নির্বাচন দেখলে নিজেকে ধরে রাখতে পারি না, মিছিলে ঢুকে যাই : একান্ত কাল্পনিক সাক্ষাৎকারে ফেরদৌস

৩৪০৯ পঠিত ... ২২:৪৯, জানুয়ারি ২১, ২০২০

পার্ট টাইম নায়ক, আধা-পার্ট টাইম হারপিক বিক্রেতা এবং ফুল টাইম নির্বাচনী প্রচারক ফেরদৌস আহমেদ আবারও এলেন আলোচনায়। অবশ্যই সিনেমার কারণে নয়, নির্বাচনী প্রচারণায় যোগ দেয়ার জন্যই। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে (ডিএনসিসি) আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থী আতিকুল ইসলামের ভোটের প্রচারে অংশ নিয়েছেন তিনি।

সাম্প্রতিক সময়ে সিনেমায় তাকে যতটা না দেখা গেছে, তার চেয়ে বেশি তিনি দৃশ্যমান ছিলেন নির্বাচনী প্রচারণায়। দেশে জাতীয় নির্বাচন কভার করে তিনি রপ্তানি হয়েছিলেন বহির্বিশ্বেও, ভারতের নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে নির্বাচনী প্রচারণার কারণে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ধমক খেয়ে দেশেও ফিরে এসেছিলেন। আন্তর্জাতিক বাজারের চাহিদা মিটিয়ে এবার ঢাকার মেয়র নির্বাচনে আবারও ফর্মে ফিরলেন এই তারকা।

পেশায় অভিনেতা হলেও কেন তাকে নেতার প্রচারকের ভূমিকায় বেশি দেখা যায়? নির্বাচনের প্রতি কেন তার এতখানি টান? জানতে আমরা নির্বাচনী প্রচারক, থুক্কু, নায়ক ফেরদৌসের একটি ফেক আইডির সঙ্গে যোগাযোগ করি। প্রথমে মেসেজ সিন না করলেও 'আমরা নির্বাচনে দাঁড়াচ্ছি, প্রচারণা করে দেবেন ভাই' এমন প্রশ্ন করলে ফেরদৌস দ্রুত একটি লাভ ইমো দিয়ে রিপ্লাই করেন। সেই সঙ্গে শুরু হয় ফেরদৌসের ফেক আইডির সঙ্গে আমাদের এই ফেক সাক্ষাৎকার।

eআরকি: ফেরদৌস ভাই, কেমন চলছে?
ফেরদৌস: ভালোই। এই মৌসুমটাতে ভালোই থাকি।
: এই মৌসুম বলতে?
: মানে বুঝলেন না? এই যে ঢাকার রাস্তা ঢেকে গেছে নির্বাচনী পোস্টারে, চারিদিকে মাইকিং, প্রচারণা, ভোটপ্রার্থী। ভাবতেই ভালো লাগে। হঠাৎ বৃষ্টির মতো সুন্দর অনুভূতি...
: কিন্তু আপনার ক্যারিয়ারের কী অবস্থা?
: ভালো তো। এই যে আতিকুল ভাইয়ের প্রচারণা দিয়ে কামব্যাক করলাম...
: ইয়ে, মানে অভিনয় ক্যারিয়ারের কথা বলছিলাম...
: ও, হ্যাঁ... ওটাও তো করি আমি। আসলে ইদানিং এত ব্যস্ত, অভিনয়ের সময় কোথায়?
: ব্যস্ততা কি মেয়র নির্বাচন নিয়েই?
: শুধু তা হবে কেন। নির্বাচন এদেশে কম হয় বলে তো এমন না যে বহির্বিশ্বে হয় না। সামনেই আমেরিকার নির্বাচন। উগান্ডাতেও নির্বাচন হবে বলে শুনছি। সব মিলিয়ে খুবই টাফ টাইম যাচ্ছে।
: ইন্ডিয়ার নির্বাচনে আবার আপনাকে কবে দেখা যাবে?
: উমমম... (একটু বিব্রত) মাত্রই তো ওখানে হলো। তবে মনে হয় না ওদিকটায় আর যাবো। এই মুহূর্তে আমার লক্ষ্য নির্বাচনী প্রচারণার এই প্রতিভাকে ইউরোপ-আমেরিকা-আফ্রিকায় ছড়িয়ে দেয়া। তবে এশিয়াতেও যে কিছু করবো না, এমনটা না। উত্তর কোরিয়ায় শুনেছি নির্বাচন হতে পারে, কিম জং উন ভাই ফোন দিছিলেন। ফ্রি হলে যেতেও পারি। একজন ডেমোক্রেটিক লিডার হিসেবে উনি আমার খুবই পছন্দের।
: অভিনয়টা কি তাহলে নির্বাচনী প্রচারণাতেই চালিয়ে যাবেন?
: হা হা (লাজুক হাসি)... আসলে জানেন, নির্বাচন দেখলেই কেন যেন নিজেকে ধরে রাখতে পারি না, হুট করে মিছিলে ঢুকে যাই। নির্বাচন যেন আমার রক্তের প্রতিটি কণায় শিহরণ জাগায়। নির্বাচনী প্রচারণা করে জীবনে যতটা আনন্দ পেয়েছি... এমনটা কখনো কিছুতেই পাইনি।
: শুধু কি প্রচারণাই চালিয়ে যাবেন, নাকি নিজেও নির্বাচন করার ইচ্ছা আছে?
: হা হা (আবারও লাজুক হাসি)... মূলত প্রচারণাই আমার মূল প্যাশন। নিজের নির্বাচনে নিজেই প্রচারণা করার ব্যাপারটা কেমন না? যদি আমার মতো নির্বাচনী প্রচারণা ব্যাপারে প্যাশনেট কেউ আমার পক্ষে প্রচারণা করে, তাহলে কেন নয়? আপনারা করবেন?

এই পর্যায়ে ভয় পেয়ে আমরা মেসেজ আনসিন রেখেই দ্রুত আইডিটিকে ব্লক করে দেই।

 

আরও পড়ুন-

নির্বাচনী প্রচারণায় চিত্রনায়ক ফেরদৌসকে পাশে চায় মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প

বিশ্বব্যাপী তুমুল চাহিদা ফেরদৌসের, বেকার নায়কদের সামনে নবদিগন্ত উন্মোচন

৩৪০৯ পঠিত ... ২২:৪৯, জানুয়ারি ২১, ২০২০

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সঙবাদ

স্যাটায়ার


Top