চক্ষু বিজ্ঞানের জনক আল রাজি যে কারণে নিজেই অন্ধ হয়ে গিয়েছিলেন

১৯৭১ পঠিত ... ১৯:১৮, অক্টোবর ১৬, ২০১৮

জাকারিয়া আল রাজি। একাধারে দার্শনিক, পদার্থবিজ্ঞানী, রসায়নবিদ, এবং চিকিৎসক। রসায়ন, পদার্থবিজ্ঞান, দর্শন, জ্যোতির্বিজ্ঞান, মেডিসিন ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ের উপর তার লেখা বইয়ের সংখ্যা প্রায় দুইশরও বেশি। সাইকোলোজির জনক, সাইকোথেরাপির জনক, শিশুরোগ চিকিৎসার জনক এমন অসংখ্য উপাধিও আছে এই জ্ঞান সাধকের। এখনো তাকে 'চিকিৎসকদের চিকিৎসক' হিসেবে গন্য করা হয়। 

'চক্ষু রোগ চিকিৎসার (অফথালমোলোজি) পথ প্রদর্শকও বলা হয়ে থাকে জাকারিয়া আল রাজিকে।

দিনরাত পশু-পাখির চোখ নিয়ে পড়ে থাকতেন তিনি। মাইক্রোস্কোপের নিচে দেখতেন চোখের সুক্ষাতিসুক্ষ ব্যাপার স্যাপার। তখন তিনি আবিষ্কার করলেন চোখের যে রেটিনা আছে সেই রেটিনার স্তর বা লেয়ার আছে মোট ১০টি। 

ঘটনা এ পর্যন্ত হলে কোনো সমস্যা ছিলো না। বিজ্ঞানের ৮/১০ টা আবিষ্কারের মতো এটিও হতো একটি স্মরণীয় ঘটনা। কিন্তু এই ঘটনাই পরে আল রাজিকে অন্ধ করে দেয়। কিংবা তার অন্ধত্বের পেছনে পরোক্ষভাবে প্রভাব ফেলে। 

৮০০ খ্রিস্টাব্দ। জাকারিয়া আল রাজির নিজের চোখেই কঠিন একটা রোগ হলো। রোগের নাম গ্লুকোমা। চোখ সম্পর্কে ঐ সময়ে তারচেয়ে বেশি আর কেউ জানে-টানে না। তবে চোখ সম্পর্কে জানা এবং চোখের চিকিৎসা দুইটা ভিন্ন জিনিস। ইরানের এক প্রখ্যাত চক্ষু চিকিৎসক তাঁকে বললেন, 'আসেন আমার কাছে। আপনার চোখের চিকিৎসা করে দেই।' 

আল রাজি গেলেন সেই চিকিৎসকের চেম্বারে। টেবিলের ওপাশে চিকিৎসক, আর এপাশে আল রাজি। আল রাজি চক্ষু চিকিৎসককে জিজ্ঞেস করলেন, 'আচ্ছা! ঠিক আছে আপনি আমার চোখের চিকিৎসা করবেন খুব ভালো কথা। কিন্তু তার আগে বলেন তো দেখি রেটিনার স্তর কয়টা?' 

চিকিৎসক হাঁ করে তাকিয়ে থাকলেন। কারণ আল রাজি ছাড়া ১০টা লেয়ারের কথা আর কেউ-ই তখন জানে না। চিকিৎসক উত্তর দিতে পারলেন না। আল রাজি বললেন, 'যে লোক রেটিনা সম্পর্কে জানে না তার কাছে আমি চিকিৎসা করাবো না। আসসালামু আলাইকুম।' 

এভাবে তৎকালীন বিভিন্ন চিকিৎসক আল রাজির চিকিৎসা করতে চাইলেন। সবাইকে তিনি জিজ্ঞেস করতেন, 'রেটিনার লেয়ার কয়টা?' 

কেউই উত্তর দিতে পারতেন না। 

জাকারিয়া আল রাজিও আর তাঁর চোখের চিকিৎসা করালেন না। কিছুদিন পরে যা হওয়ার তা-ই হলো। চিকিৎসা না করানোর কারণে জাকারিয়া আল রাজি অন্ধ হয়ে গেলেন।

১৯৭১ পঠিত ... ১৯:১৮, অক্টোবর ১৬, ২০১৮

আরও eআরকি

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

কৌতুক

রম্য

সঙবাদ

স্যাটায়ার


Top