হীরক রাজার দেশে, অনেকদিন পর এসে

১২৩৭ পঠিত ... ১৪:২২, জুলাই ১৪, ২০২২

Herok-rajar-deshe

 

রাজামশায়: কী গবেষক, কতদিন তোমার দেখা নাই

কোথায় ছিলে?

 

গবেষক: চমকে গেলো পিলে

ছিলাম কোঠায়-চিলে।

আপনিই তো বলেছিলেন, তোমাকে আর লাগবে না

তাইতো লুকিয়ে ছিলাম, আবার দেখুন, না ডেকেও হলো না!

 

রাজামশায়: ডেকেছি কি সাধে! মহাসড়কের কি খবর?

এই ঈদে জ্যাম-ট্যাম ছিল নাকি?

 

গবেষক: নাহ নাহ কীযে বলেন, ওসব চোখের ফাঁকি!

জ্যাম তো দেশে একটাই আছে, পাউরুটি দিয়ে খায় যেটা!

লোকজন বোধহয় মাখিয়ে ফেলেছে ওটার সাথে এটা!

 

রাজামশায়: কিন্তু সবাই যে বলছে কারো লেগেছে চব্বিশ ঘণ্টা?

 

গবেষক: এসব শুনে ভার হয়ে যায় মনটা।  

বোধহয় চারপাশের উন্নয়ন দেখতে দেখতে গিয়ে তাই লেগেছে সময়

এইসব ফালতু জিনিস নিয়ে মন খারাপ করা আপনার কি সয়?

ঢোল পিঠিয়ে বলে দেবো,

কোথাও কোনো জ্যাম ছিল না, রাস্তা ছিল ফাঁকা!

এরপরও কেউ জ্যাম বললে, শুধু আঙুলটা করবো বাঁকা!

 

রাজামশায়: আহা গবেষক বাঁচালে!

তোমার মতো লোক চারপাশে এতো রাখি কেন জানো?

 

গবেষক: কেন?

 

রাজামশায়: দুখের মাঝেও সুখের খবর তোমরাই তো আনো।

 

গবেষক: এটাই তো আমাদের কাজ!

এইসব কাজে আমাদের নাই কোনো লাজ।

 

রাজামশায়: তা বলো আর কী খবর চারপাশে?

লোকজন কি আর আগের মতো ভালো বাসে?

 

গবেষক: না বেসে উপায় কি? বাসবে ভালো কাকে?

অন্য কোথাও প্রেম হলে মগজ ধোলাই দিবো না তাকে!

 

রাজামশায়: আহা! শান্তি পেলাম শুনে!

কত চাও নিয়ে যাও গুনে!

 

গবেষক: গুনধর রাজার কাছ থেকে আমি কি আর নেবো গুনে!

যা কিছু ছিল সবই তো নিয়ে গেছে আপনার গুনধর ছেলেরা টেনে টুনে!

 

রাজামশায়: কী বলছো তুমি, হঠাৎ কেনো তোমার মতিভ্রম

বড় অন্যায় কথা বলছো তুমি, এ অপরাধ চরম!

 

গবেষক: ভুল যদি বলে থাকি মাফ করবেন জাঁহাপনা

দুধ-কলা দিয়ে সাপ পুষলে একদিন ঠিকই তুলবে ফনা!

 

রাজামশায়: কী নিয়ে বলছো, কী ঘুরছে তোমার মাথায়?

ওসব প্যাঁচঘোচ আমার সয় না, যা বলবে সরাসরি বলো তাই!

 

গবেষক: আমার কোনো দোষ নেই, লোকজন বলছে, আমি শুধু শুনে যাই।

উন্নয়নের খরচটা নাকি পড়েছে একটু বেশি,

তাই লোকজন একটু বেজার একটু অখুশি!

 

রাজামশায়: উন্নয়ন যে হয়েছে তাই তো বেশি!

 

গবেষক: আমিও তো তাই কই আর হাসি,

উন্নয়ন হয়েছে তাতেই থাকো খুশি!

 

রাজামশায়: উন্নয়ন হয়েছে সেটা নিয়ে থাক,

খরচ নিয়ে কেনো এত মাথাব্যথা?

পোলাও দিয়েছি পোলাও খা,

রান্না নিয়ে কেনো এত কথা?

কি গবেষক ঠিক কিনা?

 

গবেষক: ঠিক ঠিক!

রাজার কথার বেঠিক হয় নাকি আবার!

যা বলবেন তাই সই,

পদ্মা সেতু হয়েছে সেটা নিয়ে থাক

হোক কলরব হোক হৈ চৈ!

 

রাজামশায়: তা পদ্মসেতুর নতুন কোনো খবর আছে?

 

গবেষক: যে অশিক্ষিত জাতি তৈরি করেছেন, তাতে খবর না থাকার কি আছে?

প্রতিদিনই খবর হচ্ছে।

বার্থ ডে কেক কাটা হয়েছে, বিয়েবার্ষিকী হয়েছে, নামায হয়েছ, হয়েছে সেলফি

প্রথমে হিস্যু নিয়ে ইস্যু হলো সেদিন ছোটো বাচ্চাটার হলো হাগা!

আমিও বলি, আগা তোরা, দেশটা নিয়ে আগা!

এমন কিউট জাতিকে আর কে ঠেকাবে কার আছে সাধ্য,

পৃথিবীর সবকিছু ছাপিয়ে নাম্বার ওয়ান হতে আমরাতো তাই বাধ্য।

 

রাজামশায়: আহা! মনটা ভরে গেলো!

জাতির জন্য সেতু বানালাম হয়ে গেলো কমিউনিটি সেন্টার!

গণতন্ত্রে এমন জাতিইতো চাই, তাহলে আজকের মতো বিদায়, দিলাম এন্টার।

১২৩৭ পঠিত ... ১৪:২২, জুলাই ১৪, ২০২২

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি


Top