কামরুজ্জামান কামরুজ্জামানের বিদায় মেনে নিতে পারছেন না নেটিজেনরা

৯৮৩ পঠিত ... ১০:৩৪, জানুয়ারি ৩০, ২০২৪

421274206_290477757017622_7292017402435706525_n

নাম তার কামরুজ্জামান। কিন্তু নামের আগে পরে কিছু না থাকায় পাসপোর্টে নাম এসেছিল কামরুজ্জামান কামরুজ্জামান। তাকে সকলে দুই নামে চেনে সুইজারল্যান্ড প্রবাসী পেইজের অ্যাডমিন হিসেবে। বাঙালিকে সুইজারল্যান্ডের খাদ্য, কালচার, লাইফস্টাইল, ‘মেনার’ বিষয়ক নিয়মিত আপডেট দিতেন সকলের দুইবার কামরুজ্জামান।

কিন্তু বেজেছে বিদায়ের ঘণ্টা! পৃথিবীর কোনো সম্রাট যেমন রাজত্ব নিয়ে বিদায় হতে পারেনি, তেমনি নেটিজেনদের বরাপ সম্রাটেরও বিদায়বেলা চলে এলো। বরাপ সম্রাটের এ বিদায়ে হাহাকার পড়ে গেছে নেট পাড়ায়।

ডাবল কামরুজ্জামানের বিদায় মেনে নিতে না পেরে ফেসবুকের কমেন্টে কমেন্টে হ্যাশট্যাগের বিদ্রোহ ঘোষনা করেছেন তার ফ্যানেরা। এমনকি কামরুজ্জামানকে ছাড়া সুইজারল্যান্ড প্রবাসী পেইজকে চিন্তা না করতে পারা নেটিজেনরা পেইজটিকে বয়কট করারও সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন। #WeWantJustice #StandForEkbarKamruzzaman. #BoykotSwitzerlandProbashiPage হ্যাশটাগে ভরে উঠেছে ফেসবুকের চারকোণ।

তার ফ্যান ফলোয়ারদের একজন বলেছেন, ‘সুইজের ইতিহাসের বরাপে আপনার নাম স্মরণীয় হয়ে থাকবে সামার পর্যন্ত। উইল মিস ইউ একবার কামরুজ্জামান।’

আরেকজন বলেছেন, ‘আধুনিক বরাপ যুগের পরিসমাপ্তি ঘটলো।’

বিদায়বেলায় একটা নতুন ‘টাউজার’ ছাড়া কিছু রেখে যেতে পারেননি একবার কামরুজ্জামান। তার প্রাণপ্রিয় গোলাপ মাহবুব ভাই টাউজারটা পছন্দ করে রেখে দিয়েছে। প্রথম থেকেই গোলাপ ভাইয়ের সঙ্গে ছিল তার হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। তাদের প্রায়ই লেগে থাকে ঝগড়া। গোলাপ ভাইয়ের কুবুদ্ধিতে একবার কামরুজ্জামান একবার হারুন ভাইর গালে চুমা দেওয়ার কারণে তাকে মেস থেকেও বের করে দেয়।

এরপর টাউজার পরে কামরুজ্জামানকে বরাপের মধ্যে রাত কাটাতে হয়। কিন্তু শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত গোলাপ ভাই আর কামরুজ্জামান কামরুজ্জামানের মধ্যে মিলমিশ হয়ে গেছে। বিদায় উপলক্ষে জীবনে শেষবারের মতো তারা বরাপে শুয়ে ছবি তুলেছে।

গোলাপ ভাইকে কামরুজ্জামানের প্রস্থান প্রসঙ্গে দুটি কথা বলতে বললে তিনি জানান, ‘আমরা ডোন্ট মাইন্ডের লোক। এসব ছটখাটো জুটঝামেলা হইতেই পারে, কিন্তু মনে কিছু রাখা যাবে না। এইগুলা সুইজারল্যান্ডের মেনার। কামরুজ্জামান কামরুজ্জামানকে নিজের বগলের তলে নিয়ে যতদূর পেরেছি মেনার শিখিয়েছি। এখন সে একলাই চলতে পারবে আশা করি। তার জন্য শুভকামনা। তবে আগে থেকে বলে রাখছি, বরফের সম্রাট বরফে উষ্টা খাইলে সে বিষয়ে আমার কোন পা নাই জেনে রাখবেন।’

কামরুজ্জামান কামরুজ্জামান এসেছিলেন রাজপুত্র হয়ে, সুইজারল্যান্ডের পথেঘাটে যা বরাপ আছে, সবখানে ভালোবাসার ছাপে ভরিয়ে দিতে। বিদায়বেলায় তিনি বলেছেন, সবাই যাতে তার জন্য দোয়া করেন। আর তিনি যেন বাড়িতে বউয়ের কাছে ঠিকঠাক টাকাপয়সা পাঠাইতে পারেন।

কবি বলেছেন, যেতে নাহি দেবো হায়, তবু যেতে দিতে হয়, তবু চলে যায়। 

বিদায় বরাপের রাজপুত্র, বরাপ সম্রাট কামরুজ্জামান কামরুজ্জামান। 

৯৮৩ পঠিত ... ১০:৩৪, জানুয়ারি ৩০, ২০২৪

আরও eআরকি

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

কৌতুক

রম্য

সঙবাদ

স্যাটায়ার


Top