অভিমান ভাঙাতে ভিকারুননিসা নূন কলেজের সামনে 'সরি' ব্যানার

৪৯৪ পঠিত ... ২১:২১, জুলাই ৩০, ২০১৯

প্রেম বা বিয়ের প্রস্তাব দেওয়া কিংবা প্রেমিক-প্রেমিকার অভিমান ভাঙানো নিয়ে দেশি-বিদেশি অভিনব সব আইডিয়ার গল্প মাঝেমধ্যেই ঘুরে বেড়াতে দেখা যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। কেউ হয়ত নগরীর কোন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে বিশাল বিলবোর্ডে জানালেন বিয়ের প্রস্তাব, আবার কেউ আচমকা ফ্ল্যাশমব করে দেন প্রেমের প্রস্তাব। সম্প্রতি এমনই একটি আইডিয়ার দেখা পাওয়া গেছে রাজধানী ঢাকায়। দেশের অন্যতম সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ভিকারুননিসা নূন স্কুল এন্ড কলেজের সামনে ঘটে গেছে এমনই এক ঘটনা।

গত ২৮ জুলাই সকালে বেইলি রোডে অবস্থিত ভিকারুননিসা নূন কলেজের প্রধান শাখার সামনে শিক্ষার্থীরা আবিষ্কার করেন এক জোড়া ব্যানারের। ইংরেজিতে লেখা ব্যানার দুটোর একটিতে লেখা ছিল, ‘আমি দুঃখিত। আমাকে ক্ষমা করো, আমার প্রতিজ্ঞা পূরণ করতে দাও। আমি তোমাকে ভালোবাসি।’ আর অন্য ব্যানারটিতে লেখা ছিল, ‘যখন আমাদের প্রথম দেখা হয়েছিল, তখন বুঝিনি তুমি আমার জীবনের এতটা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে। তোমার সাথে দেখা হওয়াটা যেন প্রথমবারের মত এমন কোন গান শোনা, যেটা কিনা আমার আজীবনের ফেভারিট হয়ে থাকবে।’ 

একেবারে নিশ্চিত না হওয়া গেলেও, ব্যানার দুটির কথা পড়েই বোঝা গেছে প্রেমিকার অভিমান ভাঙানোর জন্য কোন এক ‘ডেসপারেট’ প্রেমিক তার কলেজের সামনে এমন একটি ব্যানার ঝুলিয়ে রেখেছেন। যাতে প্রেমিকা সকালবেলা কলেজে ঢোকার আগেই ব্যানারটি দেখে যেতে পারেন। তবে শুধু ভিকারুননিসা নূন কলেজের সামনেই না, রামপুরা থেকে বেইলি রোডের মাঝে বেশ কিছু জায়গায় এই ব্যানারজোড়া দেখা গিয়েছে বলে জানা গেছে। ফলে এও ধারণা করা যাচ্ছে, মেয়েটি সম্ভবত এই পথ ধরেই কলেজে আসে। 

এমন অভিনব ‘ম্যাসেজ’ নিয়ে বেশ চাঞ্চল্য দেখা গিয়েছিল বেইলি রোডে। ভিকারুননিসার শিক্ষার্থীরা তো বটেই পথচারী এবং স্থানীয় অনেকের দৃষ্টি কেড়েছে ব্যানার দুটি। অনেকেই ছবি তুলে ফেসবুকে পোস্ট করেছেন। কেউ রসিকতা করেছেন, কেউবা চিন্তিত হয়েছেন মেয়েটির অভিমান ভাঙল কি না তা নিয়ে। ভিকারুননিসা নূন কলেজের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের মাঝেও ছিল মিশ্র প্রতিক্রিয়া। কেউ হেসেছেন আবার কেউ কেউ বিরক্তও হয়েছেন।  

রাতের অন্ধকারে ঝুলিয়ে যাওয়া ব্যানার দুটি আবার রাতের দেখা পায়নি অবশ্য। দুপুরের পরই ধীরে ধীরে স্থানীয়দের উদ্যোগে নামিয়ে নেওয়া হয় ব্যানার দুটো। এই সময়ের মাঝে অভিমানী প্রেমিকা এটি না দেখে থাকলেও সোশ্যাল মিডিয়ার কল্যাণে হয়ত তাকে দেওয়া এই ম্যাসেজ জেনে গেছেন। কে এই অভিনব আইডিয়াটি বাস্তবায়িত করেছেন কিংবা কার জন্য এটি করা হয়েছে সেটি যেমন জানা যায়নি, তেমনি জানা যায়নি মেয়েটির অভিমান শেষ পর্যন্ত ভাঙলো কি না।   

৪৯৪ পঠিত ... ২১:২১, জুলাই ৩০, ২০১৯

Top