বিএনপি বিষয়ক মন্ত্রণালয়

৫২১ পঠিত ... ১৬:৩৯, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২৪

429134281_390121170328964_1687079523161740224_n

একবার কর্ণফুলি নদীতে সাম্পানে বসে তিনি পলাশীর যুদ্ধের ইতিহাস পাঠ করছিলেন। তার মনে হয় এই ইতিহাসবেত্তা পলাশীর যুদ্ধে নবাব সিরাজউদ্দোলার পরাজয়ের আসল কারণ উল্লেখ করতে ভুলে গেছেন। চট্টগ্রাম শহরে ফিরে তিনি সংবাদ সম্মেলন করে বলেন, সিরাজের বিরুদ্ধে ও ইংরেজদের পক্ষে যুদ্ধ করেছিলেন এক বাঙালি সেনা কর্মকর্তা; তার নাম জিয়াউর রহমান। সুতরাং সিরাজের পরাজয়ের জন্য দায়ী বিএনপি।

ঢাকায় বিএনপি বিষয়ক গবেষণায় তখন গবেষক সংকট চলছিল। জোড়াতালি দিয়ে ইতিহাসের যেসব বাঁকে বিএনপিকে খল হিসেবে তুলে ধরা হয়; পাবলিক তা খাচ্ছে না কিছুতেই। তাই চট্টগ্রামে ঐ প্রতিশ্রুতিশীল বিএনপি  বিষয়ক মৌলিক গবেষককে ফোন করে ঢাকায় কেন্দ্রীয় গবেষণা সেলে যোগ দিতে অনুরোধ করা হয়। গবেষক উত্তর দেন, সমুদ্রে নিম্নচাপ সৃষ্টি করেছে বিএনপি; আকাশে ঘন ঘোর মেঘ আর ঝোড়ো আবহাওয়ায় বের হতে চাইছি না। তবে সূর্যের আলো দেখা দিলেই ঢাকায় এসে পড়ব।

ঢাকায় কাজে যোগদান করেই মুখ্য বিএনপি বিষয়ক গবেষক (বিবিগ) সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়ে বলেন, করাচিতে স্কুলে পড়ার কালে কিশোর জিয়া একদিন গভর্ণর জিন্নাকে গিয়ে বলেন, আমি দূরদেশে থাকায় আমার মাতৃভাষা বাংলায় একটু দুর্বল হয়ে পড়েছি; সুতরাং আপনি উর্দুকেই রাষ্ট্রভাষা হিসেবে ঘোষণা দিন স্যার। জিন্নাহ ঐ কিশোরের প্ররোচনায় ঢাকার কার্জন হলে এসে বলেন, উর্দু একমাত্র উর্দুই হবে রাষ্ট্রভাষা। (পড়ুন, [শাসকের] প্রশংসা একমাত্র প্রশংসাই হবে রাষ্ট্রভাষা)।

বিএনপি বিষয়ক গবেষণা সেলের কর্মীরা আনন্দে ফেটে পড়ে, ইউরেকা ইউরেকা বলে তারা জড়িয়ে ধরে মুখ্য বিবিগকে। উনি একটু বিরক্ত হয়ে বলেন, বিএনপি জলবায়ু পরিবর্তন করায় তাপমাত্রা বেড়েছে; প্লিজ ঘাম নিয়ে এভাবে জড়িয়ে ধরবেন না।

নিরলস বিএনপি বিষয়ক গবেষণার মূল্যায়ন করে মুখ্য বিবিগকে বন ও পরিবেশ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেয়া হয়। দায়িত্ব নিয়ে মুখ্য বিবিগ বলেন, বিএনপি উজাড় করেছে বনভূমি; বাজার থেকে পলিথিন ব্যাগ প্রত্যাহার করে পরিবেশের বিনাশ করেছে; তাই তাদের প্রতিহত করুন।

একান্ত সচিব কানের কাছে ফিসফিস করে বলে, স্যার এটা তো বিএনপি বিষয়ক মন্ত্রণালয় নয়। বন ও পরিবেশ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। মুখ্য বিবিগ মুচকি হেসে বলেন, বিসিএস পরীক্ষার জন্য গরুর রচনা মুখস্থ করে পরীক্ষার হলে গিয়ে প্রশ্ন পত্রে নদীর রচনা এলে তখন কী গরুটাকে নদীর ধারে এনে বেঁধে দেননি।

বিশ্ব পরিবেশ সম্মেলনে গিয়ে ঘন ঘন ভূমিকম্পের জন্য "বিএনপিই টেকটোনিক প্লেট নড়িয়েছে" বলে মন্তব্য করে দেশে ফিরলে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়; নাহ আর পরিবেশ মন্ত্রণালয় নয়; এবার তাকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেয়া যাক। দায়িত্ব পেয়েই মুখ্য বিবিগ বলেন, বিএনপির অপতথ্য প্রতিহত করুন। বিএনপি মুক্তিযোদ্ধা সেজে আসলে পাকিস্তানের হানাদার সেনাদের মুর্গা মোসাল্লাম রেঁধে খাওয়াতো।

আনন্দে কুলু কুলু শব্দ করে ওঠে ২০০৯ উত্তর সুপার হাইব্রিড মুক্তিযুদ্ধের চেতনার রক্ষকেরা। ফেসবুকে যত্র তত্র লোকজনকে স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তি ওরফে বিএনপি তকমা দিয়ে কার্যত নব্বুই শতাংশ লোকের গায়ে  কলংক এঁকে দেয় দেশপ্রেমের স্বপ্রণোদিত ম্যানেজারেরা। যেমন করে সংশপ্তক উপন্যাসে কান কাটা রমজান মাতবর বাড়ির সালিশ ডেকে হুরমতীর কপালে ছ্যাঁকা দিয়ে দিয়েছিলো।

বিএনপি নেতাদের পশ্চিমা রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে বৈঠকে বসতে দেখে মুখ্য বিবিগ বলেন, বিএনপির নেত্রীরা সেজেগুজে রাত বিরেতে দূতাবাসে যান।

এবার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়; আর তথ্য মন্ত্রণালয় নয়, এবার তাকে সেজেগুজে রাত বিরেতে পশ্চিমা দূতাবাসে যাবার দায়িত্বটাই দেয়া যাক।  ভূ-রাজনৈতিক ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক প্রশ্নের উত্তর পেতে সাংবাদিকেরা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে গেলে; মুখ্য বিবিগ অভ্যাস বশত পিলখানা ট্র্যাজেডি থেকে দেশের অভ্যন্তরীণ সব বিষয়ে বিএনপিকে দায়ী করে বক্তব্য দিতে শুরু করলে; সাংবাদিকরা বলে, স্যার আমরা তো ডিপ্লোম্যাটিক করেসপন্ডেন্ট। দেশের খবর কাভার করে যারা; তারা তো এ মন্ত্রণালয়ে আসে না! প্লিজ ইন্টারন্যাশনাল রিলেশনস নিয়ে কিছু বলুন!

মুখ্য বিবিগ মিস্টিক হাসি হেসে বলেন, ঐখানে তোর বিএনপির কবর পল্টনের তলে; পনেরো বছর ভিজিয়ে রেখেছি প্রেস কনফারেন্সের জলে।

(সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণঃ এটি নেহাত কাল্পনিক গল্প; বাস্তবের সঙ্গে মিল খুঁজতে গিয়ে উতলা হবেন না প্লিজ)

৫২১ পঠিত ... ১৬:৩৯, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২৪

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি


Top