চুল কাটাতে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে শিক্ষার্থীরা যাচ্ছেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে

১০৪২ পঠিত ... ১৫:৩৭, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২১

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরের রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে খুঁজে পাওয়া গেছে শিক্ষকতার এক অনন্য নজির। শিক্ষার্থীদের যেন বাড়তি টাকা-পয়সা খরচ না হয় এবং পড়ালেখার সময় নষ্ট না হয়, সেদিকে কড়া নজর রেখে পরীক্ষার হলে ঢোকার সময়েই ১৪ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দিয়েছেন ওই ইউনিভার্সিটির সহকারী প্রক্টর ফারহানা ইয়াসমিন বাতেন।

chul-katate-asche-chatro-chatri-Thumb

শিক্ষার্থীরা জানান, উনি কেচি হাতে পরীক্ষার হলের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন, এবং চুল কেটে শিক্ষার্থীদের হলের ভিতরে ঢুকিয়েছেন।

এই খবর সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পর থেকে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে শিক্ষার্থীরা রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের দিকে রওনা দিয়েছেন চুল কাটানোর জন্যে। আগে গেলে আগে পাইবেন, এ ধরনের একটি গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।

চুয়েট শিক্ষার্থী ইয়াসিন আমাদের সঙবাদদাতাকে জানান, 'চিটাগাং থেকে যাওয়া একটু খরচ সাপেক্ষ হলেও, এমন ছাত্রবান্ধব ম্যামের কাছে চুল কাটার জন্যে সবই কোরবান। আমার বন্ধুরাও রওনা দিয়েছে।'

সে সময় পাশ থেকে তার এক বন্ধু মাথার পরচুলা খুলে টাক দেখিয়ে বলেন, 'আমার মাথা টাক, তাও ম্যামের কাছে চুল কাটানোর জন্য পরচুলা লাগাইসি। চুল নাই তাতে কী, ম্যাম দরকার হইলে পরচুলা কাটবেন!'

chul-katate-aschen-rabindranath-Thumb

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একজন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জানান, 'বাসের টিকিট কাটা শেষ। আমি অবশ্য বেশি কাটাবো না, চুলের আগা কাটিয়েই চলে আসবো। তবে ম্যামের চুলে যে কালার করা সেটা করে দিলে ভালো লাগবে। ম্যাম কি চুলে কালারও করান? জানলে জানাবেন প্লিজ।'

এদিকে শাহজাদপুরের নাপিত সমিতি দফায় দফায় বিক্ষোভ করে সহকারী প্রক্টরের পদত্যাগের দাবি জানিয়েছেন। শিক্ষিত মানুষদের এভাবে খেটে খাওয়া নাপিতের পেটে লাথি মারার অধিকার নাই, এমনটা জানিয়ে তারা কেচি-চিরুনি নিয়ে মিছিলে বের হন।

এ ব্যাপারে ঐ সহকারী প্রক্টরের ফেইক হোয়াটসঅ্যাপে নক দিলে তিনি 'এখন ব্যস্ত, চুলা কাটাচ্ছি। অনেক লাইন' বলে ফোন রেখে দেন।

১০৪২ পঠিত ... ১৫:৩৭, সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২১

Top