বাংলাদেশে চালু হচ্ছে পুলিশ ঋণ

২৪১ পঠিত ... ১৭:১২, জুন ০৩, ২০২৪

25 (16)

যশোরের অভয়নগর উপজেলায় পুলিশ হেফাজতে এক নারীর মৃত্যুর হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। পরিবারের অভিযোগ, পুলিশ তাকে ইয়াবা দিয়ে আটকের পর দুই লাখ টাকা না পেয়ে নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করেছে।

ঘুষ চেয়ে না পেলে পুলিশের হাতে নির্যাতন ও মৃত্যুর ঘটনা প্রায়ই শোনা যায়। তবে এমন ঘটনা আর শোনা যাবে না বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সরকারের এক উচ্চপদস্থ নেতা। যশোরের ঘটনার পর নিজের ফেক আইডি থেকে এমনটা জানান তিনি। ঘুষ না পেয়ে খুনের এই ধরনের ঘটনার জন্য একটা পরিকল্পনাও শেয়ার করেন তিনি।

তিনি জানান, ঘুষ দিতে না পারলে যাতে পুলিশি নির্যাতনে আর কেউ মারা না যায় সেজন্য আমরা একটা পুলিশি ঋণের ব্যবস্থা করছি। হুট করে পুলিশ এসে ঘুষ চাইলে মানুষ যেন সাথে সাথে দিতে পারে সেজন্য এই ঋণ দ্রুততম সময়ের মধ্যে ভুক্তভোগীর কাছে হস্তান্তর করা হবে। এরপর তিনি তা পুলিশকে দিয়ে নির্যাতন ও খুন হওয়া ঠেকাবেন। 

সরকারের অন্য এক উচ্চপদস্ত নেতা ৮ তলা বিল্ডিং এর ছাদ থেকে ফেক আইডি দিয়ে বলেন, সাধারণত বড় লোক মানুষরা কোনো অভিযোগে গ্রেফতার হবার আগেই টাকা চালাচালি করে অপরাধ গোপন করে ফেলতে পারে। এমনকি অপরাধ করলেও তারা ঘুষের কারণে পার পেয়ে যেতে পারে। সমস্যাটা বাধে মধ্যবিত্ত ও নিম্ন বিত্ত মানুষের জন্য। অপরাধ করুক বা না করুক—পুলিশ বাসায় চাদা নিতে আসলেই তারা সাথে সাথে দুই চার লাখ টাকা দিতে পারে না। কিংবা সময় নিয়ে দিবে বলে মিষ্টিমুখ করিয়ে বিদায় ও দিতে পারে না। ফলে আমরা নির্যাতন ও হত্যার ঘটনা দেখি।

এমন ঘটনা এড়াতে এই ঋণ দ্রুততম সময়ের মধ্যে চালু হবে—এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে এই নেতা বলেন, একবার এই ঋণ চালু হলে পুলিশকে ঘুস দিতে না পারার কারণে আর কেউ মারা যাবে না। পুলিশ ও আরেকটু বেশি মানবতার পরিচয় দিতে পারবে।  এই ছোট্ট একটা ঋণ চালু হলে অচীরেই বাংলাদেশের নাম হয়ত সবচে সুখী মানুষের দেশ গুলোর পাশে শোভা পাবে। আর সরকারি টাকা সরকারি মানুষের কাছেই থাকবে। দেশের অর্থনৈতিক ক্ষয় ক্ষতি হবার সম্ভাবনা থাকবে না এতে করে।

২৪১ পঠিত ... ১৭:১২, জুন ০৩, ২০২৪

Top