বিশ্ববিদ্যালয়ে চালু হচ্ছে ঋণখেলাপ স্টাডিজ, ক্লাস নেবেন বেগমপাড়ার প্রফেসররা      

১৩২ পঠিত ... ১৬:৪৪, মে ১৬, ২০২৪

20 (11)

একাডেমিক শিক্ষা ছাড়াই অনেকে ঋণখেলাপি হওয়ায় এবং ক্যারিয়ার হিসেবে এর ভবিষ্যতকে বিবেচনায় নিয়ে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এবার চালু হচ্ছে ঋণখেলাপ স্টাডিজ বিভাগ। দেশের মোটামুটি সবগুলো প্রথম সারির বিশ্ববিদ্যালয়ে চালু হওয়া এই প্রোগ্রামে অনার্স, মাস্টার্স থেকে শুরু করে পিএইচডি লেভেল পর্যন্ত গবেষণা করা যাবে। বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয়েই ক্লাশ নেবেন বেগমপাড়া নিবাসী ঋণখেলাপি এক্সপার্টরা এবং তারা ক্লাশ নেবেন অনলাইনে। তবে বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ই শিক্ষক খুজছেন, কমপক্ষে একশো কোটি টাকার ঋণখেলাপি হতে পারলেই শিক্ষকতার সুযোগ পাওয়া যাবে এসব প্রোগ্রামে।

প্রোগ্রাম সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে সাভার বিশ্ববিদ্যালয়ের ঋণখেলাপ স্টাডিজ বিভাগের ডিন সাহেবের সাথে কথা বলতে তিনি বলেন, ঋণখেলাপি একসময় শুধু শিল্প ছিলো, কিন্তু বর্তমানে ক্যারিয়ার হিসেবে এর উপযোগিতা বেড়েছে। কমবয়স থেকেই অনেকে ঋণখেলাপির দিকে ঝুকছেন কিংবা শেখার চেস্টা করছেন এমন প্যাশনেট মানুষদের একাডেমিক স্কলার হিসেবে গড়ে তোলাই আমাদের মূল লক্ষ্য। বিশ্বে প্রথম এই বিষয়ে পড়ানো শুরু করায় আশা করছি ভবিষ্যতে পাশ্চাত্যের অক্সফোর্ড কিংবা হার্ভাডের পাশাপাশি মঙ্গলগ্রহ বিশ্ববিদ্যালয়েও এই বিষয় নিয়ে পড়ানো হবে এবং আমি গর্বের সাথে বলতে পারি সেখানের শিক্ষক হিসেবে থাকতে আমাদের গ্রাজুয়েটরাই।

এমন উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন খেপসেন দ্যা মেজো ভাই নামের এক কন্টেন্ট ক্রিয়েটরও। নিজের ফেসবুক পেইজে লাইভে এসে তিনি বলেন, দেরিতে হলেও দেশের শিক্ষাব্যবস্থায় এমন বিপ্লবী উদ্যোগ দেশের জন্য ইতিবাচক। ঋণখেলাপি শিল্প এভাবে লিগালাইজ করা হলে দেশ থেকে বেগমপাড়ায় মেধাপাচার রোধ করাও সম্ভব, পাশাপাশি ঋণখেলাপ হলেও দেশের টাকা দেশেই থাকবে।’লাইভ চলাকালীন সময়ে এক অডিয়েন্স কমেন্টে ‘ভাই আপনার ঋণ ফেরত দিসেন নি’ লিখে কমেন্ট করলে উনি ক্ষেপে গিয়ে ‘ভাই আমরা কী পালাইয়া গেছি, হুদাই ভুগিচুগি প্রশ্ন করেন কেন?’ বলে উনি লাইভ বন্ধ করে দেন।   

তবে ঋণখেলাপ স্টাডিজ চালু হওয়ার খবরে সবচেয়ে বেশি খুশি হয়েছে বেগমপাড়াবাসীরা। বেগমপাড়ায় আনন্দ মিছিল হওয়ার পাশাপাশি মিস্টি বিলিয়ে নেচে গেয়ে আনন্দ উদযাপন করেছেন সেখানকার স্থানীয়রা। কান্নাজড়িত কণ্ঠে এমনই এক ঋণখেলাপি ভাই আমাদের বলেন ‘আজকে মোদের বড়ই খুশির দিন, ঋণখেলাপ করেও এখন হওয়া যাবে স্বাধীন। আর কয়েকটা দিন আগে এমন উদ্যোগ নিলে বউ-পোলাপান নিয়ে এমন দেশ ছেড়ে পালিয়ে আসতে হতো না।’

১৩২ পঠিত ... ১৬:৪৪, মে ১৬, ২০২৪

Top