বিসিএসের সকল বই নিয়ে আলাদা বইমেলার আয়োজনের দাবি বিসিএস প্রত্যাশীদের

২৭৪ পঠিত ... ১৬:২৬, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২০

দেশে প্রতিবছরই বইমেলা হয়, প্রতিবছর হয় বিসিএসও। বইমেলার জন্য যেমন মানুষ ১১ মাস অপেক্ষা করে থাকে তেমনি বিসিএসের জন্যও অপেক্ষা কিন্তু কম নয়। অথচ দেশে প্রতিবছরই আয়োজন করে বইমেলা হলেও, শুধুমাত্র বিসিএসকে কেন্দ্র করে কোন বইমেলা হয় না। নিজেদের প্রতি এমন অবহেলা মানতে পারছেন না ‘ইউনাইটেড স্টেটস অফ বিসিএস’ এর বাসিন্দা বিসিএস প্রত্যাশীরা। নিজেদের জন্য আলাদা করে বইমেলা আয়োজন করার দাবিও তোলেন তারা।

নীলক্ষেতে ধাক্কাধাক্কি করে এমপি-থ্রী বই খুঁজতে খুঁজতে ঘেমে যাওয়া এক যুবক নিজের হাতে থাকা অন্য একটি বই দিয়ে কপালের ঘাম মুছতে মুছতে আমাদের জানান ‘এই যে কষ্টটা দেখছেন? এইটা আমি একা করি না! দেশের লাখ লাখ যুবক-যুবতী এই কষ্টের মধ্য দিয়ে যায়। আমাদেরকে এই কষ্ট থেকে মুক্ত করার জন্য আমাদের জন্য একটা বইমেলার আয়োজন করা দরকার।’ এরপর যুবকটি আবার মনোযোগ দিয়ে বই খুঁজতে শুরু করেন। একটা বইমেলা আয়োজন করার মতো পর্যাপ্ত বই বিসিএস-এর আছে কি না জানতে চাইলে তিনি ‘ভাই সরেন তো বই খুঁইজা লই’ বইলা আমাদের ধাক্কা দেন।

এমন সময় পেছন থেকে ‘ভাই, বিসিএস-এর বই কই’ বলে আমাদেরকে টেনে ধরেন একজন। বিসিএসের বই খোঁজায় আমরা বুঝতে পারি তিনিও একজন বিসিএস প্রত্যাশী। বিসিএস প্রত্যাশী এই যুবককে আমাদের আকাঙ্খিত প্রশ্ন করলে তিনি হন্তদন্ত করে ব্যাগ থেকে একটা প্যাড ও একটা কলম বের করে আমাদের কাছে, ‘কী মেলা ভাই? কবে হবে? কোথায় হবে? নাম কী? কবে অনুমোদন হলো? কততম আয়োজন চলছে? মূলমন্ত্র কী? এবারের স্লোগান কী? কয়টি বই রিলিজ হইতে পারে? পদক কে পাবে? বেস্ট সেলার কোনটা? কোন বই নিষিদ্ধ হইছে?’ ইত্যাদি অদ্ভূত সব প্রশ্ন করতে শুরু করেন।

তাকে শান্ত করে ‘এখনো আয়োজন হয় নাই, কিন্তু বিসিএস প্রত্যাশীরা চাচ্ছে শুধুমাত্র তাদের জন্য আলাদা করে একটা বইমেলার আয়োজন করতে’ বললে তিনি একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে বলেন ‘আল্লায় বাচাইছে! কোন দরকার নাই এমন মেলার ভাই! কষ্ট কইরা বই কিনুম তাই ঠিক আছে। একটা মেলা হওয়া মানে আমাদের সিলেবাস বেড়ে যাওয়া।’ এরপর তিনি রক্ষা করো মাবুদ বলতে বলতে সেখান থেকে চলে যান। 

‘ওরাকল, এমপি থ্রি, জয়কলি, সাইফুরস, জ্ঞানদ্বীপসহ নানান সম্পাদনা পরিষদ মিলিয়ে হাজার হাজার প্রকাশনী আছে বিসিএস বইয়ের। তারা সবাই মিলে একটা ক্যান, ৬৪ জেলায় ৬৪ টা বইমেলা করতে পারে।’ এমন দাবি তোলেন একজন। তিনি আরো জানান, এই বছরই বিসিএস-এ আবেদন করছে ৫ লাখের মতো। ২০৪৯ সালের মধ্যে এই সংখ্যা বাংলাদেশের জনসংখ্যা ছাড়িয়ে যাবে। আর তারা সবাই বই কিনবেই! মার্কেট বুঝতেছেন? মাত্র ২৫ বছরে এই বাজার ২০ কোটি পটেনশিয়াল কাস্টমারের বাজার হবে! 

এদিকে বিসিএস প্রত্যাশীদের জন্য আলাদা করে বইমেলার আয়োজনের খবর পেয়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার প্রার্থীগণ ও ব্যাংক জব পরীক্ষার প্রার্থীগণও তাদের জন্য আলাদা বইমেলার আয়োজন চাইবেন বলে জানা যায়!

২৭৪ পঠিত ... ১৬:২৬, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২০

Top