সুশীলদের পেছনে এত টাকা খরচ করবেন না মাননীয় মেয়র

৩৩৪ পঠিত ... ১৮:০৯, মে ২৪, ২০২৩

Sushilder-pichone-taka-khoroch

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ফজলে নূর তাপস এক সভায় বলেছেন, ‘যেসকল সুশীলরা আমাদেরকে বুদ্ধি দিতে যাবেন, সেসকল সুশীলদেরকে আমরা বস্তায় ভরে বুড়িগঙ্গার নদীর কালো পানিতে ছেড়ে দেবো।‘

দেশের রিজার্ভ যখন দিনে দিনে কমে আসছে, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব থেকেও এখনও মুক্ত হতে পারেনি অনেক দেশ। পাশাপাশি রয়েছে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি—এতকিছুর মাঝেও তাড়াহুড়ো করে এভাবে সুশীলদের পানিতে ফেলার আনঅফিশিয়াল প্রকল্প হাতে নেয়া কতটা যুক্তিযুক্ত?

সুশীলদের বস্তায় ভরে পানিতে ফেলা এই প্রকল্পে রয়েছে নানান কাজ। পুরো প্রকল্প তুলতে বস্তা, বস্তার মুখ বাঁধার জন্য দড়ি, সুশীলকে বাসা থেকে বুড়িগঙ্গা পর্যন্ত নিয়ে যেতে যাতায়াত খরচ তো লাগবেই, সাথে লাগবে জনবলও।

ধরে নেয়া যাক, প্রাথমিক পর্যায়ে ১০০ জন সুশীলকে বুড়িগঙ্গার কালো পানিতে ফেলার সিদ্ধান্ত যদি নেয়া হয়, তাহলে লাগবে ১০০টি বস্তা। খালি বস্তার বাজার দর এখন ৫০-১০০ টাকা। সাথে বস্তা প্রতি দঁড়ির জন্য লাগবে প্রায় ১৫-২০ টাকা করে। যাতায়াত খরচ নির্ভর করবে সুশীলের বাসা থেকে বুড়িগঙ্গার দূরত্বের ওপর। বর্তমান বাজার দর অনুযায়ী জনপ্রতি খরচ পড়বে ৭০০-১০০০ টাকা। এরপর নদীর পাড় থেকে সুশীলটিকে বুড়িগঙ্গায় ফেলে দিতে লাগবে লেবারও। প্রতিজনকে ফেলতে লেবার খরচ পড়বে ৩০০ টাকার বেশি।

হিসেব করে দেখা যায়, ১০০ জনকে বাসা থেকে তুলে বস্তায় ভরে বুড়িগঙ্গা পর্যন্ত নিয়ে বুড়িগঙ্গায় ফেলতে বর্তমান বাজারদর অনুযায়ী খরচ পড়বে, ১ লক্ষ ১২ হাজার টাকার মতো। সরকারি কেনাকাটার ঐতিহ্য বজায় রাখতে যার খরচ পড়বে কমপক্ষে ৫ কোটি টাকা।  

এমন অভাবের দিনে সুশীলদের পেছনে এত টাকা খরচ করা কি ঠিক হবে মাননীয় মেয়র?

৩৩৪ পঠিত ... ১৮:০৯, মে ২৪, ২০২৩

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top