ব্রেকিং নিউজ আজ ২০টি ছবি আপলোড করলেন ওবায়দুল কাদের

৬৩০ পঠিত ... ১৮:৩২, ডিসেম্বর ২৬, ২০২১

OQader-20-photo

আজ দিনের শুরুটা ছিলো বেশ বিমর্ষ। চারদিকে কেমন যেন মনমরা প্রাণহীনভাব। সূর্যের তেজ নেই, কুয়াশায় পাখিদের ডাক তেমন একটা শোনা যায় না, দরজার সামনে বসে থাকা কুকুরটারও শরীরেও আজ ক্ষিপ্রতা নেই। ভেবেছিলাম সারাটাদিন আজ এভাবেই চলবে। মাত্র একঘণ্টা আগে ফেসবুক স্ক্রল করতে করতে হঠাৎ চোখ আটকে গেলো এক জায়গায়। সারা শরীরে আনন্দের শিহরন বয়ে গেলো। অনুভব করলাম—জীবনটা বদলে গেছে।  

চোখ আটকে গিয়েছিলো মাননীয় সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সদ্য আপলোড করা বিশটি ছবিতে। প্রিয় পাঠক, চলুন আজ আপনাদের সেই ছবিগুলোর কথা বলি যা সত্যিই বদলে দেবে আপনাকে, এবং আপনার চারপাশের সকল জরাজীর্ণতাকে দূর করে নিয়ে আসবে একটি সুন্দর দিন।

 

ছবি #১ 

1

প্রথম ছবিটিতে দেখতে পাই কমলা রঙের কাঠ ও কাঁচের সমন্বয়ে তৈরি হয়েছে এক অদ্ভুত সুন্দর ব্যাকগ্রাউন্ড। সেখানেই একটি কাঠের চেয়ারে বসে মৃদু হাসছেন আমাদের প্রিয় মন্ত্রী। তাঁর চোখে চশমা, হাতে হাতঘড়ি, ডান হাতের আঙুলে আংটি—ফ্যাশনের চিরন্তন উদাহরণ। তবুও সব কিছু ডিঙিয়ে নজর কেড়ে নেয়ে স্যারের শীতল—তবু উষ্ণ সেই হাসি। ছবির উপর নোবেল পুরষ্কার দেওয়ার বিধান থাকলে এই ছবিটি নিশ্চিত নোবেল পেতো। এতো সুন্দর হাসি এড়িয়ে যাবার ক্ষমতা নোবেল কমিটির এখনো হয়নি।

 

ছবি #২

2

দ্বিতীয় ছবিতে দেখতে পাই, স্যার সুদূরপানে তাকিয়ে কী যেন ভাবছেন। মন খানিকটা উদাস। নিরানন্দও বটে। কপালের হালকা ভাঁজ দেখে ক্ষণিকের জন্য মনে হয়, কী এতো দুশ্চিন্তা স্যারের?অবশ্য, হতে পারে তিনি দর্শন নিয়ে চিন্তা করছেন,কিংবা এক হাজার বছর পর পৃথিবীর ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তা করছেন, আবার হতেও পারে তিনি মনে মনে কবিতা লিখছেন। অচিরেই দ্বিতীয় জীবনানন্দ দাশ হয়ে ফিরে আসবেন আমাদের মাঝে। তবে প্রিয় মন্ত্রীর প্রতি অনুরোধ, উদাস অবস্থায় ট্রামগাড়ি থেকে সাবধানে এবং দূরে থাকবেন। এক প্রিয় কবিকে হারিয়েছি, আপনাকে হারাতে চাই না।

 

ছবি #৩

3

তৃতীয় ছবিটিতে স্যার গা এলিয়ে বসেছেন কালো সোফার উপর। দিনশেষের ক্লান্তি ভর করেছে তাঁকে। তবুও দেখুন, তিনি হাসিমুখে বছরের পর বছর দায়িত্ব পালন করে চলছেন। একজন আদর্শ নেতা বুঝি এমনই হন! আমরা ধন্য কারণ আমরা ওবায়দুল কাদেরের সনয় জন্মেছিলাম, আমরা ধন্য কারণ ওবায়দুল কাদেরের মতো মন্ত্রী পেয়েছিলাম।  

