মহাত্মা গান্ধীকে পণ্য হিসেবে ঘোষণা বাংলাদেশ পোশাক নিয়ন্ত্রক সংস্থার

৩৪১ পঠিত ... ২১:০১, আগস্ট ২৭, ২০২২

Mohatta-gandhi-ponno

সম্প্রতি ছোট পোশাক বিরোধী  রাজু ভাস্কর্যের সামনে। ছোট পোশাক মানুষকে পণ্যসামগ্রীতে পরিণত করে এমনটিও দাবি করেছেন উপস্থিত কেউ কেউ। প্ল্যাকার্ড হাতে তারা আরও দাবি করেন ছোট পোশাক নারীকে বিজ্ঞানীও বানায় না। এমন দাবিতে এতদিন যারা ছোট পোশাক পড়েই বিজ্ঞানী হতে পারবেন স্বপ্ন দেখছিলেন তাদের মধ্যে ক্ষোভ ও কষ্টের জন্ম দেয়। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হলো, তৎকালীন সময় ছোট পোশাক পড়ায় মহাত্মা গান্ধীকে পণ্য হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ পোশাক নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

এ ব্যাপারে তারা বলেন, ‘লোকটা খারাপ ছিলো—সেটা বলবো না। কিন্তু এতদিন পর এসে মনে হচ্ছে লোকটার ইনটেনশন ভালো ছিলো না। তলে তলে মুরগী ধরায় ব্যস্ত ছিলো। দেখেন না কি এক টুকরা কাপড় শইলে পড়তো। মাঝে মাঝে এক সাইডের নিপল দেখায়, মাঝে মাঝে পুরা উদাম... চোখে ভাসতেই বারবার ওযু করতে হয়... ’ 

এই বক্তার সাথেই সহতম জ্ঞাপন করে আরেক সহকর্মী বলেন, ‘তখন তো সিডিউস ফিডিউস এতো কঠিন টার্ম ছিলো না। ইটিশ পিটিশ করতো আরকি। গান্ধী এই সময়ে বেঁচে থাকলে নিশ্চয়ই অশ্লীলতার জন্য মামলা খেতেন।'  

এদিকে ছোটবেলা থেকেই ছোট ছোট পোশাক পড়ে বিজ্ঞানী হতে চেয়েছেন এমন নারীর সংখ্যা অসংখ্য। সুয়ান বদরং (২৪) নামের এক নারী জানান, ‘ছোটবেলা থেকে স্বপ্ন ছিলো বিজ্ঞানী হবো। বইখাতা কেনার বদলে নিয়মিত ছোট ছোট পোশাক পড়তাম। এমনকি ন্যুড বিচেও যেতাম। আজ শুনি আমার এত বছরের স্বপ্ন ধূলিসাৎ হয়ে যাচ্ছে...' এই বলে কান্নায় ভেঙে পড়েন বদরং।

বাংলাদেশের জাতীয় শান্তিরক্ষা কমিটি ও পোশাক নিয়ন্ত্রক সংস্থা আরও জানান, মহাত্মা গান্ধীর পাশাপাশি খুব শীঘ্রই পণ্য হিসেবে ঘোষণা করা হবে বাংলাদেশের কৃষকদেরও। শান্তি রহমান (২৯) নামের এক অফিসার জানান, ‘কৃষকদের অবস্থা গান্ধীর চেয়েও ন্যাক্কারজনক।  গান্ধী তো মাঝে মাঝে একটা নিপল ঢাকতেন, এরা তাও করে না..লাস্টবারের মতো ওয়ার্নিং দিচ্ছি।  একে eআরকি ভাবার কোনো কারণ নেই।’

৩৪১ পঠিত ... ২১:০১, আগস্ট ২৭, ২০২২

Top