প্রথম বিশ্বযুদ্ধ নিয়ে ১১টি মজার ফ্যাক্টস

৩৭০ পঠিত ... ১৬:১৩, জুলাই ২৮, ২০১৯

সাহিত্য, সিনেমা বা ডকুমেন্টারির কল্যাণে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ নিয়ে আমরা যতটা জানি, প্রথম বিশ্বযুদ্ধ যেন ততটাই নীরব আমাদের কাছে। অথচ ত্রিশটিরও বেশি দেশের মধ্যে চলা দ্বিপক্ষীয় পরাশক্তির বিশ্বযুদ্ধ চলেছিল চার বছরেরও বেশি সময় ধরে। বসনিয়ায় এক সার্বিয়ানের গুলিতে অস্ট্রিয়ান যুবরাজ নিহত হলে অস্ট্রিয়া যুদ্ধ ঘোসণা করে সার্বিয়ার বিরুদ্ধে। আশেপাশের দেশগুলো নিজ নিজ বন্ধুর সাথে হাত মিলিয়ে যুদ্ধ করতে থাকে। ১৯১৪ সালের ২৮ জুলাই শুরু হয়ে বিশ্বযুদ্ধ শেষ হয়েছিল ১৯১৮ সালের ১১ নভেম্বর এসে। ফলাফল, বেশ অনেকগুলো সাম্রাজ্যের পতন হয়, স্বাধীন হয় অনেকগুলো দেশ। এসব স্বাধীন দেশগুলো আবার যেয়ে পড়ে নতুন উপনিবেশের থাবায়। পরবর্তী সময়ে পৃথিবীর ইতিহাসের ঘটনাপ্রবাহ অনেকাংশেই প্রভাবিত এই বিশ্বযুদ্ধ দিয়ে।

ভয়ংকর এই দীর্ঘ সময়ের ফাঁকে ফাঁকেও ঘটেছে অবিশ্বাসে কপাল কুঁচকে ফেলার মত কিছু ঘটনা, যা মজারও বটে। তেমনই কিছু ঘটনা আজ থাকছে eআরকির পাঠকদের জন্য। 

 

 

১# জার্মান কেন্দ্রীয় শক্তিকে নাস্তানাবুদ করার জন্য এক দুর্দান্ত ফন্দী এঁটেছিল তৎকালীন ফরাসীরা। জার্মান সৈন্যদের বোকা বানাতে ফ্রান্স তাদের রাজধানীর পাশেই নির্মাণ করেছিল একটি ‘নকল’ প্যারিস শহর।

২# প্রথম বিশ্বযুদ্ধে নিহত হয়েছিল প্রায় ১ কোটি ৮০ লাখ মানুষ, আর হতাহতের সংখ্যা পৌঁছেছিল ৩ কোটির কাছাকাছি। আহত যোদ্ধাদের শরীর বিকৃত হয়ে গিয়েছিল স্প্লিন্টারের আঘাতে। তাদের সারিয়ে তোলার জন্যই ইতিহাসে প্রথমবারের মতো প্লাস্টিক সার্জারি করা শুরু হয়।

 

৩# হাঙ্গেরিয়ান যোদ্ধা পল কার্ন গুলি খেয়েছিলেন তার মস্তিষ্কের সম্মুখভাগে, দৈবক্রমে সে যাত্রায় বেঁচে গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু মস্তিষ্কের ফ্রন্টাল লোব নষ্ট হয়ে যাওয়ায় তিনি তার বাকি চল্লিশ বছর এক পলকের জন্যও না ঘুমিয়ে বেঁচে ছিলেন, যেখানে টানা এগারো দিনের বেশি মানুষ না ঘুমিয়ে সাধারণত বেঁচে থাকতে পারে না 

