সালামি থেকে রক্ষা পেতে ২০ রোজা থেকে প্রস্তুতি নিন

২৯৩ পঠিত ... ১৬:১৭, মার্চ ৩১, ২০২৪

23

চলে আসছে ইদ। সাথে ধেয়ে আসছে সালামি ওয়েব। মানুষ সাধারণত ভাবে, ইদের দিন গড়িমসি করে কিংবা পালিয়ে গিয়ে কিংবা কম টাকা দিয়ে কোনোভাবে এই সালামি ওয়েব থেকে রক্ষা পাবে। কিন্তু এভাবে শেষ রক্ষা পাওয়া যায় না। আপনি যদি সালামি ওয়েব থেকে নিজেকে রক্ষা করতে চান তাহলে প্রস্তুতি নিতে হবে ২০ রমজানের পর থেকেই। ক্রমাগত মানুষকে জানাতে হবে আপনার দুর্দশার গল্প।

 

১# সবার কাছে টাকা চেয়ে মেসেজ দিন

২০ রোজা থেকেই এই কৌশল কাজে লাগাতে পারেন। যেসব ছোট ভাই আপনার কাছে সালামি চাইতে পারে তাদেরকে মেসেজ করুন। ‘তোর বিকাশে টাকা আছে?’ সরাসরি এমন প্রশ্নও করতে পারেন। কিংবা সরাসরি বলতে নাই চাইলে ‘একটা উপকার করবি?’ লিখেও মেসেজ দিয়ে রাখতে পারেন। অনেকে সিন করবে না, কেউ সিন করলে রিপ্লাই দিবে না, কেউ নিজের অভাবের কথা জানাবে। আর কেউ যদি টাকা দিয়ে দেয় তাহলে নিয়ে নিন। ইদের দিন সালামি হিসেবে এই টাকা তাদেরকে বিকাশ করে দিবেন। একদম কইয়ের তেলে কই ভাজা যাকে বলে আরকি।

 

২# সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলুন

এই অভাবের দিনে যে সালামি নেয়া ও দেয়া যে একটা বিলাসিতা—এই বিষয়টি সবার সামনে নিয়ে আসতে পারেন। প্রয়োজনে একটা সামাজিক আন্দোলন গরে তুলুন। সেটি না পারলে অন্তত একটা ফেসবুক ইভেন্ট খুলতে পারেন। আন্দোলনের মুখে নিশ্চয়ই সালামি শিকারিরা পিছু হটবে। 

 

৩# টিসিবির ট্রাকে দাঁড়িয়ে সেলফি তুলে ফেসবুকে দিন

২০ রোজা থেকে নিয়মিত টিসিবির ট্রাকের লাইনে চলে যান। প্রতিদিন একটা করে সেলফি তুলুন। ফেসবুকে আপলোড দিন। আপনি যে রেগুলার টিসিবির ট্রাকের লাইনে দাঁড়ান—এটা মানুষজনকে জানাতে হবে। ফেসবুকের পাশাপাশি বাসার টাঙানোর জন্য বড় করে একটা ছবিও বাঁধাই করতে পারেন। টিসিবির ট্রাকের লাইনে দাঁড়ানো একজন মানুষের কাছে নিশ্চয়ই কেউ সালামি চাইতে আসবে না।

 

৪# ইদের দিন ভুলো মনা হয়ে যান

ইদের দিন সকালবেলা হুট করে ভুলোমনা হয়ে যান। এমনি এমনি ভুলোমনা হতে লজ্জা লাগলে কিছুর সাথে বাড়ি খান অথবা মাথা ঘুরিয়ে পরে যান। এরপর ওমর সানির মতো স্মৃতিশক্তি হারিয়ে ফেলুন। চোখ খুলে বলুন, ‘মা, বাবা, ছোট বোন, ছোট ভাই আমি তোদেরকে চিনতে পারছি না কেন? আমি কোথায়? আমি বিকাশ পিন মনে করতে পারছি না কেন?’

২৯৩ পঠিত ... ১৬:১৭, মার্চ ৩১, ২০২৪

Top