দোকানপাট খোলা রেখে লকডাউন শিখতে বাংলাদেশে আসছে আমেরিকার ১০ সরকারি কর্মকর্তা

৬৮৪ পঠিত ... ১৩:৫৯, এপ্রিল ২৭, ২০২১

Dokanpat-khola-rekhe

করোনা মোকাবেলায় বিশ্বের নানান দেশই লকডাউন দিয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের মত এমন হাজারো ডাইমেনশনের লকডাউন আর কেউই দিতে পারেনি। বাংলাদেশের এই বহুমাত্রিক লকডাউন শিখতেই এবার বাংলাদেশে আসছে আমেরিকার ১০ সরকারি কর্মকর্তা।

বাংলাদেশের দেয়া সীমিত পরিসরের লকডাউন নিয়েই বেশি আগ্রহ আমেরিকার। দোকানপাট খোলা আবার লকডাউন- একবিংশ শতাব্দিতে এমন অভূতপূর্ব কৌশল এর আগে কেউ আবিষ্কার করতে পারেনি বলে জানান তারা। তারা বলেন, 'লকডাউন আছে আবার লকডাউন নাই। দিনে আছে রাতে নাই। গাড়ি চলে আবার লকডাউন। দোকানপাট খোলা আবার লকডাউন। এমন প্যারাডক্সিক্যাল কৌশল এর আগে কেউ আবিষ্কার করতে পারেনি।'

আরো আগে যদি বাংলাদেশ থেকে এই কৌশল শেখা যেত তাহলে তাহলে আমেরিকাতে লকডাউন বিরোধী আন্দোলন দেখতে হতো না। এমনটা জানান কর্মকর্তারা। তারা বলেন, 'কেউ আন্দোলন করার আগেই সমঝোতা করে তাদেরকে খোলা রাখার সুযোগ করে দিতাম। একদম মাস্টারপ্ল্যান।'

বাংলাদেশের এমন সিদ্ধান্ত দেশের অর্থনীতিকে আমেরিকার চেয়েও এগিয়ে দিয়েছে বলে জানান তারা। সেজন্য এমন বিপর্যয় থেকে মুক্তি পেতে দোকানপাট, গার্মেন্টস খোলা রেখে লকডাউন দেয়া শেখা ছাড়া আর কোন উপায় নেই। তবে বাংলাদেশের মত সফল হওয়া নিয়ে কিছুটা অনিশ্চয়তা আছে তাদের মনে। তারা বলেন, 'সর্বাত্মক লকডাউনের দ্বিতীয় দিনেই যেদেশে গণপরিবহন চলে সেদেশে অন্যকোন কাহিনী আছে। হয়তো স্বয়ং করোনা ভাইরাসের সাথে গোপন কোন আঁতাত আছে তাদের। আমরা তো আর সেই আঁতাত করতে পারবো না। তাও একটা শেষ চেষ্টা করে যদি দেখা যায়।'

আমেরিকার এভাবে শিখতে আসার খবরে কিছুটা ক্ষুব্ধ দেখা গেছে বাংলাদেশের সরকারি কর্মকর্তাদের। নিজের ফেক আইডি থেকে এমন একজন বলেন, 'ওদের আসার কী দরকার! কোন কিছু শেখার অজুহাতে আমরাই সরকারি খরচে ওদের শিখিয়ে দিয়ে আসতাম।'

৬৮৪ পঠিত ... ১৩:৫৯, এপ্রিল ২৭, ২০২১

Top