ক্রিকেটের পাশাপাশি ফুটবলও খেলেন অস্ট্রেলিয়ার 'ডাবল' অলরাউন্ডার এলিস পেরি

৮৪ পঠিত ... ২০:১২, জুলাই ১৬, ২০১৯

ইংল্যান্ডে সদ্য শেষ হয়ে গেল ছেলেদের ক্রিকেট বিশ্বকাপ। ফাইনালে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ফেভারিট হিসেবে বিশ্বকাপ শুরু করা স্বাগতিকরা। বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হবার পথে সেমি ফাইনালে তারা উড়িয়ে দিয়েছে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী অস্ট্রেলিয়াকে। লিগ পর্বের ম্যাচে জিতলেও অনেকদিন ধরেই ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে অজি ছেলেরা খুব একটা সুবিধা করতে পারছে না। তবে ছেলেদের দল যেমনই খেলুক, অজি মেয়েদের দল বলছে মুদ্রার উল্টো পিঠের গল্প। আর সেই গল্পের সবচেয়ে বড় তারকা হচ্ছেন এলিস পেরি।

আসছে আগস্ট মাসে অজি ছেলেরা ইংল্যান্ডে শুরু করতে যাচ্ছে এক চ্যালেঞ্জিং অ্যাশেজ সিরিজ। উড়তে থাকা ইংল্যান্ডের সামনে ছেলেদের দল নিয়ে যখন অস্ট্রেলিয়ান সমর্থকরা দুশ্চিন্তাগ্রস্থ তখনই মেয়েদের দল ইংল্যান্ডে চলমান প্রমীলা অ্যাশেজে অস্ট্রেলিয়ান নারী দল ইংল্যান্ডকে উড়িয়েই দিচ্ছে যেন। মেয়েদের অ্যাশেজ হয় ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটেই। ৩টি ওডিআই, ১টি টেস্ট ও ৩টি টিটুয়েন্টি ম্যাচ। তৃতীয় ওয়ানডে ম্যাচে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়ার সামনে একটুও দাঁড়াতে পারেনি। ২৭০ রানের টার্গেটে মাঠে নেমে এলিস পেরির বোলিং তাণ্ডবে মাত্র ৭৫ রানে গুটিয়ে যায় ইংল্যান্ড। পেরি একাই ২২ রানে ৭ উইকেট নিয়ে ধ্বসিয়ে দিয়েছেন ইংলিশ ব্যাটিং লাইনআপকে।

দুর্দান্ত ফর্মে থাকা পেরি গত কয়েক বছর ধরেই চমৎকার খেলছেন। দুই বছর আগে দেশের মাটিতে অ্যাশজে টেস্টে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে করেছিলেন একটি ডাবল সেঞ্চুরি। আর শেষ ম্যাচের পারফরম্যান্সের পর ইংল্যান্ড নারী ক্রিকেট দলের কোচ মার্ক রবিনসন বলেন, ‘এলিস পেরির বোলিং তোপের সামনে কোনো জবাবই ছিল না ইংল্যান্ড দলের।’

জাতীয় দলে এলিস পেরির অভিষেক হয় ২০০৭ সালে ওডিআই দিয়ে। আর পরের বছর খেলেন প্রথম টেস্ট। ২০১৭ সালে মাত্র ৭টি টেস্ট খেলে অবসর নিয়ে নিলেও এখনো খেলে চলেছেন বাকি দুই ফরম্যাটে। ১০৬ ওয়ানডে খেলে উইকেট নিয়েছেন ১৪৫টি। আর ১০২ টিটুয়েন্টি ম্যাচে নিয়েছেন ঠিক ১০০ উইকেট। এসব তো গেল বোলিংয়ের কথা। ব্যাটিংটাও বেশ চমৎকার করেন পেরি। ৮৪ ওয়ানডে ইনিংসে ২৭ ফিফটি ও ১ সেঞ্চুরিতে ৫০ গড়ে প্রায় তিন হাজার রান করেছেন পেরি। ৫৮ টিটুয়েন্টি ইনিংসে ১০০’র বেশি স্ট্রাইক রেটে ৫৮ ইনিংসে করেছেন প্রায় ১ হাজার রান। 

মিডিয়াম পেস বোলিং অলরাউন্ডার হবার কারণে তাকে আজকাল অনেকে মেয়েদের ক্রিকেটের জ্যাক ক্যালিসও বলে থাকেন। তবে শুধু এটুকুই নয়, পেরি যেন সত্যিকারের একজন অলরাউন্ডার। ক্রিকেটের পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়ান জাতীয় ফুটবল দলের একজন খেলোয়াড়ও তিনি। ২০০৭ সালে মাত্র ১৬ বছর বয়সে ক্রিকেটের পাশাপাশি ফুটবল দলেও অভিষেক ঘটে তার। ২০১১ নারী ফুটবল বিশ্বকাপে খেলে প্রথম অস্ট্রেলিয়ান হিসেবে ফুটবল ও ক্রিকেটের দুই বিশ্বকাপে খেলার গৌরব অর্জন করেন। 

ক্রিকেটের এই অলরাউন্ডার ফুটবল খেলেন ডিফেন্ডার হিসেবে। ২৮ বছর বয়সী পেরি ফুটবলটা এখন খুব একটা খেলেন না। ক্রিকেটেই দিয়ে যাচ্ছেন পুরো সময়টা। 

দুই বছর আগে করা সেই ডাবল সেঞ্চুরি ভিডিওতে দেখে নিতে পারেন-

৮৪ পঠিত ... ২০:১২, জুলাই ১৬, ২০১৯

আরও eআরকি

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

কৌতুক

রম্য

সঙবাদ

স্যাটায়ার


Top