তবে কি দূষণের তালিকায় শীর্ষে আসার জন্যই কেনা হলো সুইপার ট্রাক?

৪১০ পঠিত ... ১৫:৪৬, মার্চ ২৮, ২০২১

Dushon-min

ঢাকাসহ অন্যান্য সিটি কর্পোরেশনের রাস্তার ধুলা পরিষ্কারের জন্য প্রায় ৩০ কোটি টাকা খরচ করে কেনা হয় রোড সুইপার ট্রাক। কিন্তু দেখা যায়, এই রোড সুইপারগুলো দিয়ে রাস্তা পরিষ্কার করতে গেলে সুইপারের পেছন দিক দিয়ে বের হওয়া ধুলায় বাতাসে ধুলার পরিমাণ আরো বেড়ে যায়। উলটো জনগণের রোষানলে পড়েন সুইপার ট্রাকের চালকরা। 

সুইপার ট্রাকের এমন উল্টো স্রোতে কাজ করার বিষয়টি ইতিবাচকভাবেই দেখছেন অনেকে। এই মুহূর্তে বায়ু দূষণের সুচকে বেইজিং এর পরই দ্বিতীয় অবস্থানে আছে ঢাকা। এই সুচকে শীর্ষস্থানটি নিজেদের করে নিতেই হয়তো কাজ করছে সিটি কর্পোরেশনগুলো- এমন ধারণা করছেন অনেকে।

sweeper truck

এমন সত্যতা মিলেছে সিটি কর্পোরেশনের মেয়রদের ফেক ফেসবুক একাউন্ট থেকেও। জানা যায়, সুইপার ট্রাক গুলোর ভেতরের চেম্বারে ধুলা জমা হওয়ার কথা থাকলেও তা জমা হচ্ছে না, উলটো বেরিয়ে যাচ্ছে। কেনার সময় ট্রাকগুলোর এই সমস্যা দেখা হয়েছে কি না জানতে চাইলে মেয়রদের যৌথ ফেক ফেসবুক পেজ থেকে বলা হয়, ‘আমরা দেখেই কিনেছি। আমাদের পরিকল্পনাই এমন ছিলো। বাতাসে ধুলা নাই, সব ধুলা রাস্তায় পড়ে আছে। এদিকে বাতাসে ধুলার পরিমাণে বেইজিং আমাদের চেয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। এভাবে তো চলতে দেয়া যায় না। সেজন্য রাস্তায় পড়ে থাকা অকেজো ধুলাগুলোকে আকাশে বাতাসে উড়িয়ে দিয়ে বায়ু দূষণের শীর্ষস্থানটি নিজেদের করে নেয়ার লক্ষে আমরা এই সুইপার ট্রাকগুলো কিনেছি। তারা ঠিকঠাকভাবে কাজও করছে। আশা করি, আমাদেরকে কেউ পেছনে ফেলতে পারবে না।’

কেউ কেউ বলছেন, শহরের মানুষ যেন ঘরে বসেই সাজেকের অনুভূতি পেতে পারে সেজন্য সৌন্দর্যবর্ধন প্রজেক্টের আওতায় কেনা হয়ে থাকতে পারে ট্রাকগুলো। এমন একজন বলেন, ‘রাস্তায় ধুলা বাতাসে নিয়ে সেখানে মেঘ তৈরি করা হবে। মানুষের জানালার পাশেপাশে থাকবে সেই কৃত্রিম মেঘ। জানালা দিয়ে সেই মেঘ ছুঁয়ে দেখে মানুষ ঘরে বসেই সাজেকের ফিল পাবে। করোনার সংক্রমণ বেরে যাওয়ার এই সিজনে কেউ আর সাজেক গিয়ে ঝুঁকিও বাড়াবে না। 

এই বিষয়ে মেয়রদের যৌথ ফেক ফেসবুক পেজ থেকে বলা হয়, ‘একটু দূরদর্শী না হলে এই প্রতিযোগিতার পৃথিবীতে নিজেদেরকে মেলে ধরা মুশকিল। সেজন্য আমরা ৩০ কোটি টাকার এক ঢিলে তিন পাখি মারলাম।’

৪১০ পঠিত ... ১৫:৪৬, মার্চ ২৮, ২০২১

Top