লং ডিস্ট্যান্স রিলেশনশিপে যে সুবিধাগুলো আপনি পাবেনই পাবেন

৩৪২ পঠিত ... ১৬:৪৯, নভেম্বর ১৬, ২০২২

Long-distance

রিলেশনশিপ যদি হয় লং ডিস্ট্যান্স, তাহলে সুযোগ-সুবিধার হবে না অভাব। জীবনে প্রেম করে সুখে থাকতে হলে, লং ডিস্ট্যান্স রিলেশনশিপে থাকতে হবে। আসুন তাহলে জেনে নিই কী মধু আছে এই লং ডিস্ট্যান্সে।

 

১#

কোথাও ঘুরতে যাওয়ার প্ল্যান থাকলে, ‘বয়ফ্রেন্ডের পারমিশন নাই’বলে, আপনাকে মন খারাপ করতে হবে না। কারণ আপনি বয়ফ্রেন্ডকে না বলে, পুরা দুনিয়া ঘুরে আসলেও সে অতোদূরে থেকে জানতেই পারবে না।

 

২#

বার বার ডেইট করতে যেয়ে আপনার টাকা খরচ হবে না। বাসায় ওয়াইফাই লাগানোই হবে আপনার প্রেমের একমাত্র খরচ।

 

৩#

বিভিন্ন উৎসব যেমন, পহেলা বৈশাখ, জাতীয় দিবস ইত্যাদিতে পার্টনার নিয়ে ঘুরতে হবে না। বরং ফোনে তাকে এক ঘণ্টা সময় দিয়ে বাকি সময় ফ্রেন্ড নিয়ে চিল করতে পারবেন।

 

৪#

পার্টনার রাগ করলে তার জন্য বাইকের তেল পুড়িয়ে বাড়ির নিচে যেতে হবে না, বা চকলেট কিনতে হবে না। রাগ ভাঙাতে আপনার কয়েকটা লাভ ম্যাসেজই যথেষ্ট।

 

৫#

এলাকায় বা কোচিং-য়ে যে আপনার উপর ক্রাশিত, তাকে দেখলে মুচকি হাসি দিতে পারবেন নির্দ্বিধায়। আপনার পার্টনার দূরে বসে জানতেও পারবে না কার সাথে পথে ঘাটে ফ্লার্ট করছেন আপনি।

 

৬#

আপনার যেই স্টাইল পছন্দ সেটাই চুজ করতে পারবেন আপনি। ভিডিও কলে তাকে শুধু একবার দেখালেই হবে, আপনি একদম তার মনের মতো আছেন। ব্যস তারপরেই নিজের মতো চেঞ্জ।

 

৭#

ফ্রেন্ডদের সাথে যখন যেখানে ইচ্ছা ট্যুর দিতে পারবেন। সাথে ছেলে ফ্রেন্ড আছে নাকি মেয়ে ফ্রেন্ড তা নিয়েও প্যারা খেতে হবে না। দেখতে চাইলে সব মেয়ে ফ্রেন্ড দেখিয়ে দিতে পারবেন।

 

৮#

ফ্যামেলি গ্যাদারিংয়ে ছেলে কাজিনদের সাথে বিনা বাধায় বসে আড্ডা দিতে পারবেন। এমনকি রাতে ছাদে উঠে গল্পও করা যাবে। বয়ফ্রেন্ডের জানার কোনো উপায়ই নাই আপনার বাসায় আজ গেস্ট আছে।

 

৯#

মাঝেমধ্যেই এলাকার বড় ভাইয়ের বাইকে করে ভার্সিটি যাওয়ার ফায়দা নিতে পারবেন। না দেখবে বয়ফ্রেন্ড আর না দেখবে তার কোনো ছোট ভাই। খালি চিল আর চিল।

 

১০#

সারাদিন এলাকায় কারেন্ট থাকবে না, ফোনে চার্জ নাই বলে, পুরো একটা দিন বিনা বাধায় বয়ফ্রেন্ড/গার্লফ্রেন্ডের প্যারার বাইরে থাকতে পারবেন। তার জানার কোনো উপায়ই নাই আসলেই কারেন্ট আছে নাকি নাই!

৩৪২ পঠিত ... ১৬:৪৯, নভেম্বর ১৬, ২০২২

Top