অস্ট্রেলিয়ার বনে ভয়াবহ দাবানলের ২০+টি চিত্র, যা আপনাকে পরিবেশ সম্পর্কে ভাবিয়ে তুলবে

৫২৩ পঠিত ... ১৯:২৩, জানুয়ারি ০৭, ২০২০

শীত শেষে গ্রীষ্ম আসলেই দক্ষিণের সুবিশাল দ্বীপদেশ অস্ট্রেলিয়া দাবানলের হুমকিতে পড়ে। প্রতি বছরই গ্রীষ্মে অস্ট্রেলিয়ায় একাধিক দাবানলের ঘটনা ঘটে। তবে সাম্প্রতিক কিছুদিন ধরে চলমান দাবানল স্মরণকালের সব রেকর্ডকে ছাড়িয়ে গেছে। দক্ষিণ গোলার্ধ্বের শীতের শেষদিক অর্থাৎ অগাস্ট মাস থেকেই অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন বনে দাবানল চলছিল। যা নভেম্বর নাগাদ বেশ প্রকট আকার ধারণ করে। আর ডিসেম্বরে এসে আগুনের ভয়াবহতা ছাড়িয়ে যায় আগের সব অভিজ্ঞতাকে। গত কিছুদিনে অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়া ও নিউ সাউথ ওয়েলসের অন্তত ৫০ হাজার বর্গকিলোমিটার বন পুড়ে গেছে। আয়তনে যা বাংলাদেশের এক-তৃতীয়াংশ। এই বিস্তীর্ণ বনের অন্তত ৫০ কোটি পশু-পাখি আক্রান্ত হয়েছে দাবানলে, যার একটি বিশাল অংশ প্রাণ হারিয়েছে। এছাড়াও ধ্বংস হয়ে গেছে বন্যপ্রাণী ও উদ্ভিদের স্বাভাবিক বাস্তুতন্ত্র।

শুধু কি প্রাণী, প্রাণ হারিয়েছেন অনেক মানুষও। ঘর ছাড়তে হয়েছে হাজার হাজার মানুষকে। সরাসরি আক্রান্ত না হয়েও দাবানলের ধোয়ার প্রভাবে ভুগছেন বড় বড় শহরের লাখ লাখ মানুষ। এসব ক্ষয়ক্ষতির বাইরেও রয়েছে অন্য মাত্রার একটি ভয়াবহতা। একে তো ধ্বংস হচ্ছে অক্সিজেন উৎপন্ন করা সবুজ বৃক্ষ, অন্যদিকে বন পুড়ে নির্গত হচ্ছে কার্বন ডাই অক্সাইড। গত তিন মাসে স্রেফ দাবানলের কারণেই অস্ট্রেলিয়ায় নির্গত হয়েছে অন্তত সাড়ে তিনশ মিলিয়ন টন গ্রিন হাউজ গ্যাস। গ্লোবাল ওয়ার্মিং ও গ্রিন হাউজ ইফেক্টকে বিশ্বের ক্ষমতাধর রাষ্ট্রগুলো স্বীকার না করলেও, গ্লোবাল ওয়ার্মিং ঠিকই শিকার করে চলেছে পৃথিবীতে। যার ফল এই দাবানল। এমনটাই ধারণা করছেন পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা।

ছবিতে এই দাবানলের ভয়াবহতা কতটা বোঝা সম্ভব, তা আমরা নিশ্চিত নই। তবে eআরকির পাঠকদের জন্য থাকছে এই দাবানলের কিছু ছবি, যা আপনাকে আপনার পরিবেশ প্রতিবেশ নিয়ে অবশ্যই ভাবিয়ে তুলবে।

#১

বছরের প্রথম দিনেই এক হৃদয়বিদারক মুহূর্ত। খামারের অগ্নিদ্বগ্ধ বাছুরকে কষ্ট থেকে মুক্তি দিতে গুলি করছেন স্টিভ শিপটন।

 

#২

শহর ঢেকে গেছে দাবানলের কালো ধোয়ায়। মায়ের কোলে নিঃশ্বাস নেওয়ার জন্য যুদ্ধ করছে ১ বছরের শিশু ইভি।



#৩

১১ বছর বয়সী ফিন বার্নসের মতো আরও অনেককে ঠিক এভাবেই নৌকায় করে ছাড়তে হয়েছে ম্যালাকুটা শহর।

 

#৪

অগ্নিদগ্ধ এক কোয়ালা বিস্ময়ে তাকিয়ে আছে তার উদ্ধারকারীর দিকে।

 