ছবি #৪

4

চতুর্থ ছবিটিতে স্যার অত্যন্ত মনোযোগ দিয়ে ‘টাইম’ ম্যাগাজিন পড়ছেন। বিদ্বান ব্যক্তি জীবনের কোনো পর্যায়েই পড়াশোনা ছাড়া থাকতে পারেন না। ফটোগ্রাফার ছবি তুলতে চেয়েছিলেন, কিন্তু সময় নষ্ট হবে দেখে স্যার পড়া থেকে মুখ তোলেননি। পড়ালেখা তো এমনই হওয়া উচিৎ!এ দৃশ্যটি আমাদের আবারও মনে করিয়ে দেয়, শেখার কোনো স্থান, কাল, পাত্র নেই। মনে করিয়ে দেউ সুনির্মল বসুর কবিতাটিও।

বিশ্বজোড়া পাঠশালা মোর সবার আমি ছাত্র,

নানাভাবে নতুন জিনিস শিখছি দিবা রাত্র ...

 

ছবি #৫

5

পঞ্চম ছবিটিতে স্যারকে দেখা যায় কাকে যেনো ফোন করছেন। এই ছবিটি আমাদের মনে করিয়ে দেয় সেই বিখ্যাত গানের কথা। ‘এটা কি ২৪৪১১৩৯? বেলা বোস তুমি পারছো কি শুনতে?’  অবশ্য গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করলে স্যারকে দেখে মনে হয় তিনি বেশ বিরক্ত, কিংবা কিছু নিয়ে রাগান্বিত অবস্থায় আছেন। হতে পারে প্রিয়তমা স্ত্রী তাঁর অপেক্ষায় না খেয়ে বসে আছেন দেখে একটু শাসন করছেন! আমাদের মন্ত্রী কেবল শাসক নন, প্রেমিকও বটে...  

 

ছবি #১০

10

পরবর্তী একটি ছবিতে আমরা দেখতে পাই স্যার প্রচণ্ড মনোযোগ দিয়ে মোবাইলে কী যেন দেখছেন। অনেকেই ধারণা করছেন, স্যারের হাতের মোবাইলটি দেশী ব্র্যান্ড ‘ওয়ালটন’ এর তৈরি পণ্য। দেশপ্রেমিকের কি অনন্য উদাহরণ! উচ্চবিত্ত মানুষেরা যখন আইফোন ছাড়া এক কদমও চলতে পারেন না, আমাদের মন্ত্রীর হাতে দেশীয় ‘ওয়ালটন’। তরুণ সমাজের উচিৎ চাকচিক্যের দলে না ভীড়ে না স্যারের দেখানো পথ অনুসরণ করা।  

আজ ২৬ ডিসেম্বর, রবিবার, মন্ত্রী মহোদয় ছবি আপলোড দিয়েছেন মোট বিশটি। ছবিগুলোর ক্যাপশনে লেখা—‘Tough challenges ahead’, বাংলা করলে যার অর্থ দাঁড়ায়, সামনে কঠিন সময়। আমরা প্রায়ই ‘লিভিং ইন দ্যা মোমেন্ট’ ভাবতে ভাবতে ভবিষ্যতের কথা ভুলে যাই। স্যার আমাদের মনে করিয়ে দিচ্ছেন, শুধু বর্তমান হয়, ভবিষ্যৎ নিয়েও আমাদের ভাবতে হবে। এখানে বিশটি ছবি যেন শুধু ছবি নয়, একেকটি মুক্তা।

প্রিয় মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ভক্ত হিসেবে আমরা চাই, বিরতিহীনভাবে স্যার ছবি আপলোড দিক। শত মন খারাপের মাঝেও আমাদের মন ভালো করে দেয় এই ছবিগুলো। এরকম ছবি তোলার জন্য হলেও বেঁচে থাকার অনুপ্রেরণা যোগায়। তাঁর মতো একজন রুচিশীল এবং আত্মবিশ্বাসী মানুষকে রোল মডেল হিসেবে পেয়ে সত্যিই আমরা গর্বিত।

৬৩০ পঠিত ... ১৮:৩২, ডিসেম্বর ২৬, ২০২১

Top