মুড়ি মাখানোতে কি জিলাপি দেয়া উচিত নাকি উচিত না? চলুন দেখি বিশেষজ্ঞরা কী ভাবছেন

৩৯৩ পঠিত ... ২০:০১, মে ০৯, ২০১৯

এসে গেছে ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের জন্য পবিত্র মাস রমজান। গত কয়েক বছর ধরে রোজা রাখার পাশাপাশি মাসের নাম ‘রামাদান’ হবে নাকি ‘রমজান’ হবে, তা নিয়ে বিবাদমান জাতি এ বছর খুঁজে পেয়েছে নতুন বিষয়। জাতি এবার বিভক্ত মুড়ি মাখানোয় জিলাপি থাকবে নাকি থাকবে না, তাই নিয়ে। এ নিয়ে প্রতিদিন ইফতারির সময় উত্তপ্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি করছে বলে খবর আসছে দেশের নানান প্রান্ত থেকে। এহেন অবস্থায় অনেকেই জানতে চাইছেন, মুড়ি মাখানোয় জিলাপি থাকা উচিত কি না? কৌতূহলী আমজনতার হয়ে eআরকি এই প্রশ্ন করেছিল বিশেষজ্ঞদের। বিশেষজ্ঞদের কাছ থেকে পাওয়া গেছে মিশ্র মতামত।

প্রায় পঁচিশ বছর ধরে নিউমার্কেটের একটি দোকানে ইফতারিতে মুড়ি মাখিয়ে আসছেন এমন এক ব্যক্তি বলেন, ‘মুড়ি মাখানোটা ঝাল ঝাল না হইলে জমে না। সেইখানে কেন জিলাপি দিতে হইব এইটা আমার মাথায় আসে না। মুড়ি মাখানোতে জিলাপি হইতেছে বিরিয়ানিতে এলাচের মতন!’ তবে ভিন্নমত দিয়েছেন চকবাজারের সবচেয়ে পুরনো জিলাপির দোকানের এক কর্মী। তিনি বলেন, ‘ঝালের মধ্যে মিষ্টি ভালো লাগে। জিলাপির সিরার জন্য মুড়ি মাখানি আরও ভালো হয়। একদম ফাইন হয় এইটা।’

এমন মতামত দিয়েছেন একাধিক জিলাপি দোকানিও। ধানমন্ডির এক জিলাপি দোকানি বলেন, ‘জিলাপি মুড়ি মাখানোয় একটা কনট্রাস্ট সৃষ্টি করে। এই যে আপনারা ঈদের শপিং করবেন, সেখানে তো ঠিকই কালার ম্যাচ কইরা জামা কাপড় জুতা কিনবেন। এইরকম মুড়ি মাখানোতেও জিলাপি একটা কালার ব্যালান্স সৃষ্টি করে।’ তবে জিলাপি দোকানিদের এমন দাবিকে শুধুমাত্র জিলাপি বিক্রির প্রপাগান্ডা হিসাবেই দেখছেন বিরোধীরা।

জীবনে কখনো জিলাপি দিয়ে মুড়ি মাখানো না খাওয়া এক তরুণ বলেন, ‘ঝাল খাওয়ার পরে খাইতে হয় মিষ্টি জিনিস। আগে মিষ্টি খাইলে তো ক্ষুধা নষ্ট হয়ে যাবে। এই সহজ বিষয়টা কেন মানুষ বুঝে না!’ মুড়ি মাখানোর সাথে জিলাপি দেওয়ার বিষয়টিকে কম খাওয়ানোর ষড়যন্ত্র হিসেবেই দেখছেন এই তরুণ। অন্য এক তরুণ বলেন, ‘গত কিছুদিন ধরে একদল ষড়যন্ত্রকারী শিঙাড়ায় বাদাম এবং মুড়ি মাখানোয় জিলাপি দেওয়ার বিষয়টা নিয়ে যা তা করতেছে। যারা এসব চায়, তাদেরকে একঘরে করে রাখা হোক। বাংলার মাটিতে এমন ষড়যন্ত্রকারীদের ঠাই নাই।’ শিঙাড়া এবং মুড়ি মাখানোর মতো দুটো ঐতিহ্যবাহী খাবারের সুনাম নষ্ট করতে যারা এসব করছে, তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ারও দাবি জানান তিনি।

এক পুষ্টি বিশেষজ্ঞ eআরকিকে জানান, ‘জিলাপিতে থাকে প্রচুর সুগার। যা আমাদের ওজন বাড়িয়ে দিতে পারে। তাই মুড়ি মাখানোতে জিলাপি না থাকাটাই ভালো। তবে কেউ যদি জিলাপি দিয়ে মাখাতেই চান, সেক্ষেত্রে আমি সাজেস্ট করব সুগার ফ্রি জিলাপি।’

অন্য আরেক পুষ্টিবিশেষজ্ঞ আবার জানালেন ভিন্ন মত। তিনি এক গামলা মুড়ির মধ্যে জিলাপি মাখাতে মাখাতে বলেন, 'কেউ তো কাউকে জোর করে মুড়ির সাথে জিলাপি খাওয়াচ্ছে না! যার ইচ্ছা সে খাবে, যার খাইতে মন চায় না সে খাবে না!'

৩৯৩ পঠিত ... ২০:০১, মে ০৯, ২০১৯

Top