বৃষ্টিতে ভেজার পর বান্ধবীর সাথে রাতভর যে আলাপ হলো

৫০২ পঠিত ... ১৭:১০, মে ১৭, ২০২২

Premika-bristy-te-vejar-por

 

সঞ্জয় সরকার

কিছু কিছু বান্ধবী থাকে যাদের সাথে কারণে অকারণে শয়তানি করা যায়। জ্বালাতন করতে খুব মজা লাগে। আজকে ঝগড়া তো কালকে গলায় গলায় ভাব। আমার এরকম একটা বান্ধবী আছে।

দুই দিন আগের ঘটনা। বান্ধবী এই মৌসুমে প্রথম বৃষ্টিতে ভিজেছে। নিরুপায় হয়ে ভিজতে হয়েছে, বিষয়টা এমন না। ইচ্ছা করে ভিজেছে। ক্যাম্পাসে ঝুম বৃষ্টিতে ভেজার মজাই আলাদাবৃষ্টিতে ভেজার পর বান্ধবীর সাথে রাতভর যে আলাপ হলো। ফলাফল যা হওয়ার তা-ই হয়েছে। ঠাণ্ডায় নাক দিয়ে কথা বলা শুরু হয়েছে!

আমাদের এই কাহিনির ব্যাকগ্রাউন্ড ছিল দুপুরবেলা, অর্থাৎ বান্ধবী দুপুরে ক্যাম্পাসে খুব নায়িকাসুলভ ভঙ্গিতে বৃষ্টিতে ভিজেছে। আমাকে কল দিয়েছে রাতে।

: হ্যালো, দোস্ত, কেমন আছিস?

বান্ধবীর কণ্ঠস্বর শুনেই বোঝা যাচ্ছে বেচারির খুব ঠাণ্ডা লেগেছে। একটু সহানুভূতি পাওয়ার আশায় কল করেছে।  কিছুই বুঝছি না ভাব ধরে  কথা শুরু করলাম।

: বহুত খুশ। তোর কী খবর?

: আর বলিস নারে দোস্ত, নাক এক্কেরে 'ডাইরেক্ট' হয়ে গেছে। ঠাণ্ডা লাগছে। খুব খারাপ অবস্থা।

এই পর্যায়ে উচিত হলো কী করে সর্দি বাধাল জিজ্ঞেস করা কিংবা সুস্থ হওয়ার পরামর্শ দেওয়া। কিন্তু ওই যে… কিছু বান্ধবীকে জ্বালাতে ভালো লাগে!

: তোকে একটা সিরিয়াস কথা বলি?

: বৃষ্টিতে না ভেজার পরামর্শ বাদে অন্য কিছু হলে বল।

: এসব ফালতু পরামর্শ দেই না আমি।

: হুমম। হইছে। উনি এক্কেরে কোন জ্ঞানী হইছে আমাকে ভালো পরামর্শ দিতে আসছে!

: শোন, আমিও চাই মাঝে মাঝে তুই বৃষ্টিতে ভেজ আর সর্দি হোক।

: কী?! তুই আমার বন্ধু না শত্রু?

: আহা! এত উত্তেজিত হওয়ার কী আছে? আগে পুরোটা শোন। তুই এমনিতেই ঝগড়াটে মেয়ে। মেয়েদের কোমলতা তোর মাঝে কিচ্ছুই নাই। কিন্তু এই সর্দি হলেই তোর ভয়েসটা কেমন রোমান্টিক রোমান্টিক হয়ে যায়।

: ফ্ল্যার্ট করিস?! তুই শুধু ক্যাম্পাসে আয়। দেখ, তোর কী হাল করি।

: সিরিয়াসলি বলছি। ঠাণ্ডা লাগলে মেয়েদের জড়ানো ভয়েস খুব রোমান্টিক লাগে।

: আচ্ছা, তাই?! ওই শয়তান, আমার রোমান্টিক ভয়েস দিয়ে তোর কী, হুমম?

: আমি তোর বন্ধু না?

: তো?

: ইয়ে মানে....বন্ধু  থেকে তো অনেক কিছু হওয়া যায়!

: কীইই?! তুই শুধু কাল ক্যাম্পাসে আয়। এমনিতেই চার চোখ। চশমা ছাড়া কিছু দেখস না। কাল তোর চশমাটাই আগে ভাঙমু।

: সমস্যা নাই। বাকি জীবনটা না হয় তোর চোখ দিয়েই দেখব। ভালোবাসার জন্য মানুষ কত কিছুই তো করে!

: তোর ভালোবাসার গুষ্টি কিলাই! তুই আয় কাল। এক থাপ্পড়ে এক্কেরে সোজা মঙ্গলগ্রহে পাঠামু!

: ওখানে আমরা থাকব কিভাবে? ওখানে তো এখনও মানুষ বসবাস শুরু করে নাই।

: 'আমরা' মানে?

: আমি মঙ্গলগ্রহে থাকলে তুই এখানে একা থেকে কী করবি? কার সাথে থাকবি? আমার সাথে ঝগড়া না করে তো থাকতে পারবি না।

: এই শোন, তোরে না আমি.......!

উত্তেজনায় বান্ধবী ভাষা হারিয়ে ফেলেছে! আমিও ফোন রাখলাম। একদিনের জন্য যথেষ্ট রাগানো হয়েছে। কাল ভার্সিটিতে কপালে কী আছে কে জানে?

৫০২ পঠিত ... ১৭:১০, মে ১৭, ২০২২

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top