প্রেমিক-প্রেমিকা বিষয়ক দশটি 'হৃদয় কাঁপানো' কৌতুক

১৭৩৯ পঠিত ... ২০:০০, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২২

Love-jokes

১#

প্রেমিক: বর্ষা, দারুন একটা ছবি এসেছে। হাউস ফুল যাচ্ছে। তিনটা অ্যাডভান্স টিকিট নিয়ে এসেছি।

বর্ষা: তিনটা কেন? আমরা তো মাত্র দুইজন।

প্রেমিক: টিকিট তো আমাদের জন্য আনিনি, এনেছি তোমার বাবা, মা, ভাই-এর জন্য। তারা সিনেমা দেখতে চলে গেলেই আমি আসবো।

 

২#

প্রেমিক প্রেমিকা হোটেলে বসে খাচ্ছে। প্রচুর খাবারের অর্ডার দেয়া হয়েছে।

প্রেমিক: তা হলে তুমি আমাকে বিয়ে করবে না বলে ঠিক করেছ?

প্রেমিকা: হ্যা, আমি তোমাকে বিয়ে করতে পারব না।

প্রেমিক: এই বেয়ারা, আমাদের দুইজনের দুইটা আলাদা বিল নিয়ে আসো।

 

৩#

প্রেমিক: তুমি যখন আমাকে বিয়েই করবে না তখন আমার চিঠিগুলো ফেরত দাও।

প্রেমিকা: চিঠিগুলো আমি পুড়িয়ে ফেলব।

প্রেমিক: না, না, ওগুলো  লিখতে আমার অনেক কষ্ট হয়েছে। দ্বিতীয়বার আর কষ্ট করতে পারব না।

 

৪#

প্রেমিকা: আজকের এই ফেব্রুয়ারিতে যেমন ভালবাসছো, বছরের শেষেও এমনি ভালবাসবে তো?

প্রেমিক: নিশ্চয়ই! ফেব্রুয়ারির চেয়ে ডিসেম্বরে বেশি ভালবাসব। বিশ্বাস না হয় ক্যালেন্ডার দেখো।

 

৫#

প্রেমিক প্রেমিকা একটা হোটেলে বসে আছে। বেয়ারা এলো অর্ডার নিতে। প্রেমিক প্রেমিকাকে বললো, ‘কী অর্ডার দেবে দাও।’

: আমার এক কাপ কফি হলেই চলবে। তোমার জন্য একটা অ্যাম্বুল্যান্স অর্ডার দাও।

: অ্যাম্বুল্যান্স কেন?

: ওই দেখো আমার স্বামী এদিকেই আসছে।

 

৬#

 প্রেমিক প্রেমিকা এক হোটেলে বসে খাবার খেলো। খাওয়ার পর হোটেলের বেয়ারা তাদের হাত ধুইয়ে দিল। তারপর একটা কোট নামিয়ে এনে প্রেমিককে পরিয়ে দিলো। প্রেমিক খুশি হয়ে বেয়ারাকে ৫০ টাকা বকশিশ দিয়ে হোটেল থেকে বেরিয়ে এল।

প্রেমিকা: তুমি ওই বেয়ারাকে এতো টাকা বকশিশ দিলে কেন?

প্রেমিক: কেন ৫০ টাকায় এই কোটটা কেনায় আমি কি ঠকে গেছি?

 

৭#

 প্রেমিক: শিকারের সময় এমন অবস্থা হয়েছিল যে, হয় বাঘ মরবে আমার হাতে না হয় আমি মরব বাঘের হাতে।

প্রেমিকা: বাঘ মরে ভালোই হয়েছে। তোমার গায়ের চামড়া তো আর কোন কাজে আসত না।

 

৮#

প্রেমিক প্রেমিকা বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়ে কাজী অফিসে যাচ্ছিল। পথে অ্যাক্সিডেন্টে তারা মারা গেল।

বেহেশতে প্রবেশ করার সময় প্রেমিক দারোয়ানকে বলল, ‘আচ্ছা ভিতরে গেলে আমরা বিয়ে করতে পারব তো?’  

দারোয়ান বলল, ‘তোমরা বসো, আমি ভিতর থেকে জেনে আসি।’

দারোয়ান ফিরে এল ছয় মাস পর। বললো, ‘হ্যাঁ তোমরা বিয়ে করতে পারবে।’

প্রেমিকা তখন জানতে চাইলো, ‘কিছুদিন পর আমাদের যদি ভালো না লাগে তা হলে আমরা ডিভোর্স করতে পারব তো?’

দারোয়ান বললো, ‘এক কাজী খুঁজতেই লাগল ছয় মাস! উকিলকে খুঁজে পেতে কত মাস লাগবে তার কি ঠিক আছে?’

 

৯#

প্রেমিক: জানো, এই যে অন্ধকার টানেলটা আমরা এইমাত্র পার করে এলাম, এটা দুই মাইল লম্বা আর এটা বানাতে খরচ পরেছে প্রায় দশ কোটি টাকা।

প্রেমিকা: (অবিন্যস্ত পোশাক ঠিক করতে করতে) হুঁ খরচটা স্বার্থক হয়েছে বলে মনে হচ্ছে।

 

১০#

প্রিয়তম, আমি যতটা ভালবাসি মজনু লাইলীকে বা ফরহাদ শিরিকে এতটা ভালোবাসেনি।

: তবে আমরা তো ইচ্ছে করলেই বিয়ে করে ফেলতে পারি।

: খবরদার প্রসঙ্গ বদলাবে না! আমি তোমাকে প্রেমের কথা বলছি, এর ভিতরে বিয়ের কথা আসে কী করে?

১৭৩৯ পঠিত ... ২০:০০, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২২

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top