করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে করোনাভাইরাসকে মাস্ক পরালো ফেনী জেলা বিএনপি

৪০৪ পঠিত ... ২২:৩৫, মার্চ ২১, ২০২০

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে বিশ্বব্যাপী নানান ধরণের সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থায় পিছিয়ে নেই আমরাও। সরকার থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ সবাই যে যার অবস্থান থেকে ঘুরাঘুরি করে, আতশবাজি ফাঁটিয়ে, জনসমাগম করে দোয়া ও শেফা মাহফিলের আয়োজন করে, থানকুনি পাতা খেয়ে, মাস্ক বিতরন করে করোনা ভাইরাসকে ঠেকিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছে। 

তবে গত ১৯ মার্চ ফেনী জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে সম্পূর্ণ নতুন ও অভিনব এক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া একটি ছবিতে দেখা যায়, ফেনী-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও ‘মাদার অফ কোয়ারেন্টাইন’ খ্যাত বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অধ্যাপক জয়নাল আবেদিন ভিপির নেতৃত্বে একদল নেতাকর্মী মাত্র একটি মাস্ক হাতে কাউকে পরিয়ে দেয়ার ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে আছেন (খবর: নতুন ফেনী ডটকম)।

এতগুলো মানুষ একটি মাত্র মাস্ক নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন কেন? কাকে পরাচ্ছেন? দেশের সংকটাপন্ন মুহূর্তে উনারা কি সবাই মিলে একটা মাস্কই পরছেন? নাকি মাস্ক পরিয়ে দিচ্ছেন অদৃশ্য কাউকে? নাকি সেকেন্ড হ্যান্ড মাস্ক বিক্রি করছেন?  এমন নানান প্রশ্ন জাগে eআরকি গবেষক দলের মনে। 

অবশেষে ছবির শরীরী ভাষা বিশ্লেষণ করে আমাদের গবেষক দল নিশ্চিত হয় যে, জয়নুল আবেদিনের নেতৃত্বে স্বয়ং করোনাভাইরাসকেই মাস্ক পরিয়ে দিচ্ছেন তারা। 

আমাদের এমন ভাবনার কথা জানিয়ে জয়নাল আবেদিনের ফেক ইমো একাউন্টে যোগাযোগ করা হলে আমাদের সাথে একমত পোষণ করেন তিনি। এছাড়াও তিনি আরও বলেন, ‘এটা আসলে সমস্যার শেকড় ধরে টান দেয়ার একটা প্রচেষ্টা। করোনাভাইরাস মানুষ থেকে মানুষে ছড়ায়। সেজন্য আমরা করোনাভাইরাসকেই মাস্ক পরিয়ে আটকে ফেলেছি। ও এবার মানুষের কাছেই আর আসতে পারবে না। ছড়ানো তো অনেক পরের বিষয়।’

এ পর্যায়ে হো হো হো করে হাসতে হাসতে তিনি আরও বলেন, ‘ব্যাটারতো হাত-পাও নাই! মাস্ক খুলতেও পারবে না! কী, কেমন দিলাম?’

করোনা সম্পর্কে বিএনপির প্রস্তুতি কী? এমন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ‘আমাদের আবার আলাদা প্রস্তুতির কী আছে! আমাদের সব নেতাকর্মী তো গত কয়েক বছর ধরেই হোম কোয়ারেন্টাইনে!’

তবে বিএনপির এমন উদ্যোগের সমালোচনা করেছেন মাস্ক ব্যবসায়ীরা। ফেনী জেলার জনৈক মাস্ক ব্যবসায়ী বলেন, ‘আমরা এতগুলা মাস্ক বানাইয়া রাইখা দিছি। এখন যদি এভাবে কেবল একটা মাস্কেই কাজ হয়ে যায় তাহলে আমাদের মাস্কের ব্যবসার কী হবে? এতদিন পর হোম কোয়ারেন্টাইন থেকে বের হয়ে আমগো পেটেই লাত্থিটা দেয়া লাগলো!’

ভাইরাস প্রতিরোধে মানব কোয়ারেন্টিন!?

তবে অন্য একটি ছবিতে (উপরে) দেখা যায়, তারা একজন ব্যক্তিকে ওই একই মাস্ক পরিয়ে দিচ্ছেন। এতে করে আরও ধারণা করা যায়, ভাইরাসকে শুধু মাস্ক পরানো হচ্ছে তা-ই নয়, ওই ব্যক্তিকে ওই মাস্ক আবার পরিয়ে করোনাভাইরাসকে ওই ব্যক্তির শরীরে কোয়ারেন্টিনে রাখা হচ্ছে!

৪০৪ পঠিত ... ২২:৩৫, মার্চ ২১, ২০২০

Top