মানবিক কারণকে স্বীকৃতি দেয়ায় রাবি ভিসির প্রতি কৃতজ্ঞতা জানালেন মামুনুল হক

১৭২১ পঠিত ... ১৪:১৩, মে ০৯, ২০২১

mamunul-vc

দেশ মানবিক বিয়ের জনক পেয়েছিলো কিছুদিন আগে। সম্প্রতি মানবিক নিয়োগের জনকও পেয়েছি আমরা। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য নিয়ম বহির্ভূতভাবে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের নিয়োগ দেয়ার বিষয়টিকে মানবিক নিয়োগ বলে আখ্যায়িত করেন। তিনি বলেন, 'তারা অনার্স মাস্টার্স পাস, আওয়ামী পরিবারের সন্তান ও ছাত্রলীগ করে। সেজন্যই মানবিক কারণে তাদেরকে নিয়োগ দেয়া হলো।'

মানবিক নিয়োগের মাধ্যমে 'মানবিক কারণ' কে স্বীকৃতি প্রদানের জন্য সাবেক রাবি ভিসি আবদুস সোবহানের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন মানবিক বিয়ের জনক মামুনুল হক। নিজের একটি ভূয়া ফেসবুক পেজ থেকে কৃতজ্ঞতার পাশাপাশি আবদুস সোবহানকে মানবিক ভিসি উপাধীতেও ভূষিত করেন তিনি।

মামুনুল হক জানান, 'মানবতা, মানবিকতা, মনুষত্যের খাতিরে মানবিক বিষয়টিকে মেনে নিতেই হবে। বিয়ে হোক কিংবা নিয়োগ, দুর্নীতি হোক কিংবা অপরাধ, গভীর দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে খেয়াল করলে দেখবেন কোথাও না কোথাও মানবিক কারণ লুকায়িত থাকেই। কেবল জ্ঞানীরাই সেটা খুঁজে বের করতে পারেন। আমি খুঁজে বের করতে পেরেছি পেরেছেন আমার অন্য এক মানবিক ভাই সোবহান সাহেব।'

ভিসি আবদুস সোবহাবের প্রশংসায় মানবিক পঞ্চমুখ মামুনুল হক আরো বলেন, 'যতদিন আপনাদের হাতে দেশ পথ হারাবে না বাংলাদেশ। মানবিকতার এমন উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত পৃথিবীতে বিরল। সোবহান সাহেবের মত মানবিক মানুষরা থাকলে পৃথিবীতে কোন মানবাধিকার সংস্থার দরকার নেই। নেই কোন মানবিকতারও।' এই সময়ে তিনি রাবি ভিসির উদ্দেশ্যে জেল হাজত থেকে একটা মানবিক স্যালুটও প্রদান করেন।

তবে ভিসির এমন মানবিক নিয়োগ বক্তব্যের পর অনিশ্চয়তায় ভুগছে নিয়োগ প্রাপ্ত বেশ কিছু ছাত্রলীগ নেতা। বিজ্ঞান ও ব্যবসা শিক্ষা নিয়ে পড়ালেখা করা এই নিয়োগপ্রাপ্তরা নিজেদের ফেক আইডি থেকে বলেন, 'শুধু মানবিক শাখার পোলাপানদের নিয়োগ দিবে এমন কথা তো ছিলো না! তাহলে কি আমাদের নিয়োগ ক্যানসেল হয়ে যাবে। স্যারের সাথে ডিল তো এমন হয় নাই। মানবিক কারণ দেখিয়ে স্যার এমন অমানবিক কাজ কীভাবে করতে পারলেন।'

১৭২১ পঠিত ... ১৪:১৩, মে ০৯, ২০২১

Top