‘জাজাকাল্লাহ খাইরান’ বলে নিয়মিত ঘুষ নেন উগান্ডার সরকারি কর্মকর্তা আজিজ

৩১৭ পঠিত ... ২০:০৯, অক্টোবর ১৩, ২০২১

Jajakallah-Khairan

ঘুষখোর অফিসার হিসেবে উগান্ডার সরকারি কর্মকর্তা আজিজের বেশ নামডাক রয়েছে৷ কারণ শুধুই ঘুষই খান না আজিজ, পাশাপাশি ধর্মেকর্মেও বেশ সচেতন এই কর্মকর্তা৷ প্রতিবার ঘুষ নেওয়ার সময় জাজাকাল্লাহ খাইরান বলে ঘুষকে পবিত্র করে নেন তিনি। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে তিনি পবিত্র ঘুষখোর নামে পরিচিত৷

ঘুষ খাওয়ার ক্ষেত্রে নিজস্ব কিছু দর্শন মেনে চলেন এই কর্মকর্তা৷ একটু বাড়তি সওয়াবের আশায় ঘুষকে ঘুষ না বলে হাদিয়া বা তওফা বলেন এই কর্মকর্তা। নিজের দর্শন সম্পর্কে জানাতে গিয়ে আবদুল আজিজ বলেন, 'আমি বামহাতে হাদিয়া নেই, ডানহাতে তসবি থাকে। সৈয়দ বংশ ও একটা ধার্মিক পরিবারের সন্তান হিসেবে এটুকুতে কোন ছাড় দিতে রাজি নই আমি৷ আমি তো খারাপ কিছু করি না, অসহায় মানুষগুলোকে সাহায্য করি। সৃষ্টিকর্তা হয়তো আমাকে এমন উছিলা নিয়েই দুনিয়াতে পাঠিয়েছেন৷'

এসময়ে তিনি নিজের মনে বিড়বিড় করে কিছুক্ষণ কী যেন পড়ে বলেন, 'এসতেগফার পড়লাম। জানা-অজানায় কত পাপ করি৷ সেজন্য তওবা করতে হয়৷ আপনারা নিয়মিত করবেন। বেশ উপকার।'

আবদুল আজিজের কাছে কাজ করতে আসা মানুষদেরকে ধর্মেরও দাওয়াতও দেন তিনি৷ আমাদেরকে ধর্মের দাওয়াতের পাশাপাশি দুনিয়ার মোহ ছাড়ার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, 'দুইদিনের দুনিয়া! এত ধন-সম্পদ দিয়া কী করবো! সেজন্য আমার হাতে তেমন টাকা রাখি না৷ যা রাখি সব ব্যাংকে। এই তো কাল সকল লোভকে ঝেড়ে ফেলে এই মাসের তওফা নগদ ১২ কোটি টাকা ব্যাংকে রেখে আসলাম।'

আবদুল আজিজের মাধ্যমে কাজ করানোর ও নিয়োগ পাওয়া প্রার্থীরা বেশ মান্য করেন এই কর্মকর্তাকে। এমনই এক প্রার্থী বলেন, 'স্যারের মাধ্যমে আমার পুরো পরিবার চাকরিতে ঢুকছে। এমন পরোপকারী মানুষ আজকাল দেখাই যায় না। আল্লাহ দুনিয়াতে কিছু উছিলা পাঠান। আজিজ সাহেব আমার পরিবারের উছিলা। জায়নামাজে বসে স্যারের জন্য অনেক দোয়া করি। স্যার প্রতিবার টাকা নেওয়ার সময় মধুর কন্ঠে বলেন ‘জাযাকাল্লাহ খাইরান..’  

আমরা প্রথমে উত্তরটা জানতাম না৷ পরে স্যার নিজেই শিখিয়ে দিলেন ‘ওয়া আনতা আয়দান’ বলতে....

৩১৭ পঠিত ... ২০:০৯, অক্টোবর ১৩, ২০২১

Top