আত্মগোপন করেছে 'ঘরে বসে আয় করুন' বিজ্ঞাপনদাতারা, অথচ বাজারে ব্যাপক চাহিদা

৩৪৬ পঠিত ... ১৯:৫৭, মার্চ ৩১, ২০২০

কিছুদিন আগেও ফেসবুকে বিভিন্ন সেলিব্রেটির কমেন্টবক্সে 'ঘরে বসেই আয় করুন লাখ টাকা' এমন অনেক চটকদার বিজ্ঞাপন ঘুরে বেড়াতো। এমন প্রস্তাব মাঝেমধ্যে মিলতো ইনবক্স কিংবা বিভিন্ন পেজের পোস্টেও। অনেকদিনের 'ডিজিটাল মার্কেটিং'য়ের পরও কোম্পানিগুলো এতদিন ঘরে কিংবা অফিসে কোথাও বসেই তেমন আয় করতে পারেনি। এদিকে সারাদেশ কার্যত লকডাউন হয়ে যাওয়ার পর ঘরবন্দি কোটি কোটি মানুষ কাজ ছাড়া বসে আছেন ঘরে, কিন্তু খোঁজ নেই ঘরে বসে আয় করার এই জাদুর কাঠিদের!

এমনকি কেউ কেউ জানিয়েছেন, অনেক পোস্টে তাদের কমেন্টগুলো ডিলিট পর্যন্ত হতে দেখা গেছে।

কোয়ারেন্টাইনে ঘরে বসে কর্মস্পৃহায় উজ্জীবিত লোকজন এই কোম্পানিগুলোর আত্মগোপনে বেশ হতাশ হয়েছেন। এমনই একজন আমাদের জানান, 'এই সময়ে তাদের বেশ দরকার। কিন্তু এখনই তারা নাই! প্রাইম টাইম না বোঝা এইসব কোম্পানি আসলেই কোন উন্নতি করতে পারবে না।'

এরপর করোনা পরবর্তী বিশ্বের ফ্রিল্যান্সিং মার্কেট এবং আরও অনেক অর্থনীতি মারার পর তিনি বেশ উত্তেজিত হয়ে এই ধরনের কোম্পানিগুলোর নামে ভোক্তা অধিকারে জালিয়াতির মামলা করার হুমকিও ব্যক্ত করেন। তবে এরই মাঝে দুঃখ ভারাক্রান্ত অবস্থায় তিনি জানান নিজের কোয়ারেন্টাইন বেকারত্বের কথাও, 'কাজ না পায়া বিছানায় শুইয়া ফ্যান ঘণ্টায় কয়বার ঘুরে এইসব গুনি ভাই। ঘরে বসে আয় করার সুযোগ থাকলে কত টাকা কামাইতে পারতাম এখন...'

এমন আফসোসের কথা জানালেন মিরপুরের আরও এক ঘরবন্দি বেকার যুবক, 'এই কোম্পানিগুলোকে তখন পাত্তা দেই নাই! এখন এই কোয়ারেন্টাইনে বসে কই খুঁজব তাদের? আরে ব্যাটা তোরাও তো ঘরে বইসা আছোস, তাইলে আমাদের কাজের সুযোগ দিয়ে তোরাও এখন ঘরে বসে আয় কর, নাকি? অদ্ভূত ওয়ার্ক পলিসি এদের, যখন চাহিদা আছে তখন যোগান নাই...'

এই ধরনের কর্মস্পৃহ মানুষের কথা চিন্তা করে বেকার eআরকিকদের এক দল নেমে পড়ে এই ধরনের কম্পানিগুলোকে খুঁজে বের করতে। অনেক খুঁজে জয়া আহসানের ২০১৫ সালের ছবির এক কমেন্টবক্সে তাদের পাওয়া যায়। ওই কোম্পানিকে মেসেজ করলে তারা বলেন, 'আমাদের বিজনেস প্যাটার্ন চেঞ্জ হয়ে গেছে। আমরা এখন 'বাইরে দাঁড়িয়ে লাখ টাকা আয় করুন' কোম্পানি খুলেছি। কিছুদিনের মধ্যেই আপডেট পাবেন, চোখ রাখুন বিভিন্ন জনপ্রিয় পেজের কমেন্টবক্সে...'

৩৪৬ পঠিত ... ১৯:৫৭, মার্চ ৩১, ২০২০

Top