দেশ ও জাতিকে সঠিক 'আজকে কী বার' তা জানাতে গঠিত হচ্ছে 'জাতীয় বার দেখা কমিটি'

২৯৫ পঠিত ... ২২:৩১, এপ্রিল ২৩, ২০২০

লকডাউনের কারণে বাসায় থাকতে থাকতে সবারই 'ডেটজোন', 'বারজোন' সবই ওলটপালট হয়ে যাচ্ছে। আজ কী বার, কাল কী বার ছিল, এসব কিছুই মনে রাখতে পারছে না কেউই। কারো কারো জীবনে সপ্তাহে ৩টা শুক্রবার আসলেও, কেউ কেউ অভিযোগ করছেন জীবন থেকে বৃহস্পতিবার রাতের হারিয়ে যাওয়ার। ওয়ার্ক ফ্রম হোম করা কর্মজীবীরা জীবন থেকে সাধারণ ছুটি হারিয়ে যাওয়ারও অভিযোগ করছেন।

দেশের মানুষের এমন নানান অভিযোগের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ সরকারের অননুমোদিত একটি প্রতিষ্ঠান 'জাতীয় বার দেখা কমিটি' গঠিত করতে যাচ্ছে। গ্রহ-নক্ষত্রের অবস্থান পর্যালোচনা করে প্রতিদিন সন্ধ্যায় পরের দিনের বার জানিয়ে দিবে তারা। 'জাতীয় বার দেখা কমিটি'র আহবায়ক বারেক ভাই আমাদের জানান, 'লকডাউনের এই সময়ে বার দেখা কমিটি চাঁদ দেখা কমিটির মতোই গুরুত্বপূর্ণ। সাধারণ মানুষের কথা কী বলবো, আমরা সরকারি লোকেরাও বার গোলায়ে ফেলতেছি। মাঝে মাঝে বৃহস্পতিবার ধরতে না পেরে একটু শুক্র, শনির ঘুষ তুলতে পারি না। ক্যালেন্ডারটা হয়ে গেছে আমার নামের মতো বার-এক! প্রতিদিনই একই বার। হেহে, মানে Punটা ধরতে পারছেন?'

জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সহযোগিতায় ইতোমধ্যে তারা কাজ শুরু করতে পেরেছেন বলেও জানায় তারা। বার দেখা কমিটির আহবাহক আরো বলেন, 'জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি থেকে আমরা শক্তিশালী কিছু টেলিস্কোপ ধার করেছি। ওইগুলো দিয়ে আজকে থেকেই কাজ শুরু করেছি আমরা।'

এখনও অনুমোদন না পেলেও কাজ শুরুর প্রমাণস্বরূপ কমিটির সভাপতি বলেন, 'দুপুর থেকেই আমরা গ্রহ-নক্ষত্রের অবস্থান হিসেব করে বের করেছি আগামীকাল বৃহস্পতিবার। আপনাদের মাধ্যমে সবাইকে জানাতে চাই, তারা যেন আগামীকাল রাতে চিল করে।'

এদিকে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির টেলিস্কোপ দিয়ে বার দেখা হচ্ছে বলে জনমনে কিছুটা আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। চাঁদ দেখা কমিটি যেমন চাঁদ খুঁজে পায় না, তারাও কি বার খুঁজে পাবে না? এক প্রাইভেট চাকুরিজীবী বললেন, 'কমিটি করতেছে করুক। কিন্তু দয়া করে এই কমিটি যেন লকডাউনের পর আর বার দেখার দায়িত্ব না নেয়। তাহলে বৃহস্পতিবার রাতগুলো আমাদের জীবন থেকে চিরতরে হারিয়ে যাবে। শুক্রবার সকালে এসে জানা লাগবে গতকাল বৃহস্পতিবার ছিলো। এই শোক আমরা সামলে উঠতে পারবো না।'

২৯৫ পঠিত ... ২২:৩১, এপ্রিল ২৩, ২০২০

Top