মমতা ব্যানার্জীর বাংলা আকাদেমি পুরস্কার প্রাপ্তির খবর শুনে কবিতার বই লেখার কাজে হাত দিলেন রওশন এরশাদ

১৫০ পঠিত ... ১৭:৫৫, মে ১০, ২০২২

Rowshan-ershad

সম্প্রতি বাংলা আকাদেমি পুরস্কার পেয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। তাঁর এই সাফল্যে খুশির জোয়ারে ভাসছেন দুই বাংলার অধিবাসীরাই। চারদিকে চলছে তাঁর জয়জয়কার। তবে আকস্মিকভাবে মমতার এ সাফল্যের পর হঠাৎ জেগে উঠেছেন মরহুম হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের স্ত্রী রওশন এরশাদসহ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরও বেশকিছু দেশপ্রধান। এক অবিশ্বস্ত সূত্র থেকে জানা যায়, মমতা ব্যানার্জির কাছ থেকে ইনস্পিরেশন পেয়েই রওশন এরশাদ কবিতার বই লেখায় হাত দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে রওশন এরশাদের সাথে কথা বলতে গেলে তিনি জানান, ’মমতা আপার কবিতাগুলো পড়লাম। এত সাহিত্যরস সমৃদ্ধ কবিতা কতদিন পর পড়েছি তার হিসাব নেই। আপা একজন দক্ষ নেত্রীর পাশাপাশি চমৎকার কবিও বটে। কথায় বলে যে রাধে,সে চুলও বাঁধে—তারই জ্বলজ্যান্ত প্রমাণ মমতাদি। তাকে আইডল মেনে আমিও চিন্তা করলাম আমার ভেতর থাকা সুপ্ত কাব্যপ্রতিভাকে কাজে লাগাই। এসব চিন্তা থেকেই কবিতা লেখায় হাত দিয়েছি।’

রওশন এরশাদের কাব্যপ্রতিভার উপর হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের কোনো প্রভাব আছে কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি আরও জানান, ‘আপনারা তো জানেন হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ কত বড় প্রেমের কবি ছিলেন। কেউ কেউ বলতেন তার কাব্যপ্রতিভা স্বয়ং ঈশ্বরপ্রদত্ত। তিনি কেবল ভুল সময়ে জন্মেছেন বলে ও দাঁড়ি রাখেননি বলে রবীন্দ্রনাথ হতে পারেননি। আপনারা আশা করি এটাও জানেন, প্রতিভা অন্য অনেক কিছুর মতই ছোঁয়াচে। আমিও দীর্ঘ এত বছর তার সাথে থেকে আবিস্কার করেছি আমার ভেতরও কাব্যপ্রতিভার সম্ভাবনা তুমুলভাবে বিদ্যমান। এছাড়া গত রাতে স্বপ্নে এরশাদ আসলেন, ‘বকা দেবার ভঙ্গিতে বললেন, ও স্ত্রীরে…তুমি কেন কবিতা লিখো না।‘

এরপর কিছুক্ষণ নীরব থেকে তিনি আরও বললেন, ’ক্ষমতায় থাকলে আরও আগেই লিখতাম। ক্ষমতায়  না আসাতে কাব্যপ্রতিভা হারিয়ে যাচ্ছিলো। তবে আমি এখনো আশা ছাড়িনি। সুদিন আসবেই...’

কী নিয়ে কবিতা লিখছেন এমন প্রশ্নের উত্তর রওশান এরশাদ দিতে রাজী হননি। তিনি কেবল বলেছেন, সারপ্রাইজ থাকবে। তবে তার ব্যক্তিগত সহকারী জানিয়েছেন, ‘মমতাদি যেহেতু 'হামবা' লিখেছেন রওশন ম্যাম 'ঘেউঘেউ' বা 'হালুম' জাতীয় কিছু লিখবেন বলে আশা করছি...’

১৫০ পঠিত ... ১৭:৫৫, মে ১০, ২০২২

Top