ফেসবুকে আনফ্রেন্ডিং বিষয়ক মেনিফেস্টো

৩৪৬ পঠিত ... ১৫:৫৫, সেপ্টেম্বর ০৬, ২০২০

 

সোশ্যাল মিডিয়ায় একেকটা ইস্যু আসে আর ফেসবুকে এক ধরনের পোস্টের দমকা হাওয়া বয়ে যায়। ইস্যুর পক্ষে বিপক্ষে নানান গ্রুপ দাঁড়ায়ে যায়। তখন এই ধরনের পোস্টের দেখা মেলে:    

'আপনি [ নির্দিষ্ট মত/রাজনীতি/মতাদর্শের নাম] হয়ে থাকলে প্লিজ আনফ্রেন্ড মি।' 

'আমার লিস্টে অমুক যারা মনে করে তমুকেরা দয়া করে জানান। বিদায় করে আইডি নিরাপদ রাখি।' ইত্যাদি। 

এইসব পোস্ট দেখে আমার এক দৃঢ় বিশ্বাস জন্মাইছে।  ২১ শতকের ২ দশক অতিক্রমের পরে ফেসবুকে আনফ্রেন্ড বিষয়ে একটা মেনিফেস্টো এখন সময়ের দাবি। এ ক্রায়িং নিড। 

আপনি হয়তো সুররিয়ালিস্ট বা ইমেজিস্ট আন্দোলনের মেনিফেস্টো পড়ছেন। অন্তত কমিউনিস্ট মেনিফেস্টো পড়ছেন। ( না, পড়ে থাকলে এই মেনিফেস্টো পড়েন। মার্ক্স আর এঙ্গেলসের মেনিফেস্টো থেকেই এই মেনিফেস্টোর প্রথম চারটা প্যারাগ্রাফ কপি করা হইছে। ট্রিবিউট টু কার্ল এন্ড ফ্রেডি!) 

জাতির বৃহত্তর কল্যাণের স্বার্থে আনফ্রেন্ডিং বিষয়ে মেনিফেস্টো প্রণয়নের কাজটা নিজের কান্ধে তুলে নিলাম। 

 

আনফ্রেন্ডিং বিষয়ক মেনিফেস্টো 

বাংলার সোশ্যাল মিডিয়ারে আতঙ্কগ্রস্ত করতেছে একটা ভূত- আনফ্রেন্ড না করার ভূত।  

এই ভূত ছাড়াবার জন্যে পবিত্র জোটের মধ্যে আইসা পড়ছে ভার্চুয়াল বাংলার সকল শক্তি- বড় ও পাতি সেলেব, ফাকবয় ও লুতুপুতুবৃন্দ,  ইনবক্স র‍্যাডিকেল, আর স্ক্রিনশট গোয়েন্দারা।  

সময় এসে গেছে যখন প্রকাশ্যে, সারা জগতের সামনে, সোশ্যাল মিডিয়া বিপ্লবীদের ঘোষণা করা উচিৎ তাদের মতামত কী, তাদের ঝোঁক কোন দিকে, আনফ্রেন্ড না করার ভূতের এই ছেলে-ভুলানো গল্পের জবাব দেয়া উচিৎ রেডিকেল ইস্তেহার দিয়াই।  

মহতী এই উদ্দেশ্য নিয়া নানা ধরণের গ্রুপ এডমিন ও পেইজ মডারেটর ও সোশ্যাল মিডিয়ার সকল কমরেডদের আইডির পক্ষ থেকে এই 'আনফ্রেন্ড মেনিফেস্টো' প্রস্তুত করছি। ক্রমে বরিশাইল্লা, নোয়াখাইল্লা, চিটাইঙ্গা, সিলটি ও ঢাকাইয়াসহ নানা ভাষায় এইটা প্রকাশিত হবে।

: টাকার বিনিময়ে যে নারী চুমু খেতে দেয় তাকে এক কথায় কী বলে জানেন? 

: বিলকিস।  

কী? উত্তর পছন্দ হয় নাই? 

আনফ্রেন্ড মি, প্লিজ।     

 

মঙ্গোলিয়ার রাজধানীর নাম উলানবাটোর।  তথ্যে সন্দেহ হইতেছে? আনফ্রেন্ড করেন। 'কারেন্ট এ্যাফেয়ার্স' আর 'চলতি বিশ্ব' নামের সস্তা নিউজপ্রিন্ট কাগজের দলা যার কাছে বন্ধুর কথার চাইতে বেশি বিশ্বাসযোগ্য এমন ফ্রেন্ড আমার দরকার নাই। 

 

আপনি কি মনে করেন যে দেশে গণতন্ত্র আর শান্তির সুবাতাস বইছে না? 

প্লিজ লিস্ট থেকে বিদায় হন। 



আপনি আন্ডারপ্যান্ট পরেন? 

দয়া করে আমাকে আনফ্রেন্ড করলে খুশি হবো। আমার ফ্রেন্ডলিস্ট মুক্তমনাদের জন্যে। কূপমন্ডুকদের জন্যে না! 


আপনে ণিয়মিত বানাম বুল করেন? 

অনুগ্রহ করে আমাকে বন্ধুতালিকার বাইরে রাখুন।  আমি বাংলা-একাডেমিয়ানুভুতিতে আঘাত দেবেন না। 

 

আমাকে আনফ্রেন্ড করবেন কারণ আপনি  হা হা রিয়েক্ট দিতে চাইতেছেন। 

ইহা হয় অত্যন্ত সিরিয়াস একটা ইস্যু। মনে রাখবেন সবকিছু নিয়া ফান করা যায় না। ফাইজলামির একটা লিমিট আছে। 

আপনি সব ব্যাপারে ফাইজলামি করেন? 

প্লিজ আনফ্রেন্ড মি। এক্ষন! 

 

ঐতিহাসিক ও যুগান্তকারী এই ইস্তেহার আপনার  ভাল্লাগতেছে না? 

আনফ্রেন্ড মি, প্লিজ! 

আনফ্রেন্ড কইরা আগে বাড়েন। বন্ধুর লেখা যার ভাল্লাগে না তার মতো বন্ধুরে দিয়া আমি করবোটা কী?

৩৪৬ পঠিত ... ১৫:৫৫, সেপ্টেম্বর ০৬, ২০২০

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি


Top