দীর্ঘদিন পর ক্যাম্পাসে ফিরে ভুল করে জুনিয়রকে সালাম: লজ্জায় মানসিক বিপর্যয়ে মমিন

৫৭১ পঠিত ... ১৫:৪৫, অক্টোবর ০৩, ২০২১

ঘটনাটি অক্সফোর্ডের। অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে সেকেন্ড ইয়ারে পড়েন করে মমিন। দীর্ঘদিন বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকার পর ক্যাম্পাসে এসে চিনতে না পেরে ভুলে ফার্স্ট ইয়ারের এক জুনিয়রকে সালাম দিয়ে দেয় সে৷ সালাম দেয়া পর্যন্ত ঘটনার সমাপ্তি ঘটলেও হয়তো বিষয়টি ধামাচাপা দেয়া যেত। কিন্তু বদমাশ জুনিয়রটা মমিনের সালাম নিয়ে তাকে 'কস কি মমিন' বলে পিঠ চাপড়ে দেওয়ার পাশাপাশি 'ছোটভাই কেমন আছিস' বলে সিগারেটও অফার করে বসে।

Junior-ke-salam

কিছুক্ষণ বাদেই মমিন ভুল বুঝতে পারেন। কিন্তু ততক্ষণেই যা হওয়ার হয়ে গেছে। নিজেকে কোনভাবেই শান্ত করতে না পেরে উক্ত জুনিয়রকে ৩০০ বার কান ধরে উঠবসে শান্তি দেওয়ার পাশাপাশি সালাম জপতে দেয় মমিন। তবে কিছুতেই সামলাতে পারছেন না নিজেকে। এমন জুনিয়রসুলভ কর্মকান্ডে হতাশা ও লজ্জায় মানসিক বিপর্যয়ে মমিন এখন দিশেহারা।

এদিকে এমন ভুলের জন্য মমিনের সদস্য পদ বাতিল করেছে বিশ্ববিদ্যালয় সিনিয়র সোসাইটি। সোসাইটির সভাপতি র‍্যাগ মাস্টার রায়হান বলেন, 'মমিন বিরাট বড় অপরাধ করছে৷ সিনিয়রকে সালাম না দেয়ার চেয়েও জুনিয়রকে সালাম দেয়া অনেক বড় অপরাধ৷ আমার তো মনে হয়, ওর ছাত্রত্বই বাতিল হওয়া উচিত।'

হতাশ মমিনকে অনেকে সান্ত্বনা দিলেও স্বাভাবিক হননি তিনি। অঝোরে কাঁদতে কাঁদতে মমিন বলেন, 'বন্ধুরা সান্ত্বনা দিয়ে বলছে যে, এক মুমিন আরেক মুমিনকে সালাম দিতেই পারে। এতে দোষের কিছু নেই৷ কিন্তু আমি বাথরুমে যেতেই শুনি একে অপরকে স্লামালিকুম বলে আমাকে নিয়ে হাসাহাসি করছে। লজ্জায় ওরা যাওয়ার আগ পর্যন্ত বাথরুম থেকে বের হই নাই ভাই।'

এ পর্যায়ে মমিন কাঁদতে কাঁদতে নাক ঝাড়তে আবারও বাথরুমে গেলে আমাদের প্রতিবেদকরা নিজেদের মধ্যে হাসাহাসি করেন।

এদিকে মমিনের সালাম পাওয়া জুনিয়র উঠবস করলেও মনে মনে আনন্দে ডগমগ করছে বলে জানায় তার বন্ধুরা। ঐ জুনিয়রের বেস্ট ফ্রেন্ড বলেন, '*দি* ভাই সারাটা জীবন আমার টাকায় বিড়ি খায়া আমারে আইসা বলে, আমারে স্যার ডাকবা! ক্লাসটা খুলুক, স্যার চিনাইতেছি ওরে।'

৫৭১ পঠিত ... ১৫:৪৫, অক্টোবর ০৩, ২০২১

Top