যে ১০টি কারণে নিউজিল্যান্ড দেশটি আপনার মাথা ঘুরিয়ে দেবে

৬৮৩ পঠিত ... ১৯:১৫, জানুয়ারি ১০, ২০২২

Newzeland-thumb




বলা হয়ে থাকে, পৃথিবীতে মানুষের ছোঁয়া পাওয়া সর্বশেষ দেশ হচ্ছে নিউজিল্যান্ড। আমাদের প্রতি বছর এসএসসি পরীক্ষা দেওয়া শিক্ষার্থী সংখ্যা আর দেশটির জনসংখ্যা যেন সমান। তবে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের দিক থেকে নিউজিল্যান্ডকে হারানো আবার বেশ কঠিন। দেশটিকে নিয়ে খুঁজলে পাওয়া যায় নানা অদ্ভুত আর মজার সব তথ্য। নিউজিল্যান্ড নিয়ে তেমনি কিছু মাথা ঘুরিয়ে দেওয়া ফ্যাক্ট দেওয়া হল পাঠকদের জন্য।

 

 

বিশ্বের দুর্নীতিপূর্ণ দেশের তালিকায় নিউজিল্যান্ড সবার শেষে। ‘করাপশন পার্সেপশন ইনডেক্স’ অনুসারে নিউজিল্যান্ড সবচেয়ে দুর্নীতিহীন এক দেশ। এর সঙ্গে জেনে রাখা ভালো যে, দুর্নীতির সঙ্গে সঙ্গে নিউজিল্যান্ড দেশটিতে কোনো সাপ-ও নেই! 

 

বিখ্যাত ‘লর্ড অব দ্য রিংস’ সিনেমা ট্রিলজির মাত্র একটি দৃশ্য ছাড়া আর সকল দৃশ্য ধারণ করা হয়েছিল নিউজিল্যান্ডে। তাই একে হোম অব লর্ড অব দ্য রিংস-ও বলা হয়। এছাড়াও ২০১২ সালে নিউজল্যান্ডে প্রথমবারের মত এলভিশ (Elvish) ভাষায় আবহাওয়ার সংবাদ পড়া হয়, যা লর্ড অব দ্য রিংস থেকেই এসেছে! 

 

নিউজিল্যান্ডই প্রথম দেশ যেখানে নারীদের ভোটাধিকার দেওয়া হয়, ১৮৯৩ সালে। 

 

নিউজিল্যান্ড দেশটিতে মাত্র ৫% মানুষ রয়েছে। নিউজিল্যান্ড একমাত্র দেশ যেখানে মানুষের চাইতে প্রাণী বা জন্তুদের সংখ্যা বেশি। এমনকি এক পরিসংখ্যান অনুযায়ী, নিউজিল্যান্ড হল প্রতি একজন মানুষের বিপরীতে ১০টি ভেড়ার বাসস্থান।   

 

নিউজিল্যান্ডই একমাত্র দেশ যেখানে রয়েছে একজন ‘ন্যাশনাল উইজার্ড’ বা জাদুকর। ৮০’র দশকে এক জাদুকরের জাদুতে মুগ্ধ হয়ে গিয়েছিল নিউজিল্যান্ডবাসী। ব্যস, দেশটির সরকার সেই জাদুকরকে বানিয়ে দেয় ‘উইজার্ড অব নিউজিল্যান্ড’। প্রতি বছর তাকে সরকার থেকে ১৬,০০০ ডলার বেতন দেওয়া হতো।  

 

২০০৬ সালে নিউজিল্যান্ডে রাণী, গভর্নর জেনারেল, প্রধানমন্ত্রী, হাউজ অব রিপ্রেসেন্টেটিভের স্পিকার এবং প্রধান বিচারপতি সকলে ছিলেন নারী। নিউজল্যান্ডই একমাত্র দেশ যেখানে একই সময়ে, একইসাথে দেশের সবচেয়ে উঁচু পদগুলোর দখলে ছিলেন দেশটির নারী সদস্যরা। 

 

ইংরেজির পাশাপাশি নিউজিল্যান্ডের আরো দু’টি রাষ্ট্রভাষা রয়েছে। একটি হল সাইন ল্যাঙ্গুয়েজ এবং অন্য ভাষাটি হলো সেদেশের আদি নিবাসীদের ‘মাওরি’ ভাষা। 

 

করোনাভাইরাসে যখন পুরো বিশ্ব নাকাল, তখন নিজেকে প্রথম ‘করোনা ফ্রি’ রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণা দেয় নিউজিল্যান্ড। 

 

#

মন্ত্রী-মহোদয়গণ সচরাচর হন আগাগোড়া গুরুগম্ভীর আবার অনেকে হন চতুর-চালাক, অনেকে মন্দ, কেউ আবার ভুলভাল কথা বলে ফেলা বোকার হদ্দ। কিন্তু নিউজিল্যান্ডের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আর্ডেন ছিলেন একজন ডিজে! তাও আবার যে-সে ডিজে নন, ছিলেন রীতিমতো বড় বড় কিছু শো-এর ডিজে। 

 

নিউজিল্যান্ডে মানুষের চেয়ে যেমন পশু-পাখি বেশি, তেমনি মাত্র ৪০ লাখ মানুষের জন্য দেশটিতে রয়েছে ২৫ লাখ গাড়ি। দেশটিতে বুড়ো থেকে শিশু সকলের জন্য রয়েছে গাড়ি।






৬৮৩ পঠিত ... ১৯:১৫, জানুয়ারি ১০, ২০২২

আরও eআরকি

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

কৌতুক

রম্য

সঙবাদ

স্যাটায়ার


Top