যে ১০টি কারণে প্রেম করলে সাইক্লিস্টের সাথেই করবেন

৫৭৬১ পঠিত ... ২১:১৭, নভেম্বর ২১, ২০১৯

প্রেমে কেউ দেখে পড়ে, কেউ না দেখে। যদি না দেখে প্রেমে পড়েন, তাইলে কোনো কথা নাই। কিন্তু যদি চোখ খোলা রেখে প্রেমে পড়েন, তাহলে কিছু দেখতে হলে আগে দেখবেন ছেলে/মেয়েটা সাইকেল চালায় কিনা। প্রেমিক/প্রেমিকা হিসেবে একজন সাইক্লিস্টের উপ্রে কেউ নাই। কেন? এই দশটি যুক্তি পড়ুন এবং নিজেই ভাবুন!

১# সাইক্লিস্টরা ঢাকার জ্যামে বসে থাকা প্রেমিক/প্রেমিকা না। ঢাকার জ্যামকে পাত্তা না দিয়ে সঠিক সময়ে বা সঠিক সময়ের আগে ডেটিংয়ে পৌঁছানোর ব্যাপারে তারাই শীর্ষে, এতে তো কোন সন্দেহ নাই? তবে আরেকটা সুবিধা হলো, আপনি তাকে হুটহাট দেখা করতে আসতে বলতে পারবেন। কিংবা সে আপনার এলাকার আশেপাশে কোথাও আসলেই একবার আপনাকে দর্শন দিয়ে যাবেই!

২# সাইক্লিস্ট প্রেমিকার সাথে প্রেম করার একটা বিশেষ সুবিধা আছে। প্রেমিকদের একটি পরিসঙখ্যানে দেখা গেছে, সাইক্লিস্টরা সাঁজুগুজুতে খুব বেশি একটা টাইম নেয় না! চট করে একটা ট্রাউজার আর টি-শার্ট পরেই বের হয়ে যায় সাইকেল নিয়ে। শর্ট নোটিশে ডেটিংয়ের ক্ষেত্রে অন্যান্য প্রেমিকাদের চেয়ে সাইক্লিস্ট প্রেমিকারা এগিয়ে থাকবেই। একই বিষয়ে সাইক্লিস্ট প্রেমিকও লাভবান হবেন, যে কোন ক্যাজুয়াল ড্রেসেই প্রেমিকার সাথে দেখা করতে চলে আসা যাবে। কারণ আপনার সাইক্লিস্ট প্রেমিকা ক্যাজুয়াল ড্রেসের আরামটা বোঝে!

৩# প্রেমিক-প্রেমিকা দুজনই যদি সাইক্লিস্ট হন, তাহলে সবসময় একজনেরই দেখা করতে আসার প্যারা নেয়া লাগবে না। দুজনের মাঝামাঝি এলাকাতে একটা নির্দিষ্ট ডেটিং স্পট ফিক্সড করে রাখলে দুজনই সমান দূরত্ব অতিক্রম করা দেখা করতে পারবেন। ফলে কেউ কাউকে আর খোঁটা দেয়ার সুযোগ থাকবে না, ঝগড়া হওয়ার সম্ভাবনাও নেই।

৪# মাঝরাতে যদি হঠাৎ করে প্রেমিক/প্রেমিকাকে মনে পড়ে যায় তাহলে 'মাঝরাতে আমি তোমার কথা বলবো কাকে' গান শুনে বিরহে থাকা লাগবে না। প্রেমিক/প্রেমিকাকে জাস্ট একবার বললেই হবে। সাইকেল নিয়ে পঙ্খিরাজের মতো সে চলে আসবে। সে যদি খুব ঢঙ করে বলে 'তোমার কাছে যদি চলে যেতে পারতাম' তাহলেও তাকে আটকে ফেলা কত সহজ- 'চলে আসো তাইলে, তোমার তো সাইকেল আছে!'

৫# সাইক্লিস্টদের শারীরিকভাবে অন্যান্যদের চেয়ে বেশি ফিট হওয়ার কথা। নিয়মিত রোদে ভিজে বৃষ্টিতে পুড়ে সাইকেল চালানোয় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বেশি থাকে... জ্বর, সর্দি এদের কাছে ঘেঁষতেই পারে না। ফলে সাইক্লিস্টের সাথে প্রেম করলে আপনাকে রাতে মোবাইল ডাক্তারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়া লাগবে না, চুমু দিয়ে রোগও সারাতে হবে না। ফলে মোবাইলের মাইক্রোফোনও আর ঘনঘন নষ্ট হবে না...

