গাছ কাটলে খবর আছে

১৩৪ পঠিত ... ১৭:০৭, নভেম্বর ০৬, ২০২৩

গাছ-কাটলে-খবর-আছে (1)

রাতের আঁধারে বিভিন্ন প্রজাতির ৫৬টি গাছ কাটলো জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। কারণ ইনস্টিটিউট অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (আইবিএ) নতুন ভবন নির্মাণ করতে হবে। অদ্ভুত বিষয় হলো, এমন জায়গাকেই তারা বেছে নিয়েছেন অর্ধশত গাছ কেটে ভবন নির্মাণের জন্যে, যাকে জাবির সকলে চেনে 'সুন্দরবন' নামে!

গত বুধবার ১ নভেম্বর ভোরের আলো ফোটার আগেই নিঃশব্দে, চুপিচুপি ৫৬টি গাছকে কেটে ফেলা হলো। সকালে বিষয়টি জানাজানি হলে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল করে। প্রতিবাদে ইনস্টিটিউটের ভবন নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের নামফলক গুড়িয়ে দিয়ে গাছের চারা রোপন করেছে শিক্ষার্থীরা। আরেক দল শিক্ষার্থী যেখানে গাছ কাটা হয়েছে, সেখানে নতুন ১১টি গাছ লাগিয়ে দেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) এলাকার সুন্দরবন নামে স্থানের অর্ধশতাধিক গাছ কেটে ফেলার পর কাটা গাছগুলো-ও হাওয়া হয়ে গেছে! গাছের গোড়া মাটিতে থাকলেও গাছগুলোর প্রধান অংশ সেখানে নেই। নিয়ম অনুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয়ে গাছ কাটা হলে সেসব গাছ বিশ্ববিদ্যালয়ের এস্টেট কার্যালয়কে বুঝিয়ে দেওয়ার কথা। তবে শেষ তথ্য পাওয়া মতে, গাছ কাটার পর কয়েক ঘণ্টা পার হলেও গাছগুলো এস্টেট কার্যালয়কে বুঝিয়ে দেওয়া হয়নি।

এ বছরের ২৩ মে নতুন ভবন স্থাপনের জন্য একই স্থানে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছিল। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে ভবন নির্মাণের কাজ এতদিন শুরু হয়নি। তাই রাতের আধারেই গাছ কেটে তা সরিয়ে ফেলার এই রাক্ষুসে আয়োজন করা হয়।

প্রতিবাদের অংশ হিসেবেই শিক্ষার্থীরা ভবন নির্মাণের ফলকের ওপর লিখেছে, 'গাছ কাটলে খবর আছে'। কিন্তু তবুও যে গাছগুলো কেটেই ফেললো প্রশাসন! খবর যে কারো হলো না! শিক্ষার্থীরা শত প্রতিবাদ করলেও, যদি প্রশাসন আর হর্তাকর্তাদের টনক না নড়ে, তবে কী আদৌ কারও গাছ কাটার জন্য খবর হবে? শেষমেশ হয়তোবা নতুন ভবনও নির্মাণ হবে কিন্তু হেরে যাবে শিক্ষার্থীরা, তাদের প্রতিবাদ, তাদের প্রাকৃতিক ক্যাম্পাস, তাদের 'সুন্দরবন', সেখানের গাছগুলো আর আরও একটু অসুস্থ হয়ে পড়বে আমাদের পৃথিবীটা।

 

তথ্যসূত্র: প্রথম আলো

১৩৪ পঠিত ... ১৭:০৭, নভেম্বর ০৬, ২০২৩

আরও eআরকি

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

কৌতুক

রম্য

সঙবাদ

স্যাটায়ার


Top