা বিশ্ব দেখুক এই গ্রামকে! দেখুক এই গ্রামের ইসমাইলকে!’

ইসমাইলের বাবা এবার বিনয়ে বিগলিত হয়ে সাংবাদিকদের বললেন,‘আপনারা অবশ্যই দুপুরে খেয়ে যাবেন! ছেলের হোম কোয়ারেন্টাইন সম্মান অর্জনের জন্য গরুর রেজালা, প্লেইন পোলাও, মুরগীর রোস্ট, বোরহানি, জদ্দা সহযোগে চারটা ডাল ভাতের আয়োজন করেছি! আমি গরিব মানুষ! এর বেশি কিছু আর করতে পারি নাই! এর জন্য আমাকে ক্ষমা করবেন!’

১৪২১ পঠিত ... ০৪:২৩, মার্চ ২২, ২০২০

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি


Top