কোয়ারেন্টাইন জীবনে মানসিক দৃঢ়তা ধরে রাখতে খালেদা জিয়ার ৫টি পরামর্শ

৯৯৬ পঠিত ... ২৩:৩৯, মার্চ ৩০, ২০২০

প্রায় দু বছর একরকম কোয়ারেন্টাইনেই কাটিয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। আর এবার সবাই যখন ঢুকলো কোয়ারেন্টাইনে, তখনই তাকে মুক্তি দেয়া হলো (কী অমানবিক!)। সে যাই হোক, নিজের সুদীর্ঘ 'কোয়ারেন্টাইন' জীবনের অভিজ্ঞতা থেকে খালেদা জিয়া আমাদের জানিয়েছেন কোয়ারেন্টাইন জীবনে মানসিক দৃঢ়তা ধরে রাখার উপায়। তিনি আমাদের সরাসরি না বললেও আমরা ঠিকই ফ্রি টাইমে অনেক ওভারথিংক করে টেলিপ্যাথির মাধ্যমে বুঝে নিয়েছি...

১. সবসময় আশাবাদী থাকতে হবে। বিশ্বাস করতে হবে যে এই বন্দি দশা কাটবেই। পরিস্থিতি যতই বিপক্ষে যাক, আশার কোনো আলো জ্বলুক না জ্বলুক, সবসময় বিশ্বাস রাখবেন মুক্তির মশাল জ্বলবেই। ঈদ পর্যন্ত সব ঠিক হয়ে যাবে, ঈদের পরেই আমরা বেরিয়ে পড়বো, শুরু হবে করোনার বিপক্ষে আন্দোলন।

২. দূরে থাকা আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে দেখা করার প্রয়োজন নেই বটে, কিন্তু আপনাকে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতে হবে। ধরুন, আপনার কোনো প্রিয়জন লন্ডন থাকে। প্রতিনিয়ত স্কাইপ কিংবা অন্য যেকোনো মাধ্যমে তার সঙ্গে কানেক্টেড থাকুক, আলাপ করুন, কথা বলুন। যদি নিজে না করতে পারেন, আপনার ক্লোজ মানুষজনের মাধ্যমে হলেও পারিবারিক যোগাযোগগুলো মেইনটেইন করুন।

৩. কম মেয়াদে শুরু হওয়া কোয়ারেন্টাইন হুট করে দীর্ঘও হয়ে যেতে পারে। এর উপর সরকার কিংবা কোনো ক্ষমতাসীনেরই হাত নেই। তাই সেজন্য মানসিক প্রস্তুতি রাখতে হবে। এক মাস কোয়ারেন্টাইনের পর যদি মেয়াদ বেড়ে আরও পাঁচ বছর, সরি, আরও এক মাস লকডাউনে চলে যায়, সেজন্যও থাকতে হবে প্রস্তুত!

৪. মাঝেমধ্যে হালকা মেকাপ করলে বোরিং ভাব কাটে। তবে সময়টা অর্থপূর্ণ করে তুলতে আইলাইনার দিয়ে মেকাপের বদলে হালকা আঁকিবুঁকিও করতে পারেন। আঁকার মতো কিছুই না পেলে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে (ভ্রু থাকলেও) ভ্রুর উপর দিয়ে কয়েকটা লাইন টেনে আঁকিবুঁকি করুন। এভাবে সময় কাটবে, ভ্রু আঁকাও হয়তো শিখে যাবেন।

৫. সুস্থ থাকতে হবে, সুস্বাস্থ্য ধরে রাখার চেষ্টাও করে যেতে হবে। বারবার অসুস্থ হয়ে পড়া যাবে না একেবারেই! জেল, সরি, কোয়ারেন্টিনে থাকা অবস্থায় যদি বারবার অসুস্থ হয়ে পড়েন, হাসপাতালে যাতায়াত করতে করতেই জীবন অর্ধেক শেষ হয়ে যাবে।

৯৯৬ পঠিত ... ২৩:৩৯, মার্চ ৩০, ২০২০

Top