আর্জেন্টিনার পরাজয় হজম করতে দলে হিগুয়েইনকে চায় সমর্থকরা

১৩৫ পঠিত ... ১৯:২৪, জুন ১৬, ২০১৯

আরো একটি আন্তর্জাতিক আসর এবং আরো একবার আর্জেন্টিনার হতাশাজনক সূচনা। ২০১৮ বিশ্বকাপে নবাগত আইসল্যান্ডের সাথে ড্র করে যাত্রা শুরু করেছিলো মেসি বাহিনী, আর এবার ব্রাজিলে অনুষ্ঠিত কোপা আমেরিকার ৪৬তম আসরে দ্বিতীয়ার্ধের শেষ ভাগে ২ গোল খেয়ে কলম্বিয়ার কাছে হার দিয়ে সে ধারাবাহিকতা বজায় রাখলো তারা। কিন্তু পরাজয়ের পর অন্যরকম এক বিপদে পড়েছেন আর্জেন্টাইন সমর্থকরা। পরাজয়ের দোষ কার কাঁধে দিবেন, সে ব্যাপারে বিভ্রান্তিতে ভুগছেন তারা।

বরাবরই সব ম্যাচ হারার দায় নিজ দায়িত্বে নিজের কাঁধে তুলে নেয়া গঞ্জালো হিগুয়েইন যে এবার আর্জেন্টিনা স্কোয়াডেই নেই! ২০১৪ বিশ্বকাপ ফাইনালে অফসাইডে গোল, ২০১৫ কোপা আমেরিকার ফাইনালে পেনাল্টি মিস কিংবা ২০১৮ বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়ার সাথে টার্গেটে শূন্য শট, আর্জেন্টিনার সব বিখ্যাত পরাজয়ের অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিলেন তিনি। কিন্তু এবার হিগুয়েইন দলেই না থাকাতে আর্জেন্টিনা সমর্থকেরা পড়েছেন দারুণ বিপদে। এ অবস্থায় সমর্থকদের একাংশ অবিলম্বে হিগুয়েইনকে আর্জেন্টিনা দলে দেখতে চাইছেন৷ মাঠে না থাকলেও মোটিভেশনাল স্পিকার হিসাবে অন্ততপক্ষে তাকে স্টেডিয়ামে থাকতে দেয়া হোক, এমনটাই দাবী তাদের। প্রয়োজন হলে সমর্থকেরা চাঁদা তুলে হিগুয়েইনকে ব্রাজিলের টিকেট কিনে দিতেও রাজি।                 

এ ব্যাপারে জানতে আমরা eআরকি স্পেস স্টেশন থেকে ভিনগ্রহে যোগাযোগ করলে, স্পেসশিপ নিয়ন্ত্রক লিওনেল মেসি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘এতো কইরা বললাম, ওকে দলে নিতে। কিন্তু ওরে নিলই না! আমাদের কথা না হোক, বোর্ডের তো উচিত সাপোর্টারদের কথা চিন্তা করা!’ এই বিষয়ে এক আর্জেন্টাইন সমর্থক হতাশা ব্যক্ত করে বলেন, ‘একটা দলের সমর্থকদের অনেক চাপ থাকে। আর্জেন্টিনার সমর্থকদের প্রেশারটা আরও বেশি। তাদের জন্য প্রেশার রিলিজের সার্ভিসটা দিয়ে আসছিল হিগুয়েইন। কিন্তু এখন সে দলে না থাকায়, আমরা পড়ে গেছি বিপদে। না পারি দুষতে, না পারি সইতে।’

বি গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে খেলার চেষ্টা করছিলো আর্জেন্টিনা যার ফলে আক্রমণের সুযোগ পেয়েছিলো কলম্বিয়া। মেসির ফ্রি কিক, কিংবা গোলমুখে নেয়া শট, সবই ঠেকিয়ে দিচ্ছিলেন ডেভিড অসপিনা। প্রথমার্ধের শেষে তাই আর্জেন্টিনার জয়ের একটা আশংকা দেখা যাচ্ছিলো। সে আশংকা আরও ঘনীভূত হয় দ্বিতীয়ার্ধে আর্জেন্টিনার মুহুর্মুহু আক্রমণে। একইসাথে আর্জেন্টিনার জার্সি গায়ে স্ট্রাইকার সার্জিও আগুয়েরোও স্বভাববিরুদ্ধ দারুণ খেলছিলেন।

তবে সব আশংকা দূর করে দিয়ে ম্যাচের ৭১তম মিনিটে দুর্দান্ত এক গোল দিয়ে দিলেন কলম্বিয়ান ফরোয়ার্ড রজার মার্টিনেজ। ম্যাচের ১৪তম মিনিটেই ফরোয়ার্ড লুইস মুরিয়েলের বদলি হিসেবে মাঠে নেমেছিলেন তিনি।  অন্যদিকে আগুয়েরোর বদলি হিসেবে মাঠে নামলেন মাতিয়াস সুয়ারেজ। উরুগুয়ের লুইস সুয়ারেজের সাথে কোন আত্মীয়তার সম্পর্ক তার নেই তা প্রমাণ করতেই কিনা যারপরনাই জঘন্য খেললেন তিনি। আর ম্যাচের ৮৬ তম মিনিটে রাদামেল ফ্যালকাওয়ের বদলি হিসেবে খেলতে নামা ডুভান জাপাতা গোল দিয়ে আর্জেন্টিনার জয়ের সব আশংকা মিটিয়ে দেন, আর আর্জেন্টাইন সমর্থকদের ফেলে দেন বিপাকে৷ এ হারের জন্য তারা দোষারোপ করবে কাকে?  

১৩৫ পঠিত ... ১৯:২৪, জুন ১৬, ২০১৯

Top