বাংলাদেশের ব্যাটিং দেখে 'উইকেটনাচ্চি' ধারা আবিষ্কার করলেন বাংলাদেশি গণিতবিদ

২৮৯ পঠিত ... ১৮:৩৮, নভেম্বর ১১, ২০১৯

ক্রীড়াঙ্গনে ক্রিকেট বাংলাদেশের জন্য নিয়ে এসেছে অনেক অর্জন। সেই ক্রিকেটীয় অর্জনের পাশাপাশি ক্রিকেট যে বাংলাদেশের শিক্ষা গবেষণায় এমন অভিনব বিপ্লব নিয়ে আসবে, তা কে ভেবেছিলো? কেউ না ভাবলেও ভেবেছিলো বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরা। আর তাদের সাথে ভেবেছিলো ফরিদপুরের প্রত্যন্ত অঞ্চলের গণিতবিদ বাংলাদেশের রামানুজান খ্যাত মানিকজোড় মিয়া। ক্রিকেটের সাথে সংখ্যার একটা গভীর মিল থাকায় অনেকদিন ধরেই ক্রিকেট ফলো করেন তিনি। আর এই ক্রিকেট ফলো করতে করতেই নাগপুরের ভারতের সাথে বাংলাদেশের ম্যাচটির মধ্য দিয়ে আবিষ্কার করে ফেলেছেন গণিতের একটি নতুন ধারা।

মূলত বাংলাদেশের উইকেট পড়ার ধরনের সাথে মিল রেখেই ‘উইকেটনাচ্চি’ নামের গণিতের এই নতুন ধারা আবিষ্কার করেন তিনি। এই আবিষ্কারের ঘোষণার পাশাপাশি তিনি আর্যভট্ট, আর্কিমিডিসদের আমলে ক্রিকেট না থাকাকে গণিতের দূভার্গ্য বলে মনে করে একটু আফসোসও করেন।

‘উইকেটনাচ্চি’ ধারার বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, এখানে একই জোড় সংখ্যা জোড় সংখ্যকবার আসবে। ধারাটি অনেকটা এমন ১২, ১২, ১১০, ১১০, ১২৬, ১২৬...। মূলত জোড় সংখ্যা ১২-এর সাথে বাংলাদেশের একসাথে জোড় সংখ্যক উইকেটের পতন হওয়ার পরই মানিকজোড় মিয়া নড়েচড়ে বসেন। বেশ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পরই তিনি পেয়ে যান ধারার দ্বিতীয় অংশ ১১০, ১১০। ধারাটিকে এগিয়ে নিতে এরপর আর বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি তাকে। পেয়ে যান ১২৬, ১২৬। তবে এখনো ধারা শেষ হয়নি বলে জানান মানিকজোড় মিয়া। এই ধারা শেষ করার জন্য তিনি ভারতের সাথের টেস্ট সিরিজ পর্যন্ত অপেক্ষা করবেন।

এক বিশেষ গাণিতিক সাক্ষাৎকারে (কথাগুলো তিনি গাণিতিক ভাষায় বলেছেন। আপনার বোঝার সুবিধার্থে আমরা ডিকোড করেছি)। তিনি আমাদের গণিতবিদ টিমকে বলেন, 'বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের জোড়ায় জোড়ায় আউট হওয়ার ধরণ দেখেই মূলত আমি বেশ উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ি। ১২ রানে দুই উইকেট যাওয়ার পরই বুঝতে পারছিলাম, আজকে কিছু হতে চলেছে। এরপর তো আমাকে ধারণাকেই সত্যি প্রমাণিত করলো ক্রিকেটাররা। আমার ধারণা "উইকেটনাচ্চি" ধারা মেনেই ক্রিকেটাররা আজকের ম্যাচে আউট হয়েছেন। এবং সামনের ম্যাচেও এভাবে জোড়ায় জোড়ায় আউট হবেন।'

এই ধারা দিয়ে গ্রহ-নক্ষত্রের অবস্থানের সাথে ক্রিকেটের জয়-পরাজয়ের একটা সেতুবন্ধন করতে পারবেন বলেও জানান তিনি।

নাগপুরে জোড়ায় জোড়ায় আউট হয়েছেন ক্রিকেটাররা। আর এদিকে ফরিদপুরের টিভির সামনে বসে জগদ্বিখ্যাত হয়ে যাচ্ছেন মানিকজোড় মিয়া। ক্রিকেটের শক্তিটা এখানেই। ক্রিকেট আমাদেরকে কিছু না কিছু দেয়। ক্রিকেটে আমরা কখনো হারি না। হয় হৃদয় জিতি, না হয় জ্ঞান-বিজ্ঞানে জিতি।

২৮৯ পঠিত ... ১৮:৩৮, নভেম্বর ১১, ২০১৯

Top