কোচ হিসেবে নিয়োগ পাবার আগেই কোচিং শুরু করে দিলেন সুজন

৮৭৪ পঠিত ... ২০:২২, ডিসেম্বর ২২, ২০১৯

কিছুদিন আগে বাংলাদেশ দল যখন কোচ সংকটে ভুগছিল, তখন গতিদানব খালেদ মাহমুদ সুজন বাংলাদেশ দলের কোচ হওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। সম্প্রতি বাংলাদেশ দলের বোলিং কোচ দায়িত্বে ইস্তফা দেয়ার ঘোষণায় আবারো মাশরাফি, মোস্তাফিজদের দায়িত্ব নেয়ার ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করেন এই কর্মঠ মানুষটি। তবে বাংলাদেশের বোলিং কোচের দায়িত্ব এই গতিদানবকে দেয়া হবে কি না তা নিয়ে বিসিবি এখনো কোন সিদ্ধান্তে না আসলেও, তিনি বসে থাকেননি। নিজের চওড়া কাঁধে একসাথে নানান দায়িত্বের পাহাড় নিয়ে ঘোরা সর্বকাজের কাজি এই মানুষটি শুরু করে দিয়েছেন নিজের কাজ।

ক্রিকেটার শুভর পোস্ট করা দুটি ছবি দেখেই ধারণা করা হয় সুজন নিজের কাজ আক্ষরিক অর্থেই শুরু করে দিয়েছেন। কিন্তু তিনি তো বোলিং কোচ হতে চেয়েছিলেন, ব্যাটসম্যান শুভকে উনি কী শেখাচ্ছেন? ঠিক এই জায়গাটিতেই খটকা লাগে eআরকি গতিদানব গবেষক দল (গগদ) এর। বিষয়টির রহস্য জানার জন্য দানবীয় গতিতে আমরা শুভর একটি ফেক আইডির সাথে যোগাযোগ করি।

কী শেখাচ্ছিলেন গতিদানব? আমাদের এমন প্রশ্নে শুভ জানান, 'ভাই আসলে আমাকে শীতে গোসলের কলা-কৌশল ও মোটিভেশন দিচ্ছিলেন।'

খেলার সাথে গোসলের কী সম্পর্ক জানতে চাইলে শুভ জানান, 'সুজন ভাই বলেছেন, শুধু ব্যাটিং আর বোলিংই খেলার অংশ না। ফুরফুরে মেজাজে মাঠে নামাও খেলার গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ। আর সেজন্য দরকার রেগুলার গোসল। সুজন ভাই আরও বলেছেন, ঠিকমতো গোসল না করলে শরীর কষা হয়ে যেতে পারে। কষা শরীর নিয়ে কমোড এবং মাঠ দুই জায়গাতেই স্লো হয়ে যেতে হয়। সেজন্য ক্রিকেট আর গোসল একে অপরের অবিচ্ছেদ্য অংশ।'

এই তীব্র শীতে গোসলের কলাকৌশল শিখে নিতে দশদিন ধরে গোসল না করা আমরা সুজনের শেখানো কৌশল জানতে চাই। শুভ জানালেন সুজন ভাইয়ের কাছ থেকে মাত্র শেখা বিদ্যা, সুজন ভাইয়ের জবানেই 'প্রথমে মগে পানি নিয়ে ওয়াশরুমে দেয়ালে দেয়ালে এভাবে পানি ছিটিয়ে দিতে হবে। ফলে শুরুতেই একটা শীত শীত ভাব আসবে। এরপর কন্ডিশনের সাথে নিজেকে মানিয়ে নিয়ে গপাগপ মাথা, শরীরে ৩০০ স্ট্রাইক রেটে পানি মারবি। এটাকে বলে স্লো স্টার্ট, স্লো বিল্ডাপ এন্ড ক্যামিও এন্ডিং! বেশ কাজের। গোসল ও ক্রিকেট দুইক্ষেত্রেই।'

এরপর সুজনের দেয়া টিপস নিয়ে শুভ গোসল করতে গেলে আমরা সুজনের কোচিংয়ের ব্যাপারে জানার জন্য বাংলাদেশ দলের অন্যান্য খেলোয়াড়দের নক দেই। সেখানে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান বলেন, ভাই তো শুধু গতিদানব না, ব্যাটিংদানবও! ভাই যে অলরাউন্ডার আছিলো এইটা ভুলে গেলে চলবে! ভাই আমাকে শেখাচ্ছিলেন, কীভাবে বিশেষ মুহূর্তে এক হাতে ছয় মারা লাগে।'

এছাড়া ক্যাসিনোতে গিয়ে কীভাবে হাত নেড়ে ইশারায় ওয়েটারের কাছে ভাতের মেন্যু চাওয়া যায়, সেটাও নাকি খেলোয়াড়দের এভাবেই শিখিয়ে থাকেন তিনি।

দায়িত্ব পাওয়ার আগেই কাজ শুরু করে দেয়ার জন্য সুজনকে অভিনন্দন জানাতে সুজনের কোন ফেক আইডি খুঁজে না পেয়ে আমরা নিজেরাই একটা ফেইক আইডি খুলি। এরপর ওই ফেক আইডির কাছে কোচিং-এর অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'না না, গোসলের কথা কেন বলবো? আমি হাত-পা ঘুরিয়ে সঠিক স্টেপে নাগিন ড্যান্স শেখাচ্ছিলাম। অফিসিয়াল কোচ না হতে পারি, তাই বলে আমার কি দায়িত্ববোধ নেই, ছেলেদেরকে শেখানোর কিছু নেই?'

৮৭৪ পঠিত ... ২০:২২, ডিসেম্বর ২২, ২০১৯

Top