শান্তির তেল ঢেলেও নোবেল পুরষ্কার মিস করলাম: বাংলাদেশী সাংবাদিকের বিক্ষোভ

১৭৭ পঠিত ... ১৪:৫৪, অক্টোবর ০৯, ২০২১

Gallon-Gallon-tel

মত প্রকাশের স্বাধীনতার বিষয়ে এবারের শান্তিতে নোবেল পুরষ্কার পেয়েছেন দুই সাংবাদিক— ফিলিপিন্সের মারিয়া রেসা ও রাশিয়ার দিমিত্রি মুরাতভ। এ ঘটনা ব্যাপক সাড়া (মতান্তরে ক্ষোভ) জাগিয়েছে বাংলাদেশী সাংবাদিকদের ভেতর।   

অসময় টিভির এক সাংবাদিক  eআরকি'কে বলেন, 'প্রতি বছর সেপ্টেম্বর মাসে গ্যালন গ্যালন শান্তির তেল ঢালি। উন্নয়নের কথা উঠলে পদ্মা সেতুর স্প্যানের সংখ্যা বলি, স্যাটেলাইটের কথা বলি... তাও যদি আপনারা শান্তি না পান, চাকরি করে আর কী করবো..?'

তোজাম্মেল বাবু নামের আরেকজন সাংবাদিক বলেন, 'আমরা এতো কষ্ট করে কোন সেলিব্রেটি কয়টা আম খায়, কার কয়টা বিয়ে হইলো, কার গর্ভের বাচ্চার ওজন কতো, কে কখন কার কোথাকার চুল কাটলো ইত্যাদি জানাইলাম। আপনারা আমাদের কোনও দামই দিলেন না। নোবেল পাইলো এরা... খুবই লজ্জাজনক ব্যাপার...'

সাংবাদিকগোষ্ঠী ধারণা করছেন এখানে নেপোটিজমের ব্যাপার আছে। আকালের কণ্ঠের এক সাংবাদিক জানান, 'ওই যে মারিয়া না কী জানি নাম, নোবেল কমিটিতে ওর দূরসম্পর্কের মামা শ্বশুরের মেয়ের দেবর চাকরি করে। ওই শালাই ওরে নোবেল দিছে। আত্মীয় দেইখা ভাইবেন না ঘুষ ছাড়াই কাজ হইছে। নোবেল কমিটি অনেক বড়সড় ঘুষ নেয়...'

তিনি আরও বলেন, 'একটা গোপন কথা বলি। এখনো কাউকে বলি নাই। শুধু আমার এলাকার লোকজন জানে। নোবেল পুরষ্কারের শর্টলিস্টে আমার নামটা গেছিলো। আগের দিন রাতে আলফ্রেড নোবেল বললো উনার ডিবিবিএল একাউন্টে ১০৫৬ হাজার কোটি টাকা পাঠাইলে কালকে আমার নাম ঘোষণা হবে। এতো টাকার কথা আমি জীবনেও শুনি নাই ভাই। টাকা পয়সা থাকলে নোবেলটা আমার ঘরেই আসতো...'

১৭৭ পঠিত ... ১৪:৫৪, অক্টোবর ০৯, ২০২১

Top