স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে চালু হয়েছে 'ওয়ার্ক ফ্রম এনিহোয়ার'

৬৭১ পঠিত ... ১৪:০১, জুন ২৬, ২০২০

[eআরকি একটি স্যাটায়ার ওয়েবসাইট। এখানে প্রকাশিত যেকোন খবর বিশ্বাস তো দূরের কথা, অবিশ্বাসও করবেন না।]

'ওয়ার্ক ফ্রম হোম'-এর একঘেঁয়েমি কাটাতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় একটি চরম যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মানসিক স্বাস্থ্যের কথা ভেবে এই হার্টথ্রব মিনিস্ট্রিতে এবার চালু হয়েছে ওয়ার্ক 'ফ্রম এনিহোয়ার'। আর এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করার মাধ্যমে এখন তারা যেখানে ইচ্ছা বসে অফিসের কাজ করতে পারবেন।

নতুন এই উদ্যোগের উদ্বোধন করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, 'আমি যেখানে বসব সেখানেই আমার অফিস'। (সূত্র: সময় নিউজ)

পরবর্তীতে তার ফেসবুকে নক দেয়া হলে তিনি একটি ফেক আইডি দিয়ে বলেন, 'দেখুন, এতদিন ছিলো ওয়ার্ক ফ্রম হোম। কিন্তু টার্মটায় এখন কোনো পিপিপি নেই। কারণ মানুষ এখন ছাদে বসেও অফিস করে, এমনকি গ্রিন জোনের লোকজন চায়ের দোকানে বসেও অফিস করতে পারে। এজন্যই আমাদের এই নতুন সিদ্ধান্ত।'

মানুষ চাঁদে কিংবা মঙ্গল গ্রহে বসেও অফিস করতে পারবে, এমনটা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, 'এটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। আপনি অর্নবের গানে শুনে থাকবেন, সে যে বসে আছে একা একা, তার স্বপ্নের কারখানা চলছে। অর্থাৎ লোকটা কারখানার মালিক। মন খারাপ হওয়ায় সে একা বসে আছে। কিন্তু তার কাজ থেমে নেই। তার কারখানা চলছে। অফিস চলছে।'

অন্যান্য মন্ত্রণালয়েরও উচিত ওয়ার্ক ফ্রম এনিহোয়ার চালু করা, এমনটা জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেন, 'অনেকেই দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উপর আস্থা হারিয়ে ইউরোপ, কানাডায় চলে যাচ্ছেন। তারাও যেন সেখানে বসে অফিস করতে পারেন সে ব্যাপারেও আমাদের ভাবতে হবে। দেশের উন্নতির জন্য আমাদের অফিস ব্যাপারটাকে সহজ করতে হবে।'

অফিসকে সর্বস্তরের মানুষের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দিতে চাই, এই আশাবাদ ব্যক্ত করে স্বাস্থ্য মন্ত্রী বলেন, 'ওয়ার্ক ফ্রম এনিহোয়ার অচিরেই আন্তর্জাতিক মহলের দৃষ্টি কাড়বে। এটা লুফে নেবে সবাই।' নতুন এই থিওরির জন্য জাতীয় ও আন্তর্জারিক স্বীকৃতি পেলে ভালোই লাগবে, এমনটাও জানিয়েছেন তিনি।

৬৭১ পঠিত ... ১৪:০১, জুন ২৬, ২০২০

Top