অজগর সাপের সাথে একটি সন্ধ্যা

৪১০ পঠিত ... ২২:৩৪, ডিসেম্বর ২৯, ২০২১

Ojogor-shaper-sakkhatkar

গত মঙ্গলবার বেলা দুইটার দিকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের গবেষণা কেন্দ্রে ১২ ফুট লম্বা একটি অজগর সাপ ঢুকে পড়ে। পরে প্রাণিবিদ্যা বিভাগের কয়েকজন শিক্ষার্থী সাপটিকে উদ্ধার করে জঙ্গলে ছেড়ে দেন। জানা যায়, এই সাপটি বার্মিজ পাইথন নামে পরিচিত। গবেষণা অনুষদে সাপ চলে আসার পর থেকে এ নিয়ে মানুষের কৌতুহলের কোন শেষ নেই। কৌতূহল অবদমন করতেই বার্মিজ পাইথনের একটি ঝুঁকিপূর্ণ সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আমাদের চট্টগ্রাম প্রতিনিধি। চলুন দেখে আসি সাক্ষাৎকারের চুম্বক অংশ।

 

—পাইথন ভাই, শুভ সন্ধ্যা। কেমন আছেন?

—হ্যালো, ভালো আছি আবার নেই। একটু আপসেট লাগছে বিকাল থেকে। আপনি কেমন আছেন?

— আপনাদের দোয়ায় ভালো আছি ভাই। আপনি কি আমার সাথে কথা বলতে আতঙ্কিত বোধ করছেন?

—প্রথমে একটু আনসেইফ লাগছিলো। এটাই আমার প্রথম ইন্টারভিউ এক্সপেরিয়েন্স, তাও আবার মানুষের সাথে। অকল্পনীয় ব্যাপার। বাট নাও ইটস ওকে। আই আম গুড।

— ধন্যবাদ পাইথন ভাই। তাহলে চলুন আমরা মূল আলাপে চলে যাই।

—ওকে।

—সারাদেশে হৈচৈ পড়ে গেছে আপনার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদে ঘুরতে যাওয়া নিয়ে। প্রথম সারির সবগুলো পত্রিকাই আপনাকে নিয়ে সংবাদ করেছে। অনেকে বেশ আতঙ্কবোধও করেছেন। এ ব্যাপারে আপনার কী বলার আছে? কেনই বা আপনি গিয়েছিলেন? কোনো নির্দিষ্ট পারপাস কি ছিলো?   

— পারপাস তো অবশ্যই ছিলো। অনেকেই ভাবছেন আমি ভুল করে বুঝি চলে গিয়েছি সেখানে। আরে ভাই, নিজের জায়গা চিনতে কে ভুল করে? আমি সাপ হয়ে জীবন কাটাতে কাটাতে ক্লান্ত। সবাই গালিগালাজ করে। আমি মানুষের মতো হতে চাই, পড়ালেখা করে গাড়ি ঘোড়ায় চড়তে চাই। অবশ্য গালি খাওয়ার কথা বলে লাভ নাই,  মানুষ আমার চেয়ে বেশি গালি খায়..

—হাহাহা, ঠিক বলেছেন। সমাজবিজ্ঞান অনুষদেই কেনো গেলেন? কেন কোনো বিজ্ঞান অনুষদে না?

— সাইন্স ভালো লাগে না। আর আমি এখন আসলে রিসেন্টলি সমাজ নিয়ে ভাবা শুরু করেছি। বেশ কিছু সুদূরপ্রসারী চিন্তাভাবনাও করেছি। কিছু রিসোর্সের জন্য এসেছিলাম। না পেয়েই ফেরত এসেছি।

— অনেকে ধারণা করছেন আপনি তাদের এক্স লাভার। এর সাথে কি আপনার কোনো যোগসাজশ আছে?

— না, একদমই নেই। আমি নির্ভেজাল প্রাণী। স্রেফ একটু পড়ালেখাই করতে এসেছিলাম। কেন ভার্সিটিতে আসতে পারবো  না? সাপ হয়ে কি পাপ করেছি?

আমার অবশ্য ঢাবিতে পড়তে যাওয়ার খুব ইচ্ছা ছিলো। সুযোগ যখন নেই, চবি দিয়েই কাজ চালাই। এখনো বুঝি না বাধ্যতামূলক শিক্ষা সবার জন্য থাকলে অজগরের জন্য থাকবে না কেনো? মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

— সালমান খানের সাথে আপনার সম্পর্কে একটি গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। এ ব্যাপারটা কি একটু খোলাসা করবেন?

— (ফিসফিস শব্দ).. (নীরবতা) ভাই, একটা গোপন কথা বলি।

এখন একটু সেইফ জোনে আছি দেখেই বলতেছি। ভাইজানের হাতে আমিই কামড় দিছিলাম। বুড়া ব্যাটা এখনো নায়কের রোল করে। কী যে বিরক্তটা লাগে! কামড় খেয়ে যদি কয়দিন সিনেমা করা থেকে দূরে থাকে, তাতেই সফলতা। কামড় দেওয়ার পরে এমন ভয় পাইছিলাম! তার হাত থেকে বাঁচতেই ঝাড়া দৌঁড় দিছি। চোখ খুলে দেখি আমি চবিতে।

—হাহাহা,আচ্ছা যাক সে কথা। আপনার জীবন নিয়ে দুটো কথা শুনতে চাই।

— কী আর বলবো বলেন। মাঝে মাঝে জীবন নিয়ে দুঃখ হয়। মানুষ ভাবে আমরা খালি কামড়াই। আমাদেরকে দেখলেই মারতে আসে। অথচ দেখেন, তারা নিজেরাই নিজেদেরকে কামড়ায়া কূল পায় না। আমরা কামড়াবো কখন?

—হক কথা বলছেন ভাই। আপনার সাথে কথা বলে খুব ভালো হোক। আপনার মঙ্গল হোক। সর্পজীবনের সর্বাঙ্গীণ মঙ্গল কামনা করে আজ উঠছি। ভালো থাকবেন।

—আপনিও ভালো থাকবেন।

৪১০ পঠিত ... ২২:৩৪, ডিসেম্বর ২৯, ২০২১

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সঙবাদ

স্যাটায়ার


Top