যে ১০ কারণে রেহানা মরিয়ম নূরকে বাংলাদেশি সিনেমা বলে মনেই হবে না

২৫৭০ পঠিত ... ১২:৫৫, নভেম্বর ২৮, ২০২১

অনেকেই বলছে সিনেমাটি ভালো। কিন্তু দেখতে গিয়ে দেখা গেলো সিনেমা হিসাবে রেহানা মরিয়ম নূর সিনেমাটি বেশিরভাগ সময় বাংলা সিনেমার জরুরী ক্রাইটেরিয়াগুলো মিস করেছে, তাই এটিকে সফল বাংলা সিনেমা বলা যাচ্ছে না। কী কী সেই ক্রাইটেরিয়া? চলুন দেখে আসি…

rehana-mariyam-bangla-cinema

১. অত্র সিনেমায় পরিবারের সবাই মিলে ডুপ্লেক্স বাড়িতে জন্মদিন উপলক্ষে একসাথে কোনো গান গায় না যে, সিনেমার শেষে সবাই গান গেয়ে খুঁজে পাবে।  

২. বুকে হাত দিয়ে ‘আমেনার, মা’ বলে হার্ট অ্যাটাক করে মারা যায় নাই।

৩. নেই কোনো চাবুকের বাড়ি, নেই কোনো ঘোড়ার শব্দ, এমনকি একটা সাপও কাউকে ছোবল মারে না।

৪. পুরো সিনেমায় কাবিলাকে কোথাও দেখা যায় নি, নাই তার বরিশালের ভাষায় কোনো ডায়ালগ। বাজেট কম থাকলে নোয়াখালির কাবিলাকে নিতে পারতো।

৫. বিদেশীদের সাথে লম্বা টেবিলে কোনো বিজনেস ডিল নাই,  নাই চৌধুরী গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রির কোনো মালিক।

৭. সবচে অবাক হবেন এই সিনেমায় কেউ স্মৃতি হারায় না। সেখানে গাছের সাথে ধাক্কা খেয়ে স্মৃতি ফিরে আসার প্রশ্নই আসে না।

৮. এই সিনেমায় নায়ক নায়িকা বিদেশে তো দূরে থাক, দেশে ফ্যান্টাসি কিংডম গিয়েও নাচে না। নায়ক নায়িকা তো নাচেই না, এমনকি কোনো ফুলের সাথে কোনো ফুল ঠোকাঠুকিও করে না।

৯. এই সিনেমায় এতোগুলা ডাক্তার, তবুও কোনো ডাক্তার একটিবারের জন্য কারো প্রেশার মেপে বলে না, কংগ্রাচুলেন্স, আপনি মা হতে চলেছেন। অবশ্যই ফুলে ফুলে ঠোকাঠুকি না করলে ডাক্তারই বা নিজে থেকে কী বলবে।

১০.  আর সবচেয়ে বড় কথা হলো, এই সিনেমায় পুলিশের কোনো ভুমিকা নেই। শেষে মুহূর্তে অন্তত পুলিশ আসতে পারতো। এসে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে বলতে পারতো, ‘আইন নিজের হাতে তুলে নেবেন না।‘

২৫৭০ পঠিত ... ১২:৫৫, নভেম্বর ২৮, ২০২১

Top