৪# জার্মান সৈনিকদের হাতে গুলি খেয়েও একটি কবুতরের কল্যাণে বেঁচে গিয়েছিল ১৯৮ জন মার্কিন সেনার প্রাণ! কবুতরটি গুলি খেয়ে এক পা হারালেও ঠিকই সতর্কবাণী পৌঁছে দিয়েছিল তাদের হেডকোয়ার্টারে। মরে গিয়েও কবুতরটি এখনো সংরক্ষিত আছে ওয়াশিংটনের স্মিথসোনিয়ান জাদুঘরে।

 

৫# দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের মূল হোতা ও খলনায়ক আডলফ হিটলার প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ছিলেন একজন ল্যান্স করপোরাল। সে সময় তার ছিল দশাসই পালোয়ানি গোঁফ সমাহার। ‘গ্যাস মাস্ক পরার সুবিধার জন্য তাকে বলা হয়েছিল এই গোঁফ ছেঁটে হিটলারের আইকনিক ‘টুথব্রাশ’ আকৃতির গোঁফ রাখতে। 

৬# প্রথম বিশ্বযুদ্ধে সব মিলিয়ে খরচ হয়েছে আকাশচুম্বী, রীতিমত ভিড়মি খাওয়ার মত- ১৮ হাজার ৫০০ কোটি ইউএস ডলার! সেসময়ের মুদ্রাস্ফীতি হিসেব করলে এই অঙ্ক ছাড়াবে লক্ষ কোটির মাত্রা।

৭#  ১২ বছর বয়সে স্কুলের গণ্ডি পেরিয়ে খেলাধূলা আর গল্পের বই পড়া ছাড়া একজন সাধারণ কিশোর এর চেয়ে বেশি কিছু করে না। কিন্তু প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সবচেয়ে কনিষ্ঠ যোদ্ধা ছিল ব্রিটেনের সিডনি লুইস, যার বয়স ছিল মাত্র ১২ বছর! আরও অনেক কিশোরের মত বয়স চুরি করে সেনাবাহিনীতে ঢুকেছিল সে।

৮# ক্ষতিকারক ‘মাদকদ্রব্য’ হিসেবে পরিচিত হিরোইন আবিষ্কার করেছিল ‘বায়ের’ নামের একটি ওষুধ কোম্পানি, যেটি কিনা বিশ্বযুদ্ধে ব্যবহৃত হত কাশির ওষুধ হিসেবে।

৯# প্রথম বিশ্বযুদ্ধে রাবারের প্রয়োজনীয়তা এত বেশি ছিল যে, দেশে দেশে দেখা দেয় রাবারের ভয়ঙ্কর সংকট। এমন অবস্থায় জার্মানিতে সাইকেলের টায়ার বানানোর জন্য এক ফোঁটা রাবারও অবশিষ্ট ছিল না। উপায় না দেখে জার্মানিতে তখন শুরু হয় লোহার স্প্রিং দিয়ে সাইকেলের টায়ার বানানোর চল।

 

১০# শার্লক হোমসের স্রষ্টা আর্থার কোনান ডয়েল সে সময় প্রচুর চেষ্টা করেছিলেন যুদ্ধে নাম লেখানোর জন্য। ৫৫ বছর বয়সে তিনি তার যোগ্যতা হিসেবে দেখিয়েছিলেন, ‘আমি অনেক শক্তিশালী, এবং আমার আওয়াজ দূর দূরান্ত ছাড়িয়ে শোনা যায়।’

১১# যুদ্ধক্ষেত্রের বাইরেও মার্কিন সৈন্যদের লড়তে হয়েছে নিজেদের যৌন চাহিদার বিরুদ্ধে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ‘গর্ভনিরোধ বিরোধী’ আইন চালু থাকায় নিষিদ্ধ ছিল কনডমের ব্যবহার, যার কারণে বেশিরভাগ সৈন্যের দেখা দিয়েছিল যৌনতা সংক্রামক বিভিন্ন রোগ-বালাই।

৩৭০ পঠিত ... ১৬:১৩, জুলাই ২৮, ২০১৯

আরও eআরকি

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

কৌতুক

রম্য

সঙবাদ

স্যাটায়ার


Top