ব্যর্থতার পর বাংলাদেশ এক ম্যাচ জিতলেই পত্রিকার রিপোর্ট আর ফেসবুক স্ট্যাটাস যেমন হবে

৮৮৯ পঠিত ... ১৬:৫৪, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৯

আফগানিস্তানের বিপক্ষে নিজেদের মাটিতে টেস্ট হারার পর এই মুহূর্তে বাংলাদেশের ক্রিকেটে নেমে এসেছে চরম দুঃসময়। দলের সমালোচনায় মুখর এখন পত্রিকাওয়ালারা, ফেসবুকাররাও ছেড়ে কথা বলছে না। কিন্তু এমন দুঃসময়ের পর একটা বা দুইটা ম্যাচ জিতলেই আমরা দেখে থাকি, বাতাস আবার বইছে উল্টো দিকে। প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে হোক বা কেনিয়া, অনেকগুলো হারের পর একটা ম্যাচ জিতলেই হলো। দলের প্রশংসা আর আবেগের খরস্রোতে ভেসে যায় পত্রিকার খেলার পাতা, ফেসবুকের হোমপেজ। সাম্প্রতিক বাজে পারফরম্যান্সের পর বাংলাদেশ যদি আবার এক ম্যাচ জেতে, পত্রিকার রিপোর্টগুলো কেমন হতে পারে? কেমন হতে পারে ফেসবুক সেলিব্রেটিদের স্ট্যাটাস? তাদের সুবিধার জন্য আমরা তা আগেই ভেবে ফেলেছি। খবর, শিরোনাম, স্ট্যাটাস - সব রেডি আছে। এবার জিম্বাবুয়েকে ডেকে এনে একবার হালকা করে হারিয়ে দিলেই চলবে। দেখে নিন পাঁচটি স্যাম্পল।

 

১#

 

বিজয়ে ধুয়ে গেলো কলংক

নিজস্ব প্রতিবেদক

এই তো! গত সেপ্টেম্বরের কথা। দীর্ঘদিনের দাবদাহের পর কেঁদেছিলো দেশের আকাশ। আর সাথে কেঁদেছিলো দেশের ক্রিকেট। সেদিনের পুচকে আফগানদের বিরুদ্ধে পরাজয়! কী ছিলোনা সেদিনের গল্পে? লজ্জা, ব্যার্থতা, গ্লানি, হতাশা - সব এসে ভর করেছিলো সেদিন এই মানচিত্রে। আজকের এই জয়টা তাই বড় বেশি দরকার ছিলো। কিন্তু সকাল থেকেই ছিলো শংকা। আমরা যে ঘরপোড়া গরু! পারবো তো?
বিকেল গড়াতেই ডুবন্ত সূর্যের মুখে লেগে থাকা হাসির সাথে হেসে উঠলো বাংলাদেশের ক্রিকেট। জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে গর্জন করলো টাইগাররা।

 

২#

 

কীভাবে দাঁত চেপে বসেছিলেন, তামিম জানালেন সে গল্প
ক্রীড়া প্রতিবেদক

সেই বিশ্বকাপ থেকেই সময়টা ভালো যাচ্ছিলোনা তার। সমালোচনার তীরে বিক্ষত হচ্ছেন তখন থেকেই। মিডিয়া, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম - সবখানে সমালোচনা। এই বাস্তবতার সাথে খুব একটা পরিচত না খান পরিবারের এই প্রতিনিধি। তবে লড়াই করে বাঁচার স্পৃহাটা তার ভিতরে জন্ম থেকেই। এ যে তার পারিবারিক ঐতিহ্যের উত্তরাধিকার। তাই দাঁত চেপে বসেছিলেন তামীম। জানতেন - তিনি পারবেনই। এবং তিনি পারলেন। হাসলো তাঁর ব্যাট। পরাক্রমশালী জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে ৫০ করার পর হেলমেট খুলে ব্যাট যখন সামনে আনলেন তখনই মনে হয়েছিলো - এ উদযাপন আনন্দের নয়। এ হচ্ছে সমালোচনার জবাব।

 

