একান্ত কাল্পনিক সাক্ষাৎকারে অতিরিক্ত ডিআইজি রফিকুল ইসলাম শিমুল

৪৮৮ পঠিত ... ১৬:৪২, মে ২৬, ২০২৪

25 (14)

শত শত কোটি টাকার দুর্নীতি ও ক্ষমতার অব্যবহারের প্রমাণ পাওয়া গেছে পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি রফিকুল ইসলাম শিমুলের নামে। বাংলাদেশি দৈনিক সারাবাংলার অনুসন্ধানে এইসব তথ্য বের হয়ে আসে। দুর্নীতির জন্য সাম্প্রতিক তুমুল আলোচনায় আছেন পুলিশের সাবেক ডিআইজি বেনজির আহমেদও। ২০২০-২১ সালে বেনজির পেশাগত সততা ও দক্ষতার জন্য রাষ্ট্রীয় শুদ্ধাচার পুরস্কারও পান। এরই ধারাবাহিকতায় এবার শুদ্ধাচার পুরস্কার দাবি করেছেন অতিরিক্ত ডিআইজি রফিকুল ইসলাম শিমুল। নিজের একটি ফেক আইডি থেকে এমনটাই জানান তিনি।

নিজেকে শুদ্ধাচার পুরস্কারের অন্যতম দাবিদার উল্লেখ করে শিমুল নিজের ফেক আইডি থেকে আরও বলেন, দুর্নীতি তো আমিও কম করি নাই। বেনজির ভাইয়ের মতো দুর্নীতি করতে না পারলেও একেবারে কম তো করি নাই। বেনজির ভাই পেশাগত দক্ষতা আর সততার জন্য রাষ্ট্রীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার পেতে পারে তাহলে আমি কেন পাব না?

এখনও শুদ্ধাচার পুরস্কার না দেয়ায় ক্ষোভও প্রকাশ করেন শিমুল। বিষয়টিকে অন্যায় আখ্যা দিয়ে শিমুল বলেন, এটা তো আমার প্রতি অন্যায়। বেনজির সাহেব ডিআইজি বলে পুরস্কার পাবেন আর আমি অতিরিক্ত ডিআইজি বলে পুরস্কার পাবো না—এমনটা তো হতে পারে না! এটা তো আমার মতো পরিশ্রমী ও দেশপ্রেমিক সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য অত্যন্ত হতাশার ব্যাপার।

এভাবে চলতে থাকলে ভবিষ্যতে সরকারি কর্মকর্তারা দুর্নীতি করার মোটিভেশন হারিয়ে ফেলবে—এমনটা জানিয়ে তিনি বলেন, ছেলেপেলেদের তো মোটিভেশন লাগবে। মোটিভেশন ছাড়া তো দেশপ্রেম, দুর্নীতি করা অসম্ভব হয়ে যাবে। এভাবে চলতে থাকলে তো আমরা আরেকজন বেনজির পাবো না, আরেকজন শিমুল পাবো না।  

৪৮৮ পঠিত ... ১৬:৪২, মে ২৬, ২০২৪

Top