৬# সাইক্লিস্টের সাথে প্রেম করলে নিজের টুকটাক কেনাকাটার জন্য আপনাকে সবসময় বাইরে যাওয়া লাগবে না। জাস্ট বলে দিবেন, 'তুমি অমুক এলাকার ওদিক দিয়ে গেলে তমুক জিনিসটা কিনে দিয়ে যাইয়ো তো... তোমার তো সাইকেল আছে...'

৭# সাইকেল চালাতে গিয়ে সাইক্লিস্টরা সবসময় সামনের দিকে ঝুঁকে থাকে। ঝুঁকে থাকতে থাকতে তারা বিনয়ী এবং নমনীয় হওয়ার শিক্ষা লাভ করে। ফলে আপনার সাইক্লিস্ট প্রেমিক/প্রেমিকা আপনার সাথে একান্ত বাধ্যগত মানুষের মতো ঝুঁকে থাকবে। একটু বুদ্ধি করে বিষয়টিকে আপনি বন্ধু মহলে আপনার ক্রেডিট বলেও চালিয়ে দিতে পারবেন।

৮# মেয়েরা শুনেন, সাইকেলের সামনে বসে প্রেমিকের মুখ আপনার চুলে গুঁজে দেয়া পোজে রোমান্টিক ছবি তোলার জন্য সাইক্লিস্ট প্রেমিক বেস্ট। আর আপনি যদি একটু প্রথা-বিরোধী হতে চান, তাহলে আপনি সাইক্লিস্ট প্রেমিকার সাইকেলের সামনে বসে পড়ুন। এরপর প্রেমিকার মুখ আপনার চুলে গুজে দেয়া পোজে ছবি তুলে ফেসবুকে আপলোড করে নিজেকে প্রথাবিরোধী হিসেবে উপস্থাপন করতে পারবেন। তবে সাইকেলের রডে বসার আগে অবশ্যই রডেকে আরামদায়ক কিছু দিয়ে মুড়িয়ে নিবেন। নইলে ব্যথা পাবেন।

৯# প্রেমিক/প্রেমিক দুজন সাইক্লিস্ট হলে ব্যাপারটা আরো জোস। কাপল ট্রিপের জন্য বিয়ে পর্যন্ত অপেক্ষা করা লাগবে না। দুজন সাইকেল নিয়ে বের হলেই কাপল ট্যুর। হোক না সেটা শুধুমাত্র মানিক মিয়া অ্যাভিনিউতে! ট্যুর তো!

১০# সাইক্লিস্ট প্রেমিক/প্রেমিকার সাথে ব্রেকাপও করতে পারবেন সহজে। 'তুমি আমার চেয়ে তোমার সাইকেলকে বেশি ভালোবাসো' এই অজুহাতে ব্রেকাপ করে ফেলা তুড়ির ব্যাপার। কারণ সে যদি জেনুইন সাইকেলপ্রেমী হয়, তাহলে ‘প্রেম আগে না সাইকেল আগে’ টাইপ হুমকির সামনে তার সাইকেল বেছে নেয়ার সম্ভাবনাই বেশি!

সতর্কতা-সাইক্লিস্ট প্রেমিক/প্রেমিকার পাশাপাশি যদি আপনার একটি জাস্টফ্রেন্ড থাকে, তাহলে একটু ঝামেলা হতে পারে। সাইক্লিস্টরা সাইকেল নিয়ে বেহুদা সারা শহর ঘোরার পাশাপাশি যখন তখন শহরের বাইরেও চলে যায়। আপনি জাস্টফ্রেন্ড নিয়ে ফার্মগেটের কোন চিপায় (সাইক্লিস্টরা শহরে চিপাচাপায় বেশি ঘুরাঘুরি করে) আইসক্রিম খেলে কিংবা কক্সবাজারে জাস্টফ্রেন্ডকে নিয়ে একটু গোসল করতে গেলেও আপনাকে আপনার সাইক্লিস্ট প্রেমিক/প্রেমিকা দেখে ফেলতে পারে।

৫৭৬১ পঠিত ... ২১:১৭, নভেম্বর ২১, ২০১৯

Top