ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের যাত্রীদের জন্য প্রস্রাব বন্ধের ভ্যাকসিন চায় কুমিল্লাবাসী

৭৯৯ পঠিত ... ১৬:৪৮, জুলাই ৩১, ২০২১

no pee vax

দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের যাত্রীদের মূত্র বিসর্জনজনিত সমস্যার ভুক্তভোগী হয়ে আসছেন কুমিল্লাবাসী। পানি দূষণ ও বায়ূ দূষণসহ নানাবিধ প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের শিকারও হচ্ছেন তারা। সকালে বাসা থেকে কড়া বডি স্প্রে মেখে বের হন এই অঞ্চলের মানুষরা, কিন্তু রাতে বাসায় ফিরতে ফিরতে বডি স্প্রের ঘ্রাণ যেন কিসের একটা গন্ধে পরিণত হয়। দীর্ঘদিন ধরে ভোগা এমন সমস্যা থেকে মুক্তি চায় কুমিল্লাবাসী। সেই লক্ষ্যে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের যাত্রীদের প্রস্রাব বন্ধে বিশেষ ভ্যাকসিনের দাবি তুলেছেন তারা।

ভ্যাকসিনের প্রয়োজনীয়তার কথা ব্যাখ্যা করতে গিয়ে এক কুমিল্লাবাসী বলেন, 'আমাদের এই অঞ্চলের নদী, খাল, বিল সবকিছুর পানিতে একটা লবণাক্ততা চলে আসছে। হয়তো বিশ্বাস করবেন না, এখানে বৃষ্টির পানিও লবণাক্ত। কখনো কখনো এখানে হলুদাভ বৃষ্টিও হয়। আপনারা খুব ভালো করেই জানেন, আমরা কেন এই ধরণের সমস্যায় পড়েছি! ক্লাইমেট চেঞ্জ যেমন রিয়েল আমাদের এই অঞ্চলের পরিবেশের চেঞ্জও রিয়েল। একটা ভ্যাকসিন হয়ে গেলে আমরা বেঁচে যাই। আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম বেঁচে যায়। আমাদের প্রতি এই দয়াটুকু আপনারা করেন। মানবতা রক্ষায় প্লিজ একটু এগিয়ে আসেন।'

কুমিল্লা শহর ঘুরে জানা যায়, গত ৫০ বছর ধরে এই অঞ্চলে কোন প্রেম হয় না। এর কারণ জানাতে গিয়ে ১০০টা রিজেক্ট খাওয়া এক প্রেমিক ধর্মসাগরে বসে আমাদের বলেন, 'প্রেম হবে ক্যামনে মিয়া! গোলাপ কিইন্যা প্রেমিকারে দিতে দিতে সেখানে আর গোলাপের গন্ধ থাকে না। কেমন যেন এসিড এসিড গন্ধ পাওয়া যায়। এরপর আর প্রেম টিকে বলেন!'

প্রস্রাব বন্ধের এই বিশেষ ভ্যাকসিনটি চলে আসলে কুমিল্লায়ও বইবে নির্মল বাতাস এমনটা জানিয়ে একজন বলেন, 'জাস্ট একটা রুটের যাত্রীদের ভ্যাকসিন দিলেই কিন্তু পুরা একটা প্রস্তাবিত বিভাগ বাইচা যায়। যারে ভ্যাকসিন দিবেন তার তো উপকার হবেই, সাথে উপকার পাবো আমরা সবাই। এই ভ্যাকসিন তো অন্য যে কোন ভ্যাকসিনের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।'

ভ্যাকসিন না আনলে নিজেরাই নিজেদের ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান কুমিল্লার পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের এক ভূয়া নেতা। ৮ বার থ্রি ইডিয়িটস দেখা এই ব্যক্তি বলেন, 'একদম র‍্যাঞ্চোর মত কাজ কইরা দিমু। হেরপর বুঝবা নিজের জিনিস অন্যের জমিনে ফেলার মজা কেমন!'

৭৯৯ পঠিত ... ১৬:৪৮, জুলাই ৩১, ২০২১

Top