৩#


'কত রাত কেঁদে পার করেছি'
নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ দলের রান মেশিন তিনি। বিপক্ষ দলের স্ট্যাম্পের পেছনে গ্লাপস হাতে বাংলাদেশের অতন্দ্র প্রহরী। সমালোচনার তীর ক্ষমা করেনি তাকেও। বিশ্বকাপের সেই মিস। তার পুনরাবৃত্তি আবার আফগানদের বিপক্ষে। পরাজিতের পাশে কেউ থাকেনা। থাকেনি মুশফিকের পাশেও। সবাই ভুলে গেলো এই মানুষটির হাত ধরেই এসেছে কত জয়!
বলতে বলতে আবেগী হয়ে উঠলেন মুশফিক, 'সময়টা খারাপ যাচ্ছিলো। ভেঙ্গে পড়েছিলাম। অনেক কেঁদেছি। দিনে কেঁদেছি, রাতে কেঁদেছি, সকালে কেঁদেছি।'
চোখ মুছতে মুছতে মুশফিক বলেন, 'সাহসটা হারাইনি। লেগে থেকেছি।'
প্রতিদান তিনি আজ পেলেন। আজ হেসে উঠেছে তার গ্লাপ্স। শক্তিশালী জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিনি সামনে থেকে ধরেননি একটা স্ট্যাম্পিং-ও।
প্রশ্ন করা যেতে পারে। এ বিজয় কি শুধুই মুশফিকের না কি বাংলাদেশ ক্রিকেটেরও!

 

৪#


'মাশরাফি ভাই বলেছিলেন তুই পারবি' - মাহমুদুল্লাহ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

মিডিয়াকে বলতে গেলে তিনি এড়িয়েই চলেন। এড়িয়ে চলেন ক্ষ্যাতি, জশ আর ক্যামেরা। নিজের মধ্যে ডুবে থাকাতেই যেন তার আনন্দ। তাই বলে কি ব্যার্থতা তাকে ভাবায় না? তিনিও তো মানুষ!
মাহমুদুল্লাহর কথা বলছি।
এমনিতেই আড়ালে থাকেন। বিশ্বকাপের পর নিজেকে নিয়ে গেছেন আরো আড়ালে। যে মাহমুদুল্লার ব্যাট হাসলে হাসতো বাংলাদেশ সে মাহমুদুল্লার মুখেই যে নেই হাসি। সবার চোখ এড়িয়েছে মাহমুদুল্লাহর সেই ব্যাথা। কিন্তু একজনের চোখে ঠিকই পড়েছে। মাহমুদুল্লাহ নিজেই জানালেন সে মানুষটার কথা। তিনি মাশরাফী। 'যখন খুব ভেঙ্গে পড়তাম তখন ম্যাশ ভাই বলতেন, তুই পারবি।'
'আজকে আমি পেরেছি।' বলতে গিয়ে চোখ চিকচিক করে উঠলো তার।
হবে নাইবা কেন? রান যে তার ৬২।

 

৫#


সিজনাল সাপোর্টাররা কই?
সেলিব্রিটি ফেসবুকার

কই আপনারা? মুখুগুলা দেখি একটু। সমালোচনার সময় তো একেবারে সামনে। আজকে তো দেখা নাই। গর্তে লুকাইছেন?
আফগানিস্তানের বিপক্ষে হারের পর আপনাদের আচরণ দেখে মনে হয়েছিলো ক্রিকেট শেষ। অথচ আপনারা ভুলে গিয়েছিলেন - এই দল হলো একটা পাগলার দল। এই দলে আছে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার, আছে তামীম নামের একটা বাঘ, আছে মুশফিক নামের একটা সিংহ।
দেখলেন তো আজ? জিম্বাবুয়েকে কীভাবে হারিয়ে দিলাম?
দুই একটা হারে কিচ্ছু যায় আসেনা। আমরা সাথেই ছিলাম। এই ক্রিকেট দিয়েই আমাদের আনন্দ। ছোট একটা দেশের আছেই তো একটা আনন্দের উপলক্ষ। এই ছেলেগুলাই আমাদের কাঁদাবে, এই ছেলেগুলাই হাসাবে, আবেগে ভাসাবে।
ভালোবাসি বাংলাদেশ। ভালোবাসি ম্যাশ, তামিম, মুশি।

৮৮৯ পঠিত ... ১৬:৫৪, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৯

Top