হেফাজতের দিক থেকে মানুষের দৃষ্টি সরানোর জন্য বিল-মেলিন্ডার নাটক সাজিয়েছে সরকার

১২৪৩ পঠিত ... ১২:৩৭, মে ০৪, ২০২১

Bil-Melinda

দীর্ঘ সাতাশ বছর একসাথে থাকার পর বিবাহ বিচ্ছেদ হলো বিল গেটস ও মেলিন্ডা গেটসের। বৈশ্বিক আলোচনা সৃষ্টি করা এই ডিভোর্সকে হেফাজতের দিক মানুষের দৃষ্টি সরানোর জন্য সরকারের উচ্চমহলের এক গভীর ষড়যন্ত্র হিসেবে দেখছে অনেকে।

সম্প্রতি হেফাজতে ইসলামের বাংলাদেশের রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠা, হেফাজত নেতাকর্মীদেত আটকের পর দেশব্যাপী আন্দোলন নিয়ে সরকার বেশ চাপে আছে। ফেসবুকের আনাচে কানাচে হেফাজত ছাড়া কোন আলোচনা নেই। এমন পরিস্থিতিতে এমন বড় একটা ধামাকা ছাড়া সরকার কোনভাবেই পার পেত না বলে জানিয়েছেন এক অনলাইন পলিটিকাল এক্সপার্ট।

bill melinda gates

গেটস-মেলিন্ডার ডিভোর্স যে নাটক, সে বিষয়ে নিজের গুরুত্বপূর্ণ পর্যবেক্ষণ জানিয়েছেন এক ফেসবুক ইস্যু বিশেষজ্ঞ। তিনি বলেন, 'গেটস একটা ফেসবুক লাইভ করলো না, মেলিন্ডাও না। কেউ কাউকে গালাগালিও করলো না। মেলিন্ডার কোন বয়ফ্রেন্ডের সন্ধান পাওয়া গেল না। একটা ফোন কলও ফাঁস হইলো না। এভাবে ডিভোর্স কীভাবে হয়! এটা তো নাটক ছাড়া কিছুই না। গিয়া দেখেন, হয়তো ওরা সেপারেশনে আছে কিংবা করোনা বাধাইয়া আলাদা ঘুমাইতেছে আর সবাই নিউজ কইরা ফেলছে ওদের ডিভোর্স হইছে।'

নাটকের গন্ধ আছে দ্রুত ডিভোর্স নিয়েও। অন্তত কয়েক বছর সময় না নিয়ে কীভাবে এত দ্রুত ডিভোর্স হয়ে যায়? এমন প্রশ্ন রেখে একজন বলেন, 'দুজনের ঝগড়া হবে। মেলিন্ডা কিছুদিন বাড়ি থাকবে। বাবা-মা মেলিন্ডাকে বুঝায়ে আবার গেটসের কাছে পাঠাবে। পাশের বাসার ভাবি, মিউচুয়াল ফ্রেন্ডরা চেষ্টা করবে ডিভোর্স ঠেকানোর। বিচার সালিশ হবে। মেলিন্ডাকে বেধম পেটাবে। তারপর না ডিভোর্স! অন্তত বছর পাঁচেকের মামলা। হুট করে এক রাতে কীভাবে হয়ে যায়! এটা তো নাটকই।'

নাটক সাজালে আরো একটু শক্ত ও বিশ্বাসযোগ্য স্ক্রিপ্টে সাজানোর পরামর্শ দেন অনেকে। নিজেরা না পারলে কাজল আরেফিন অমিকে দিয়ে করানোর অনুরোধ করেন তারা।

 

১২৪৩ পঠিত ... ১২:৩৭, মে ০৪, ২০২১

Top