বিশ্বের ধনী ৮ ড্রাইভার

২৩৮ পঠিত ... ১৭:৪৬, জুলাই ১০, ২০২৪

10

১#

হাইস্কুলে থাকতেই পড়াশোনা ছেড়ে দেন গ্রায়েম হার্ট নামের নিউজিল্যান্ডের এক কিশোর। এরপর গাড়ির মেকানিক হিসেবে কাজ করেছিলেন। জীবনধারণে চালিয়েছেন ট্রাকও। ব্লুমবার্গ বিলিয়নিয়ার ইনডেক্স অনুযায়ী, গ্রায়েম হার্টের ব্যক্তিগত সম্পত্তির পরিমাণ ৯.৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। তিনিই এখন নিউজিল্যান্ডের সেরা ধনী।

২#

মাইকেল শুমাখারের জন্ম ১৯৬৯ সালের ৩ জানুয়ারি, জার্মানিতে। তিনি সাতবার মোটর রেসিংয়ের ফর্মুলা ওয়ান ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপ জয় করেন। খেলাধুলার ইতিহাসে তিনিই এখন পর্যন্ত সবচেয়ে সফল ড্রাইভার। মাইকেল শুমাখারের মোট সম্পত্তির পরিমাণ ৮০০ মিলিয়ন ডলার যা তাকে এনে দিয়েছে পৃথিবীর সবচেয়ে ধনী ড্রাইভারের শীর্ষস্থানে।  

৩#

মাহমুদ আহমেদ দিরিয়ে গুলেদ ছিলেন সোমায়িলার একজন শরণার্থী। ১৯৮৬ সালে তিনি লন্ডনে এসে বসবাস শুরু করেন, এবং কলেজ শেষ করার পর এখানেই ট্যাক্সি চালাতে শুরু করেন। অসম্ভব পরিশ্রম এবং সাধনার পর তিনি নিজের একটি ট্যাক্সি ফার্ম খুলেছেন৷ শুরুতে খুব সাধারণ একটি ট্যাক্সি চালালেও তিনি এখন চালান ২.৮ মিলিয়ন পাউন্ডের নীল রঙের এক রোলস রয়েস গাড়ি! জানা গেছে,সোমালিয়ার পতাকার সাথে মিল রেখে তিনি নীল রঙকে প্রাধান্য দিয়েছেন।

৪#

ধনীদের তালিকায় উপরে আছেন আমেরিকার ডেল আর্নহার্ট জুনিয়র। আমেরিকান এই স্টক রেসিং কার ড্রাইভার একই সাথে লেখক ও NASCAR গাড়ি কোম্পানির বিশ্লেষক। ফরবেস অনুযায়ী তিনি প্রায় ৩০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের মালিক!

৫#

আইরিশ ড্রাইভার, টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব ও ব্যবসায়ী এডি জর্ডান আছেন এই তালিকায়৷ তিনি তার নিজস্ব কোম্পানি পরিচালনা করছেন ১৯৯১ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত। তার সম্পত্তির পরিমাণ ৪৭৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার!  

৬#

জেফ গর্ডন ড্রাইভিঙের প্রতি অনুরাগ সেই চার বছর বয়স থেকে। তার সৎবাবা কিনে দিয়েছিলেন একটি বিএমএক্স বাইক। সেই থেকে তিনি লেগে আছেন ড্রাইভিঙের সাথেই। বর্তমানে জেফ NASCAR এর শীর্ষ প্রতাপশালীদের একজন। জেফের সম্পত্তির পরিমাণ ১৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার

৭#

বাংলাদেশ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদের গাড়ির ড্রাইভার আব্দুল মালেক ওরফে মালেক ড্রাইভার। তিনি ঢাকায় ১৫ কাঠা জমির উপর ডেইরী ফার্ম, ২৪টা ফ্ল্যাট, ৭ তলা তিনটি ও ১০ তলা একটি বিলাসবহুল বাড়িসহ আনুমানিক ১০০ কোটি টাকার মালিক। ৮ম শ্রেণি শিক্ষাগত যোগ্যতা ও তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী হয়ে প্রচণ্ড অধ্যবসায় ও পরিশ্রমীর এক প্রতীকী আমাদের এই আবদুল মালেক।   

৮#

সম্প্রতি সামনে আসা বিরাট জলের মাছ হলো পিএসসির চেয়ারম্যানের সাবেক ড্রাইভার সৈয়দ আবেদ আলী। তার বাড়ি মাদারীপুর জেলার ডাসার উপজেলার পশ্চিম বোতলা গ্রামে। ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় ঢাকায় চলে এসে কুলির কাজ হতে শুরু করে রিকশা চালানো, হোটেলে কাজ, চাল বিক্রি করাসহ যখন যে কাজ পেয়েছেন, তাই করেছেন। সৈয়দ আবেদ আলীর জীবনের গল্প যেন অধ্যবসায়ের এক চূড়ান্ত নজির। এতটা ডাইভার্সিফায়েড এবং মাল্টিটাস্কার ড্রাইভার এখন পর্যন্ত দেখা যায়নি বলেই বলছেন আন্তর্জাতিক ড্রাইভার কমিটি।

পিএসসির নিজস্ব তদন্তে প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে ২০১৪ সালে চাকরিচ্যুত হলেও বর্তমানে তিনি বিপুল সম্পত্তির মালিক। অন্তত ৫০ কোটি টাকার সম্পদের পাশাপাশি ঢাকায় তার একটি ছয়তলা বাড়ি, তিনটি ফ্ল্যাট ও একটি গাড়ি রয়েছে। শুধু তাই নয়, ডাসার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হওয়ার স্বপ্নও দেখছেন। নিজ গ্রামে গড়ে তুলেছেন তিনতলা বাড়ি, বাড়ির পাশে একটি পাকা মসজিদ ও বাগান। এদিকে আবেদ আলীর ক্যারিয়ার ট্রানজিশন থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে অনেক তরুণ তরুণীই ড্রাইভিংকে পেশা হিসেবে বেছে নেওয়ার কথা ভাবছেন। কেননা বর্তমান সময়ে এর চেয়ে বেশি প্রমিজিং পেশা আর একটিও নেই।

 

 

২৩৮ পঠিত ... ১৭:৪৬, জুলাই ১০, ২০২৪

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি


Top