#৫

দাবানলের ছাই ভেসে আসছে মেরিমবুলা সমুদ্রসৈকতে।

 

#৬

দাবানলের ধ্বংস হয়ে যাওয়া ভিক্টোরিয়ার ইস্ট গিপসল্যান্ডের একটি বাড়ি। আগুনে পুড়ে যাওয়া চিমনিটিই শুধু দাঁড়িয়ে আছে।


#৭

ব্লু মাউন্টেন থেকে উদ্ধারকৃত একটি আহত ক্যাঙ্গারুশাবক।


#৮

দাবানলে জ্বলছে ইস্ট গিপসল্যান্ডের বেম এবং ক্যান নদীর মাঝের শহরতলি।


#৯

দাবানলের ধোয়ায় ঢেকে যাচ্ছে ইস্ট পিগসল্যান্ডের আকাশ।


#১০

স্যাটেলাইট থেকে তোলা জ্বলন্ত বেটম্যানস বে-এর একটি ছবি।


#১১

নওরা শহরের একটি আবাসিক এলাকা থেকে পালানোর চেষ্টা করছে একটি ঘোড়া।


#১২

আশ্রয় শিবিরে বসে আছে নিউ সাউথ ওয়েলসের এক গৃহহারা পরিবার।


#১৩

সিরিঞ্জ থেকে পানি খাচ্ছে আগুনে আহত এবং আতংকিত এক কোয়ালা।


#১৪

থার্টি ফার্স্ট নাইটের আতশবাজি নয়, আগুনের শিখায় লাল হয়ে আছে আকাশ। আর এভাবেই একটি ফুটবল মাঠে দাঁড়িয়ে নিউ ইয়ার’স ইভ কাটিয়েছেন নিউ সাউথ ওয়েলসের ছোট্ট এক শহরের বাসিন্দারা।


#১৫

তীব্র আগুনের ধোয়ায় দুপুরবেলাতেই কালো হয়ে আসছে বেটম্যানস বে-এর আকাশ।


#১৬

নিউ সাউথ ওয়েলসের একটি খামারের এই আলপাকাটি বেঁচে গেলেও শরীরের বেশ অনেকটাই পুড়ে গেছে।


#১৭

অদূরেই জ্বলছে বন। আর তাই দেখে ভীত মোগো চিড়িয়াখানার কয়েকটি জিরাফ।


#১৮

একেবারে পুড়ে যাওয়া চারণভূমির সামনে দাঁড়িয়ে আছে নিঃসঙ্গ এক বাছুর।


#১৯

ধোয়ায় ঢেকে গেছে ব্রেমার বে-এর রক্তিম আকাশ।


#২০

ক্যাংগারু ভ্যালিতে প্রতিবেশীর বাড়ির আগুন নেভানোর চেষ্টা করছেন লুসি শারমান নামক এই তরুণী।


#২১

চার বছর বয়সী কন্যা পার্ল আর পোষা কুকুরকে কোলে নিয়ে বসে আছেন শেলি ক্যাবান। অগ্নিকাণ্ডে গৃহহারা হবার পর থেকে এই বাসটিতেই বসবাস করছেন তারা।


#২২

নিউ ইয়ারস ইভে কনজোলা শহরে একটি জ্বলন্ত বাড়ির পাশ দিয়ে ছুটে যাচ্ছে অসহায় এক ক্যাঙ্গারু।


#২৩

ইস্ট গিপসল্যান্ডের বায়ার্নডেলে হেলিকপ্টার থেকে দাবানল নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছেন দমকলকর্মীরা।


#২৪

'দাবানল থেকে উদ্ধারকৃত এক ক্যাংগারু জড়িয়ে ধরেছে উদ্ধারকর্মীকে' এমন শিরোনামে এই ছবিটিকে ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে ফেসবুকসহ বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায়। তবে এই দৃশ্যটি চলতি দাবানলের কোন ছবি নয়। ছবিটি ২০১৬ সালের একটি ভিডিও থেকে নেয়া। আবিগেইল নামের অনাথ এই ক্যাংগারুটিকে ছোট্টবেলায় উদ্ধার করেছিলেন এলিস স্প্রিং নামের ছবির ভদ্রমহিলাই। ছবিতে তাকেই জড়িয়ে ধরতে দেখা যাচ্ছে ক্যাংগারুটিকে।

 

৫২৩ পঠিত ... ১৯:২৩, জানুয়ারি ০৭, ২০২০

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top