তা দেয়ার আগেই ফুটে যাচ্ছে বাচ্চা, ফ্যামিলি প্ল্যানিঙে ব্যাঘাত মুরগিদের

৭৭৯ পঠিত ... ১৬:১৮, এপ্রিল ১৮, ২০২৩

Murgi

তীব্র গরমে শুধু মানুষই না, অতিষ্ঠ হয়ে উঠছে প্রাণিকুলের অন্যান্য সব সদস্যই। বিশেষ করে মুরগি সমাজ রয়েছে ভয়াবহ বিপদে। কোনোভাবেই তারা নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না ফ্যামিলি প্ল্যানিঙের বিষয়টি। অতিরিক্ত গরমে তা দেয়া ছাড়াই প্রতিদিন ডিম ফুটে জন্ম নিচ্ছে হাজার হাজার বাচ্চা মুরগি। সম্প্রতি ‘গরমে বিপর্যস্ত ফ্যামিলি প্ল্যানিং’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় এই নিয়ে দুঃখপ্রকাশ করেছে সুশীল মুরগিরা।

আলোচনাসভায় এক বক্তৃতায় জনৈক সুশীল মুরগি বলেন, ‘কী যে বিপদে আছি। ডিমের উপর আমার বউকে বসতে নিষেধ করে দিয়েছি, কিন্তু তাতেও লাভ হচ্ছে না। ডিম যেখানেই রাখি না কেন, বাচ্চা ফুটেই যায়। প্রতিদিনই আমার বাচ্চার সংখ্যা বাড়ছে। গতকাল পর্যন্ত আমার বাচ্চা ছিল ৯৫, আজ সকালেই দেখি সেটা ১০০। আপনারাই বলেন, এত বাচ্চার নাম মনে রাখা যায়?’

এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে জনৈক নারী মুরগি বলেন, ‘আরে ভাই, পুরুষরা আর কী বুঝবে, সমস্যা তো হয় আমাদের। বাচ্চা মানুষ করা কি আর সহজ কথা? প্রতিদিনই যদি বাচ্চা হয়ে যায়, তাহলে কীভাবে কী! সবাই জানে গরমেই ডিম ফুটে বাচ্চা বের হয়, কিন্তু তাও অনেক মুরগি আমার চরিত্র নিয়ে কথা বলে।‘

এই ব্যাপারে জনৈক বুদ্ধিজীবী মুরগি বলেন, ‘মানুষের সাথে এই হচ্ছে আমাদের পার্থক্য। কোনো মানুষ যদি এই গরমে তার স্ত্রীর গায়ে হাতও দেয়, ঝারি খায়। কিন্তু আমাদের বেলায় কী হয়? গরমে আমাদের ডিম ফুটে যায় আপনাআপনি। এই বৈষম্য আসলে মানা যায় না। আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই।‘

বড় মুরগিদের বক্তব্যের পাশাপাশি যাদের নিয়ে আসলে এত আলোচনা, তাদের প্রতিনিধি হিসেবে এক বাচ্চা মুরগিও এই সভায় বক্তৃতা দেয়। বাচ্চাটি বলে, ‘আমি বুঝলামই না আমাদের নিয়ে এত কথা কেন হচ্ছে। নিজের ইচ্ছায় তো আর জন্ম নেইনি। দোষ দিলে শুধু গরমকেই দেন, আমাদের নিয়ে বাজে কথা বলবেন না। এমনিতেই গরমে অস্থির, এসব বাকওয়াজ ভালো লাগে না।‘

৭৭৯ পঠিত ... ১৬:১৮, এপ্রিল ১৮, ২০২৩

Top