ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেয়েরা যখন ধর্ষিত হচ্ছিলো, ভিসি তখন ক্রিকেট খেলছিলেন

৬৬৪ পঠিত ... ২৩:০৮, জানুয়ারি ০৭, ২০২০

গত ৫ ফেব্রুয়ারি রাতে ঢাকার কুর্মিটোলা হাসপাতালের পাশে ভুলে বাস থেকে নেমে যাওয়ার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হন।

এই ধর্ষণের প্রতিবাদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও সাধারণ মানুষরা বিভিন্ন প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশ করে। কিন্তু এমন একটি ঘটনার পর ৭ জানুয়ারি সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্ট্রাল ফিল্ডে ঢাবির সকল শিক্ষার্থীর অভিভাবক, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ড. আখতারুজ্জামান স্যার ঢাকা ইউনিভার্সিটি টিচার্স ক্রিকেট লিগের উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনকালে ভিসি স্যারকে ব্যাটিং করতেও দেখা যায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী যখন ধর্ষণের শিকার হয়ে হাসপাতালে ভর্তি তখন শিক্ষকদের ক্রিকেট খেলা চালিয়ে যাওয়া ও পিতৃতূল্য ভিসির ব্যাটিং নিঃসন্দেহে কর্তব্যের প্রতি অবিচল থাকার এক অসামান্য নিদর্শন স্থাপন করে।

এ বিষয়ে জানতে চেয়ে ভিসি স্যারের একাধিক ফেক আইডি থেকে একটিতে নক দিলে তিনি সা, সিঙ্গারা, ছপ খাচ্ছিলেন বলে জানান আমাদের। স্যারের খাওয়ার ডিস্টার্ব হবে ভেবে আমরা পরে নক দিবো কি না জানতে চাইলে স্যার ফিরতি মেসেজে বলেন, 'নো! ক্রিকেট ম্যাচ এন্ড ইন্টারভিউ মাস্ট গো অন!'

স্যারের এমন কর্তব্যপরায়ণতায় মুগ্ধ হয়ে আমরা সাথে সাথেই স্যারকে বাহবা জানাই।

এরপর স্যারকে কোন প্রশ্ন করা না হলেও স্যার লেখেন, 'খেলা, কর্তব্য সবকিছুই দিন শেষে একটা শিল্প। পৃথিবীতে অনেক কিছু হতে পারে, এমনকি পৃথিবী ধ্বংসও হয়ে যেতে পারে! কিন্তু এইসব সিলি ম্যাটারে কাজ কাম, শিল্প থামিয়ে দিলে চলবে না। এর সবচেয়ে বড় উদাহরণ কিংবদন্তি নিরো। নিরোও একজন শিল্পী ও অভিভাবক ছিলেন। আমি নিজেও একজন শিল্পী। কিংবদন্তীদের সাথে তো কিংবদন্তিদেরই মিল থাকবে।'

এই ক্রিকেট ম্যাচ দেশে চলমান মতানৈক্যসমূহকে দূর করেছে জানিয়ে স্যার আরো বলেন, 'আমাদের একটি মেয়ে ধর্ষিত হয়েছে। তার প্রতিবাদ হচ্ছে। কিন্তু খেয়াল করেন, ধর্ষণ হলেই মানুষের মধ্যে ধর্ষণের কারণ, প্রতিকার ইত্যাদি নিয়ে নানান বিভাজন দেখা যায়। এমন মুহূর্তে ক্রিকেটই বাংলাদেশে এমন একটি বিষয় যা দলমত নির্বিশেষে সবাইকে এক করতে পারে। তাই সব ধরনের বিভাজন করতেই আমাদের এই ক্রিকেট খেলার আয়োজন।'

ম্যাচে বেশি রান করতে না পারায় আফসোস প্রকাশের পাশাপাশি ক্রিকেটের প্রতি স্যারের ভালোবাসার কথাও জানান তিনি। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের দায়িত্ব পেলে ভিসি পদ ছেড়ে দেয়ার ব্যাপারেও আগ্রহ দেখান এই ক্রিকেটপ্রেমী মানুষটি।

এত স্ট্যামিনা, কাজের প্রতি এমন ডেডিকেশন কীভাবে পান জানতে চাইলে স্যার বলেন, 'ভেঙ্গে পড়লে চলবে না, এমন সিমিলার ঘটনা কর্মজীবনে আগেও অনেক এসেছে, সামনেও আসবে।'

৬৬৪ পঠিত ... ২৩:০৮, জানুয়ারি ০৭, ২০২০

Top